মেইন ম্যেনু

অধ্যাপক মনিরুজ্জামান মিঞা আর নেই

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন উপাচার্য মনিরুজ্জামান মিঞা ইন্তেকাল করেছেন (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)।

সোমবার দুপুরে রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি শেষনিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগের অধ্যাপক ছিলেন।

দেশের খ্যাতিমান শিক্ষাবিদ মনিরুজ্জামান মিঞা ১৯৩৫ সালে ভারতের মুর্শিদাবাদে জন্ম গ্রহণ করেন। পাঁচ ভাই-এক বোনের মধ্যে তিনি তৃতীয়। বাবা মোদ্দাছের হোসেন ছিলেন স্কুল শিক্ষক, মা আনোয়ারা খাতুন ছিলেন গৃহিণী ছিলেন। পরে তার পরিবার চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলায় স্থায়ী হয়।

অধ্যাপক মনিরুজ্জামান কৃঞ্চ গোবিন্দ হাই স্কুল থেকে এসএসসি, রাজশাহী কলেজ থেকে বিএসসি পাস করে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে এমএসসি করেন। জগন্নাথ কলেজে শিক্ষকতা শুরু করেন। ১৯৬১ সালে উচ্চতর ডিগ্রীর জন্য প্যারিসে যান। ১৯৬৬ সালে প্যারিস থেকে ফিরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগে যোগদান করেন। ১৯৯০ সালের ২৪ মার্চ থেকে ১৯৯২ সালের ৩১ অক্টোবর পর্যন্ত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের দায়িত্ব পালন করেন।

জাতীয় শিক্ষানীতি ২০০১ প্রণয়ন কমিটিতে মনিরুজ্জামান মিঞা চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। এটিকে মনিরুজ্জামান মিঞা শিক্ষানীতি বলা হয়। পরবর্তী সময়ে তিনি ইবাইস বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য, দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) কমিশনার ও সেনেগালের রাষ্ট্রদূতের দায়িত্ব পালন করেন।

মনিরুজ্জামান মিঞা ব্যক্তিজীবনে চিরকুমার ছিলেন। যৌবনে পরিবারের সদস্যরা চেষ্টা করলেও তিনি বিয়েতে রাজি হননি। পরে ১৯৯০ সালে বিয়েতে আগ্রহী হলেও শেষ পর্যন্ত তা আর হয়ে ওঠেনি।।

মৃত্যুর আগে গত ছয় মাস যাবৎ বনানীর নিজগৃহে একপ্রকার বন্দি জীবন-যাপন করছেন অধ্যাপক মনিরুজ্জামান মিঞা। পরিবারের সদস্যদের ছাড়া যোগাযোগ ছিল না শুভাকাঙ্ক্ষী কিংবা পরিচিত কারো সঙ্গে। ছিল না ব্যক্তিগত মোবাইলও। এমনকি তার ব্যক্তিগত গাড়িটিও ব্যবহার করছেন অন্যরা। তবে স্বজনরা দাবি করেন, চিকিৎসকের পরামর্শে তাকে পূর্ণ বিশ্রামে রাখা হয়েছিল। তিনি আলঝেইমার (স্মৃতিবিভ্রম) রোগে আক্রান্ত ছিলেন বলে পরিবারের পক্ষ থেকে জানানো হয়।






মন্তব্য চালু নেই