মেইন ম্যেনু

অতিরিক্ত পানি পান করলে যা হয়

সাম্প্রতিক সময়ের এক জরিপে দেখা যায়, যারা অতিরিক্ত পরিমান পানি পান করে তারা পানি পাগলা কিংবা নেশাগ্রস্থ হয়ে যায়। আগের প্রাচীনতম ধারনা ‘যেমন দিনে অন্ততপক্ষে আট গ্লাস পানি করা উচিৎ’ ভুল প্রমাণ করতে এক প্রকার চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দেন অস্ট্রেলিয়ার মোনাস বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা।

মোনাস বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী অধ্যাপক মাইকেল ফ্যারেল মনে করেন, আমাদের দেহে যতটুকু পানি দরকার ততটুকু পানি পান করা প্রয়োজন; এর বেশি নয়। তৃষ্ণা অনুযায়ী পানি পান করতে হবে।। অকারণে বেশি পানি পান করা ঠিক নয়।

গবেষকরা দুই শ্রেনির মানুষের উপর গবেষনা চালালেন-যারা ব্যয়াম করে তৃষ্ণা পেয়ে পানি পান করবে এবং যাদেরকে পানি পান করার প্ররোচিত করা হবে। ফলাফলে দেখা গেল, যারা তৃষ্ণা পেয়ে পানি পান করল তারা পানি খাদকের তুলনায় তিন গুন খেল। অর্থাৎ চাহিদা অনুসারে তারা পানি করল।

অতিরিক্ত পানি পান করলে মস্তিষ্কে মারাত্মক ক্ষতি হতে পারে বলে গবেষকরা মনে করেন। জোড়পূর্বক পানি করার ফলে মানুষের মস্তিষ্ক ও এর আশেপাশে স্থানে কি ধরণের প্রতিক্রিয়া হয় তা জানার জন্য গবেষকরা এফ.এম.আই.আর নামে একটি মেশিন ব্যবহার করে গবেষনা চালান।

গবেষনার ফলাফলে দেখা যায় যে, অত্যধিক পরিমান পানি পান করার সময় মানুষের মস্তিষ্কের সামনের অগ্রভাগের অংশটুকু সচল থাকে, যার ফলে বেশি পানি পান করার চাপও শরীর নিতে পারে।

এমনও অনেক ঘটনা রয়েছে যে, ম্যারাথন দৌড়ের পর কোন খেলোয়ার যদি অত্যাধিক পরিমাণ পানি পান করে তাহলে তাৎক্ষনিকভাবে সে মারাও যেতে পারে।

ফ্যারেল বলেন, সাধারণত বৃদ্ধ লোক বেশি পানি পান করেন না বরং তাদের নিজেদের চাহিদার দিকে তারা সর্বদা খেয়াল রাখেন।






মন্তব্য চালু নেই