মেইন ম্যেনু

অন্ধ ব্যক্তির রাস্তায় গাড়ি চালানোর দুর্দান্ত কাহিনী!

তিনি অন্ধ, চোখে দেখেন না কিন্তু তার মনোবলের কথা শুনলে চমকে যাবেন। মোটরসাইকেল নিয়ে প্রায় ৭শ’ কিলোমিটার রাইডের জন্য প্রস্ততি নিচ্ছেন মেক্সিকোর প্যাট্রিসিয়া রদ্রিগেজ নামে এক অন্ধ ব্যক্তি।

রাস্তার অন্যসব গাড়ির ইঞ্জিনের শব্দ শুনেই তিনি বুঝে যান যে, কখন কীভাবে চালাতে হবে মোটরসাইকেল! তবে পেছনে থেকে তাকে সাহায্য করেন স্ত্রী সারাহ পেরেজ।

সংবাদ মাধ্যমের খবরে জানা গেছে, মেক্সিকোরপ্যাট্রিসিয়া রদ্রিগেজ সেই শিশুকাল হতেই অন্ধ, নিজেকে সত্যিই অসাধারণের পর্যায়ে নিয়ে যেতে বেছে নিয়েছেন মোটরসাইকেলের মতো একটি বাহন।

রদ্রিগেজ চোখে না দেখলেও মোটরসাইকেল নিয়ে পাড়ি দিয়েছেন মাইলের পর মাইল। এবার প্রস্ততি নিচ্ছেন মেক্সিকোর গাহদালাহারা হতে সালতিলো পর্যন্ত প্রায় ৭শ’ কিলোমিটার পথ মোটরসাইকেলে পাড়ি দেবে তিনি।

লম্বা এই ট্যুরে সঙ্গে থাকছেন তার স্ত্রী সারা পেরেজ। স্ত্রীর চোখে ভর করেই লম্বা এই পথ পাড়ি দেবেন রদ্রিগেজ। পথ চলতে কিংবা মোটরসাইকেল থামাতে রদ্রিগেজকে ঘাড়ে সিগন্যাল দিয়ে বুঝিয়ে দেন স্ত্রী সারাহ পেরেজ।

প্যাট্রিসিয়া রদ্রিগেজ সংবাদমাধ্যমকে বলেছেন, আমি যখন হাঁটতাম এখানে-সেখানে ধাক্কা খেতাম, হোচটও খেতাম। এখন বাইক চালাতে এ ধরনের কোনো সমস্যা হচ্ছে না। একটা পাখিকে দীর্ঘদিন খাঁচায় আটকে রেখে ছেড়ে দিলে যেমন করে, আমারো তেমনই অনুভব হয়।

শিশুকালেই দৃষ্টি হারিয়েছেন রদ্রিগেজ। এখন তিনি হাঁটার চেয়ে মোটরসাইকেল চালাতেই স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন রদ্রিগেজ। ইঞ্জিনের শব্দ শুনেই বুঝে যান কি রয়েছে তার ডানে কিংবা বামে।

কখন বাড়াতে হবে গতি আর কখন কমাতে গতি তা প্যাট্রিসিয়া বুঝে যান। নিজের যোগ্যতা দিয়ে অন্ধত্বকে জয় করেছেন তিনি। নিজের অদম্য ইচ্ছাশক্তি দিয়েই আরো এগিয়ে যেতে চান একজন সাধারণ মানুষের মত।






মন্তব্য চালু নেই