মেইন ম্যেনু

অবশেষে মিরপুর রুটে বাস চালু করল জাবি প্রসাশন

শাহাদত হোসাইন স্বাধীন, জাবি প্রতিনিধি: দীর্ঘ ছয় বছর পর মিরপুর রুটে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের বাস পুনরায় চালু করার ঘোষণা দিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয় প্রক্টর অধ্যাপক ড. তপন কুমার সাহা ও পরিবহনের দায়িত্বপ্রাপ্ত শিক্ষকরা।

আগামীকাল সোমবার থেকে মিরপুর রুটে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি বাস চলাচল করবে। মিরপুর-১০ থেকে সকাল ৭টা ৩০ মিনিটে ক্যাম্পাসের উদ্দেশ্যে বাসটি ছাড়বে এবং ক্যাম্পাস (পরিবহন চত্ত্বর) থেকে বিকাল তিনটায় মিরপুরের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যাবে।
এর আগে ২০১০ সাল পর্যন্ত মিরপুর রুটে বাস চলাচল করলেও ২০১১ সাল থেকে মিরপুর রুটের বাস বন্ধ করে দেয় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। আজ বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন, জাবি সংসদ-এর দাবীর মুখে পুনরায় মিরপুর রুটে বাস চালু করল প্রশাসন।

পূর্বনির্ধারিত কর্মসূচির অংশ হিসেবে আজ রবিবার সকাল ১১টা ৩০ মিনিটে জাবি ছাত্র ইউনিয়ন সংসদ পরিবহন অফিস ঘেরাও করে। এর আগে গত বছরের অক্টোবর মাসে প্রায় এক হাজার শিক্ষার্থীর গণস্বাক্ষর প্রশাসন বরাবর জমা দেয়। সেই সময়ে আশ্বাস দেয়া হলেও মিরপুর রুটে কোনো বাস চালু হয়নি। এরপর গত ৬ এপ্রিল উপাচার্য বরাবর একটি স্মারকলিপি দিয়ে ৯ এপ্রিল পর্যন্ত সময়সীমা বেঁধে দেয়া হয় এবং বলা হয় ওই সময়ের মধ্যে মিরপুর রুটে বাস চালু না করলে পরিবহন অফিস ঘেরাও করা হবে। কিন্তু প্রশাসন তাতে সামান্যতম কর্ণপাত করেনি।

তারই পরিপ্রেক্ষিতে আজ রবিবার ১১টা ৩০ মিনিটে পরিবহন অফিস ঘেরাও করা হয়। এরপর থেকে কোন বাস পরিবহন চত্ত্বর থেকে যেতে দেয়নি ছাত্র ইউনিয়নের নেতাকর্মীরা। ঘেরাও কর্মসূচি বহাল থাকে দুপুর ১টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত। এরপর বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ছাত্র ইউনিয়নের নেতাকর্মীদের সাথে আলোচনা করে সমঝোতার ভিত্তিতে মিরপুর রুটে বাস দেয়ার ঘোষণা দিলে আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা অবরোধ প্রত্যাহার করে।

ঘেরাও কর্মসূচি শেষে জাবি ছাত্র ইউনিয়নের সভাপতি দীপাঞ্জন সিদ্ধান্ত কাজল বলেন, ছাত্র ইউনিয়নের আরও একটি অনন্য কীর্তির স্বাক্ষী হল জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়। মিরপুর রুটের বাস চালু হওয়াতে যদি কোন শিক্ষার্থী সামান্যতম উপকৃতও হয় তাহলে আমরা মনে করব আমাদের দীর্ঘদিনের পরিশ্রম সফল হয়েছে। তাছাড়া আন্দোলন যে কখনও বৃথা যায় না তারও প্রমাণ আজকের এই কীর্তি।

জাবি ছাত্র ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক আবিদ সরকার সোহাগ বলেন, আজ আমাদের দাবীর মুখে বিশ্ববিদ্যালয় নতি স্বীকার করল। পরিবহনের অন্যান্য সংকট এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের নানাবিধ সমস্যা-সংকট নিয়ে আন্দোলন চালিয়ে যাব আমরা। কারণ আমরা রাজনীতি করি ছাত্রদের জন্য, কারও মনোরঞ্জনের জন্য নয়। তাই ছাত্রদের দিকটিই আমরা খেয়াল করি।






মন্তব্য চালু নেই