মেইন ম্যেনু

অফিসে বসে মুখ চালানোর ১০টি হেলথ ফুড

অফিসে অনেকে বাঁধাছাঁদা করে গুছিয়ে খাবার নিয়ে যান। মাঝ সকালের ফ্রুট জুস থেকে বিকেলের বাদাম, সবই থাকে সেই টিফিন প্যাকে। কিন্তু অনেকেই বড় বড় বাক্স করে খাবার নিয়ে যাওয়া পছন্দ করেন না। অথচ সঙ্গে খাবার মজুত না থাকলে অনেক সময়েই কাজের ফাঁকে ঠিক সময়ে খাওয়া হয়ে ওঠে না।

সব সময় পুষ্টিকর খাবারও পাওয়া যায় না ক্যান্টিনে বা অফিসের আশপাশে। নীচে রইল ১০টি খাবারের কথা যা সহজেই ক্যারি করা যায় পকেটে অথবা ছোট ব্যাগে। কাজের ফাঁকে মুখ চালাতে আদর্শ খাবার আবার শরীরেও পুষ্টি লাগে-

১) সাধারণ বাদাম তো রয়েছেই। সঙ্গে রাখুন আমন্ড এবং আখরোট। আমন্ডে রয়েছে ভিটামিন বি১২, ভিটামিন ই এবং অন্যান্য মিনারেলস। আখরোটে রয়েছে ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড এবং প্রচুর ক্যালরি।

২) আঙুর যত খাবেন ততই ভাল। বিশেষ করে গরমকালে শরীর হাইড্রেটেড রাখতে আঙুর বেশি করে খাওয়া উচিত। ক্যারি না করলেও অফিসের কাছে কোনও ফলের দোকান থেকে কিনুন আর ড্রয়ারে রাখা থাক মাঝারি মাপের বাটি। ভাল করে ধুয়ে খান এবং খাওয়ান।

৩) একটি করিৎকর্মা হলে ছোট করে কাটা গাজর, আলু, বেবিকর্ন, রাঙালু, পেঁপে ইত্যাদি ছোলা দিয়ে সেদ্ধ করে একটি এয়ারটাইট কন্টেনারে করে নিয়ে আসুন। ব্যাগে রাখুন ছোট ফ্রুট ফর্ক। কাজের ফাঁকে খেতে থাকুন।

৪) তিলকাঠি, বাদাম-পাটালি খুবই কম দাম এবং এতেও প্রচুর ক্যালরি। ডায়বেটিজ বা অন্যান্য সমস্যা না থাকলে এগুলি কিনে আনুন এবং ডেস্কে বসে মুখ চালান।

৫) পপকর্ন শুধু সিনেমা দেখতে দেখতে খাওয়ার নয়, অফিসের কাজের ফাঁকেও খাওয়া যায়। বাজারে এখন নানা ফ্লেভারের রেডি পপকর্ন পাওয়া যায়। চিপস না কিনে ওইগুলি কিনুন।

৬) নানা রকম ড্রাই ফ্রুটস কিনে মিশিয়ে নিন। তার পরে একটি পাউচ প্যাকে ভরে অফিসে নিয়ে চলে আসুন। ড্রাই ফ্রুটসে প্রচুর ক্যালরি থাকে।

৭) বাড়িতে সেমাই বা সুজি দুধ ও সুজি দিয়ে ফুটিয়ে ঘন করে নিন। তার পর ফ্রিজে রাখুন কয়েক ঘণ্টা। ছোট ছোট টুকরো করে কেটে বক্সে ভরে অফিসে নিয়ে আসুন। কাজের ফাঁকে কমফর্ট ফুড।

৮) যাঁরা ওয়েট গেইন করতে চান তাঁরা কিউব চিজের প্যাকেট কিনে নিয়ে যান অফিসে। দিনে দু’তিনটি কিউব খেলে মনও ভাল থাকবে, শরীরেও লাগবে।

৯) মুখরোচক খাবার খেতে চাইলে অফিস আসার আগে বানিয়ে নিন প্যানকেক। তার পর টুকরো করে ছোট কন্টেনারে ভরে নিন। কাজের ফাঁকে ফর্ক দিয়ে খেতে থাকুন। ক্যালরিও বাড়বে শরীরে।

১০) চার-পাঁচটি ডিমের স্ক্র্যাম্বলড এগ বানিয়ে টিফিন বক্সে ভরে নিয়ে চলে আসুন। এমন খাবার কাজের ফাঁকে খেলে সহকর্মীরা হিংসে করবেই।






মন্তব্য চালু নেই