মেইন ম্যেনু

অজানা এই বিষয়গুলো, নারীরা জেনে নিন…

কাজল কালো চোখ!
চুল যদি আপনার রূপের ভিত্তি হয় তাহলে চোখ হবে তার ভিত্তি প্রস্তর! নারীর চাহুনিতে পুরুষ তখনই আকৃষ্ট হবে যখন চাহুনির সঙ্গে ঝলমলে চুলের তীব্র ঝলকানি থাকে। চোখ যেহেতু সরাসরি যোগাযোগ স্থাপনে পারদর্শী তাই নিঃসন্দেহে এটি একটি শক্তিশালী মাধ্যম। পরিচিত-অপরিচিত যে কেউ আপনার চোখের আহ্বানে সাড়া দিতে পারে মুহূর্তেই। দৃষ্টিশক্তির এই সর্বাধিক সুফল পাওয়ার জন্য আপনার চোখের সাজ হতে হবে কিছুটা অন্যরকম। চোখের আবেদন সত্যিই অসামান্য। হালকা মেকআপ আর সুদৃশ্য ভ্রুর যাদু আপনার চোখে এনে দেবে এক আকর্ষণীয় রূপ। তবে সাবধান, মাত্রাতিরিক্ত মেকআপ আবার এর বিপরীত প্রতিক্রিয়াও সৃষ্টি করতে পারে!

পায়ের জুতো!
চুলের ঝংকার আর চোখের মায়ামাখা দৃষ্টি পেরিয়ে ধারণা হতেই পারে হাসির মুগ্ধতায় এবার বদলে যাবে পৃথিবী। কিন্তু সবাইকে অবাক করে দিয়ে হাসির বিষয়টি তেমন কোনো গুরুত্বই পায়নি জরিপে। লাস্যময়ী মুখের হাসিকে পেছনে ফেলে নারীর পায়ের দিকেই পুরুষের নজর কেড়েছে। জরিপে নারীর স্টাইলিশ জুতা আর হাই হিলের কথা বলেছেন তারা। পুরুষরা বলছেন, হাই হিল নারীর দেহের আকর্ষণ এবং কমনীয়তাকে বাড়িয়ে তুলে কয়েকগুণ। তবে হাই হিল পায়ে দিলেও অবশ্যই ভারসাম্য রক্ষা করে হাটতে হবে আপনাকে। কারণ বেখাপ্পা হিল পায়ে হাঁটা আর মুখের অতিরিক্ত মেকআপ নেতিবাচক ভাবে আপনাকে উপস্থাপন করতে পারে পুরুষের চোখে। তবে যারা হাই হিল ব্যবহার করেন না তাদেরও হতাশ হওয়ার কোনো কারণ নেই। হাই হিল ছাড়াও মানানসই ও আকর্ষণীয় জুতা পায়ে অতি সাধারণভাবে হেঁটেও মুগ্ধতার আবেশ ছড়িয়ে দিতে পারেন পুরুষের চোখে।

অনাবিল হাসি

কারও এক পলকের দৃষ্টিকে অপলক করে তুলতে পারে অনাবিল হাসির মোহনীয়তা। অনেক মানুষের ভীড়ে হাস্যময়ী নারীর দিকেই পুরুষের চোখ ছুটে যায় সবার আগে। আর তাই সেই শুভ্র হাসির জাদুতেই প্রিয় মানুষটিকে আপনিও কাছে টেনে নিতে পারেন চিরদিনের জন্য। হাসির কারণে যদি সামান্য বাঁকা দাঁত বেরিয়ে যায়, সে নিয়ে ভাবনার কোনো কারণ নেই। বরং আপনার মুখের অকৃত্রিম হাসি-ই তাকে জানাবে বন্ধুত্বপূর্ণ আহ্বান। যা প্রথম দেখাতেই আপনার প্রতি তার নির্ভরতা ও ভালোলাগার প্রথম পদক্ষেপকে জোড়ালো করবে আনমনেই।

স্লিম ফিগার
এ কথা সত্যি যে, আপনি যদি শারীরিক গঠনে স্লিম ফিগারের অধিকারী হন তবে অন্যান্য নারীর চেয়ে পুরুষের চোখে আকর্ষণীয়ভাবে দ্রুত নজরে পড়বেন। সুতরাং শারীরিক কাঠামো অনুযায়ী, পোশাকের ধরণ হতে হবে এমন যা আপনার দেহের ভঙ্গিমাকে ইতিবাচকভাবে প্রকাশ করে। নারীরা যে কোনো পোশাক বেছে নেওয়ার ক্ষেত্রে উরু, বাহু এবং অন্যান্য বিষয়ে বেশ চিন্তিত হয়ে পড়ে। কিন্তু এ নিয়ে হতাশার কোনো কারণ নেই। প্রত্যেক নারীর কাছেই তার দেহের এমন কিছু বিষয় থাকে যা সে পরিবর্তন করতে চায়।

নারীত্বের যথাযথ প্রয়োগ এবং আত্মবিশ্বাস-ই আপনার প্রিয় মানুষটির কাছে আপনাকে এগিয়ে নিয়ে যাবে।






মন্তব্য চালু নেই