মেইন ম্যেনু

অপরূপ সাজে সজ্জিত হচ্ছে বিমানবন্দর সড়ক

অপরূপ সাজে সজ্জিত হচ্ছে রাজধানীর বিমানবন্দর সড়ক। বনানী থেকে বিমানবন্দর পর্যন্ত সড়কের দুই পাশে বিশ্বের অত্যাধুনিক সড়কগুলোর ন্যায় নানা স্থাপনা তৈরি করা হচ্ছে। একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের আর্থিক সহযোগিতায় সড়কের এ সৌন্দর্য বাড়ানোর কাজ করছে সড়ক বিভাগ। কাজ শেষ হলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এর উদ্বোধন করবেন।

বনানীর কুর্মিটোলা হাসপাতাল থেকে গলফ ক্লাবের দিকে গেলেই নজরকাড়া এই দৃশ্য চোখে পড়বে। শনিবার বিকেলে সরেজমিনে দেখা যায়, নির্ধারিত জায়গায় যাত্রী ছাউনি, বিভিন্ন আল্পনাসহ ইট-পাথর আর স্টিল দিয়ে তৈরি করা হচ্ছে নানা স্থাপনা। একই সঙ্গে মুক্তিযুদ্ধের বিভিন্ন স্মৃতিস্তম্ভও ফুটিয়ে তোলা হবে বলে জানা গেছে।

সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, রাজধানীর ফুটপাতগুলো যেন দিন দিন আরো শ্রীহীন হয়ে না ওঠে সে উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে। এরই অংশ হিসেবে বনানী থেকে বিমানবন্দর পর্যন্ত সড়কের দেই পাশে দৃষ্টিনন্দন দৃশ্যাবলি, মুক্তিযুদ্ধের নানা ঘটনাপ্রবাহ, ডিজিটাল যাত্রী ছাউনি, ওয়াইফাই, এটিএম বুথ, ফাউনটেন ঝরনা, এলইডি টিভিসহ বিভিন্ন সুবিধা বর্ধিত করা হচ্ছে।

এজন্য ‘এয়ারপোর্ট রোডের সৌন্দর্যবর্ধন’ শীর্ষক একটি প্রকল্প হাতে নেয়া হয়েছে। আগামী মার্চের মধ্যে প্রকল্পটির কাজ শেষ হবে বলে আশা করছেন সংশ্লিষ্টরা।

সরেজমিনে দেখা যায়, অত্যাধুনিক লোহা, স্টিল মিশ্রিত বার, শিকল বসানো ও ঝালাইয়ের কাজ করছেন শ্রমিকরা। ফুটপাতসংলগ্ন নির্ধারিত কিছুটা উঁচু স্থানে ইট-পাথর দিয়ে তৈরি করা হচ্ছে নানা আল্পনা। আল্পনার ফাঁকে ফাঁকে তৈরি করা হচ্ছে মুক্তিযুদ্ধের বিভিন্ন স্মৃতিস্তম্ভ। সাজানো হচ্ছে নানা রকমের ফুলের টব।

এ প্রসঙ্গে সড়ক ও জনপথ অধিদফতর ঢাকা সার্কেলের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী মো. সবুজ উদ্দিন খান জানান, চলতি বছরের সেপ্টেম্বরে এ রোডের সৌন্দর্যবর্ধনের কাজ শুরু হয়। আগামী মার্চের মধ্যে এ প্রকল্পের কাজ শেষ হবে। এর উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রায় ৯০ কোটি টাকা ব্যয়ে সৌন্দর্যবর্ধনের কাজটি করছে বিলাই ওয়ার্ল্ড নামক একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠান। এখানে সরকারের কোনো খরচ লাগছে না। পুরো টাকাই প্রতিষ্ঠানটি ব্যয় করছে।






মন্তব্য চালু নেই