মেইন ম্যেনু

অবশেষে মুক্তি পেল কোহলির সেই ভক্ত

ভারতের পতাকা উড়ানোর দায়ে গ্রেফতার হওয়া ভারতীয় তারকা ব্যাটসম্যান বিরাট কোহলির পাকিস্তানি সমর্থক উমর দারাজকে মুক্তি দেওয়া হয়েছে। পাকিস্তানের আদালত দারাজের পক্ষে করা জামিন আবেদন মঞ্জুর করে তাকে মুক্তি দিয়েছেন।

এর ফলে, গত ২৬ জানুয়ারি গ্রেফতার হওয়া দারাজের ১০ বছরের জেল হওয়ার আশঙ্কা কিছুটা কেটে গেল।

গত ১৮ ফেব্রুয়ারি দারাজের করা জামিন আবেদন নাকচ করেন জেলা আদালতের বিচারক অনিক আনোয়ার। সে সময় দারাজের কৌঁসুলি আমির ভাট্টি জানিয়েছিলেন, আমরা বিষয়টি নিয়ে বেশ চিন্তিত। আদালতের এমন রায়ে আমরা হতাশ। তবে, আদালতের এ রায়ের বিপক্ষে লড়াই চালিয়ে যাব।

এরপর তারা আবারো জামিনের জন্য আবেদন করলে পাঞ্জাব প্রদেশের অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আসাদুল্লাহ সিরাজি আবেদন মঞ্জুর করেন।

তোলপাড় হওয়া সেই ঘটনার পর সেই সমর্থককে জেল থেকে মুক্ত করতে এগিয়ে আসার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল কোহলির পরিবার। উমর দারাজকে মুক্ত করার প্রসঙ্গে কোহলির ভাই বিকাশ কোহলি জানিয়েছিলেন, ‘ঘটনাটি আমরা শুনেছি। কোহলির সেই ভক্তের জন্য দুঃখ প্রকাশ করছি। আমরা তাকে মুক্ত করার ব্যাপারে পাকিস্তান সরকারের বরাবর আবেদন করবো। তবে তার আগে অবশ্যই এ ব্যাপারে আমরা কোহলির সঙ্গে আলোচনা করবো।’ কিন্তু, কোহলির পরিবারের পক্ষ থেকে আর কোনো পদক্ষেপ নেওয়া হয়নি বলে আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম গুলো প্রকাশ করে।

পাঞ্জাব প্রদেশে থাকা ২২ বছর বয়সী উমর দারাজ নামের সেই সমর্থকের বড় অপরাধ ছিল ভারতীয় পতাকা উত্তোলন করে কোহলির সমর্থন জানানো। লাহোর থেকে ২০০ কিলোমিটার দূরে পাঞ্জাবের ওকারা জেলায় বাস করা পেশায় দর্জি এই তরুণের বিপক্ষে দেশটির দণ্ডবিধির ১২৩-ক ধারায় মামলা করা হয়। দেশের সার্বভৌমত্বের ক্ষতি করে এমন অপরাধে তাকে ১০ বছরের জেল দেওয়া হতে পারে বলে জানা গিয়েছিল।

২৬ জানুয়ারি ভারতের প্রজাতান্ত্রিক দিবসে এমন অপরাধ করায় দারাজকে গ্রেফতার করে পাকিস্তানি পুলিশ। তার বিরুদ্ধে পাবলিক অর্ডার রক্ষণাবেক্ষণের ধারায় মামলা করা হয়। একই দিন তাকে কোর্টে ও পুলিশ হাজতে নেওয়া হয়। পাকিস্তানি পুলিশ দারাজের ঘর থেকে ভারতীয় পতাকা ছাড়াও তার ঘরের দেওয়ালে থাকা বেশ কয়েকটি কোহলির পোস্টার জব্দ করে। ভারতীয় প্রজাতান্ত্রিক দিবসে অস্ট্রেলিয়া ও ভারতের টি-টোয়েন্টি ম্যাচ চলাকালীন এমন ঘটনা ঘটে।






মন্তব্য চালু নেই