মেইন ম্যেনু

অচিরেই তিস্তা চুক্তির ঘোষণা : পঙ্কজ শরণ

বাংলাদেশ-ভারতের মধ্যে অচিরেই তিস্তা চুক্তি হচ্ছে। এই বিষয়ে কাজ চলছে। ঢাকায় নিযুক্ত ভারতের হাইকমিশনার পঙ্কজ শরণ সোমবার এই তথ্য জানান।

বাংলাদেশ ইন্সটিটিউট অব ইন্টারন্যাশনাল এন্ড স্ট্রাটেজিক স্টাডিজ (বিস) সোমাবার ‘কান্ট্রি লেকচার’র আওতায় ‘বাংলাদেশ-ভারত সাম্প্রতিক অগ্রগতি ও প্রত্যাশা’ শীর্ষক এক সেমিনারের আয়োজন করে। ওই সেমিনারে ভারতের হাইকমিশনার পঙ্কজ শরণ এই তথ্য জানান।

পঙ্কজ শরণ বলেন, ‘তিস্তা সমস্যার সমাধানে নীরবে কাজ চলছে। এর মধ্যে ব্যাপক অগ্রগতি হয়েছে। স্থলসীমান্ত চুক্তি বাস্তবায়নের মতো সামনে আনুষ্ঠানিকভাবে এই বিষয়েও ঘোষণা আসবে। দুই দেশ দুই দেশের অগ্রগতিতে যেভাবে কাজ করছে, তাতে আমাদের মধ্যে সামনের দিনে আর কোনো সমস্যা থাকবে না। আলাপ আলোচনা ও বাস্তবতার নিরিখে সহজেই জটিল সমস্যাগুলোর সমাধান করা যাবে। যেমনটি আমরা আগেও করেছি।’

তিনি জোড়ের সঙ্গে বলেন, ‘তিস্তা সমস্যার সমাধানও অচিরেই হবে। কেননা দুই দেশই এর সমাধান করতে আগ্রহী। আর শুধু তিস্তাই নয় উন্নয়নের খাতিরে সব বিষয়েরই সহজ সমাধান হবে।’

পঙ্কজ শরণ জানান, দুই দেশের প্রধানমন্ত্রীর মধ্যে টেলিফোনিক সংযোগ বা আলাপের যে সংস্কৃতি রয়েছে, তা খুবই ইতিবাচক। কেননা এর মাধ্যমে ভালো এবং খারাপ উভয় সময়েই দুই দেশ একে অপরের পাশে থাকতে পারে। এতে অনেক জটিল সমস্যারও সমাধান আসে। সামনে দুই প্রধানমন্ত্রী আবারও মুখোমুখি হবেন। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে এরই মধ্যে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির পক্ষ থেকে দাওয়াত দেওয়া হয়েছে। আশা করছি, দুইজনের মধ্যে সামনের সাক্ষাতে দুই দেশের উন্নয়নে আরও ইতিবাচক ঘোষণা আসবে।

ফেলানি হত্যা সম্পর্কে ভারতের হাইকমিশনার পঙ্কজ শরণ বলেন, ‘ফেলানি হত্যাকাণ্ড একটি অনাকাঙ্খিত ঘটনা। যা আমরা কেউই চাই না। আসলে গরু চলাচলের বিষয়টিই দুই দেশের সীমান্ত হত্যার মূল কারণ। তবে সীমান্ত পরিস্থিতিকে শান্ত রাখতে গত ৩ বছর ধরে বিভিন্ন কার্যক্রম বাস্তবায়িত হচ্ছে। আমরা সীমান্তে কোনো হত্যা দেখতে চাই না।’






মন্তব্য চালু নেই