মেইন ম্যেনু

‘অমর শিল্পী তুমি কিশোর কুমার’

কিশোর কুমার, নামটি শোনেনি এমন কেউ আছেন বলে মনে হয় না। তাকে বলা হয়, হিন্দি বা ভারতীয় বাংলা সংগীতের প্রবাদ পুরুষ। কিশোর কুমার এর আসল নাম আভাস কুমার গঙ্গোপাধ্যায়। শুধু গায়ক নয়, প্রযোজক, নির্দেশক, সুরকার, গীতিকার, অভিনেতা হিসেবেও সমান জনপ্রিয় ছিলেন তিনি। আজ এই মহান সঙ্গীতসম্রাটের জন্মদিন। ১৯২৯ সালের ৪ আগস্ট তিনি মধ্যপ্রদেশের খান্ডোয়াতে জন্মগ্রহণ করেন।

কিশোর কুমারের গোটা পরিবারই বিখ্যাত। বাবা কুঞ্জলাল গাঙ্গুলি ও মা গৌরি দেবী। এই দম্পতির চার সন্তানের মধ্যে সর্বকনিষ্ঠ হল কিশোর কুমার। কিশোর কুমার এর বড় ভাই অশোক কুমার ছিলেন হিন্দি ও বাংলা সিনেমার জনপ্রিয় অভিনেতা। তার আরেক ভাই অনুপ কুমারও ছিলেন বড় মাপের অভিনেতা। তিনি ৭৫ টি সিনেমাতে অভিনয় করেছেন। কিশোর কুমার যেমন গেয়েছেন হিন্দি সিনেমায় তেমনি আলোড়ন তুলেছেন বাংলা সিনেমায়ও। ‘এ আমার গুরুদক্ষিণা’, ‘আমার পূজার ফুল’, ‘একদিন পাখী উড়ে যাবে যে আকাশে’, ‘কারো কেউ নইকো আমি’, ‘এক পলকের একটু দেখা’ সহ অসংখ্য কালজয়ী গান তিনি গেয়েছেন। তার গানের মাঝেই তিনি অমর হয়ে আছেন।

কিশোর কুমার এর গাওয়া আরো কিছু কালজয়ী বাংলা গান : ‘আকাশ কেন ডাকে’, ‘সে যেন আমার পাশে আজো বসে আছে’, ‘সে তো এলো না’, ‘মোর স্বপনের সাথী তুমি কাছে এসো’, ‘একদিন পাখি উড়ে যাবে যে আকাশে’, ‘হাওয়ায় মেঘ সরায়ে’, ‘সেই রাতে রাত ছিল পূর্ণিমা’, ‘আজ এই দিনটাকে মনের খাতায় লিখে রাখো’, ‘তোমরা যতই আঘাত করো’, ‘ওগো নিরুপমা’, ‘তোমার পড়েছে মনে’, ‘ও পারে থাকবো আমি’, ‘তোমার বাড়ির সামনে দিয়ে’, ‘নয়ন সরসী কেন ভরেছে জলে’, ‘পৃথিবী বদলে গেছে, ‘কি আশায় বাঁধি খেলাঘর’, ‘চোখের জলের হয়না কোনো রঙ’, ‘এত কাছে দুজনে’, ‘এইযে নদী যায় সাগরে’, ‘আমি যে কে তোমার’, ‘চিরদিনই তুমি যে আমার’, ‘আমার পূজার ফুল’, ‘আশা ছিল ভালোবাসা ছিল’, ‘আমারও তো গান ছিল’, ‘আধো আলো ছায়াতে’, ‘আমি দুঃখকে সুখে ভেবে বইতে পারি’ ইত্যাদি। এমন অনেক জনপ্রিয় গান কান পাতলেই শোনা যায় এখনও।

কিশোর কুমার বাংলা-হিন্দি ছাড়াও মারাঠি, অসমীয়া, গুজরাটি, কন্নড়, ভোজপুরি, মালায়লম, ওড়িয়া, এবং উর্দুতেও গান গেয়েছেন। তিনি তার ব্যক্তিগত অ্যালবামেও বিভিন্ন ভাষায় গান করেছেন, বিশেষত তার বাংলায় গাওয়া গানগুলি সর্বকালের ধ্রুপদী গান হিসেবে বিবেচিত হয়েছে। তিনি ৮ বার শ্রেষ্ঠ গায়ক হিসাবে ফিল্মফেয়ার পুরস্কার জিতেছেন এবং একই বিভাগে সর্বাধিক ফিল্মফেয়ার পুরস্কার বিজয়ের রেকর্ড করেছেন। তাকে মধ্যপ্রদেশ সরকার কর্তৃক লতা মঙ্গেশকর পুরস্কার প্রদান করা হয় এবং তার নামে হিন্দি চলচ্চিত্রে অবদানের জন্য কিশোর কুমার পুরস্কার চালু করা হয়।

গায়ক হিসেবে তাকে দেখা হলেও হিন্দি চলচ্চিত্র জগতের একজন গুরুত্বপূর্ণ অভিনেতাও তিনি। তার অভিনীত বিখ্যাত কমেডি চলচ্চিত্রের মধ্যে রয়েছে ‘বাপ রে বাপ’, ‘চলতি কা নাম গাড়ি’, ‘হাফ টিকিট’, ‘পড়োশন’, ‘হাঙ্গামা’, ‘পেয়ার দিওয়ানা’, ‘বাড়তি কা নাম দাড়ি’ ইত্যাদি। এছাড়া তার অভিনীত অন্যান্য জনপ্রিয় সিনেমার মধ্যে রয়েছে ‘নোকরি’, ‘বন্দী’, ‘দূর গগণ কি ছাঁও মে’, ‘দূর কা রাহি’ প্রভৃতি।

আসলে তিনি প্রথম জীবনে অভিনেতা হিসেবে ক্যারিয়ার গড়তে চাইলেও গায়ক হিসেবেই প্রতিষ্ঠিত হয়ে যান। কিশোর কুমার নিয়ে ছড়ানো রয়েছে অনেক রটনা-ঘটনা। যেমন-

অশোক কুমারের কাছে একটি ব্যক্তিগত কাজে গিয়েছিলেন গায়ক-সংগীত পরিচালক শচীন দেব বর্মণ। সেখানে কিশোর কুমারকে গাইতে শুনে সেদিনই ছবিতে গান গাওয়ার জন্য রাজি করান তাকে। আবার ৭০ দশকের মাঝামাঝি তার প্রযোজনায় একটি ছবিতে অতিথি শিল্পী হিসেবে অভিনয়ে অস্বীকৃতি জানালে অমিতাভ বচ্চনের জন্য গান না গাওয়ার সিদ্ধান্ত নেন কিশোর কুমার। ১৯৭৫-৭৭ সালে প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীর জারি করা জরুরি অবস্থার বিরোধিতা করে রাষ্ট্রীয় সব অনুষ্ঠান ও মাধ্যম থেকে নিষিদ্ধ হয়েছিলেন। রেডিওতে তাঁর গান প্রচার বন্ধ করা হয়, এমনকি দ্বৈত সংগীতগুলো থেকে তার গাওয়া অংশগুলো কেটে দেওয়া হয়। মধুবালাকে বিয়ে করার জন্য ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেন এবং নাম নেন করিম আবদুল। যত বড় পরিচালকই হোক না কেন, সম্পূর্ণ পারিশ্রমিক না পাওয়া পর্যন্ত গান রেকর্ডিং করতেন না। লতা মুঙ্গেশকরের অসম্ভব ভক্ত ছিলেন। তার সম্মানে সব সময় পারিশ্রমিক নিতেন লতার চেয়ে ১ রুপি কম। তার অভিনয়ে পাগলামির ছাপ ছিল স্পষ্ট, যা তিনি ইচ্ছা করেই তৈরি করেছিলেন। এমনকি খান্ডোয়ায় তার বাড়ির সামনে নিজেই `মেন্টাল হসপিটাল` লেখা সাইনবোর্ড লাগিয়েছিলেন।

সংগীত জীবনে চরম সাফল্যের মাইলফলক ‘আরাধনা’ ছবিটি। ১৯৬৯ সালে ‘আরাধনা’ শুভমুক্তি পায়। এই সিনেমার নায়ক ছিলেন নবাগত রাজেশ খান্না। রাজেশ খান্নার জন্য এই সিনেমায় কিশোর তিনটি গান গেয়েছিলেন – ‘কোরা কাগজ থা ইয়ে মন মেরা’ লতা মঙ্গেশকরের সঙ্গে আর দুটি হোলো ‘রূপ তেরা মস্তানা’ এবং ‘মেরে সপনো কি রানী’। তিনটি গানই বিপুল জনপ্রিয়তা পায় এবং কিশোর কুমারের সঙ্গীতজীবনকে অনেক উপরে উঠিয়ে দেয়। এই সিনেমায় ‘রূপ তেরা মস্তানা’ গানের জন্য কিশোর প্রথম বার ফিল্ম ফেয়ার পুরস্কার পান।

পরবর্তী বছরগুলোতে কিশোর গায়ক হিসাবে ব্যাপক সাফল্যতা লাভ করেন। সে সময়ে বলিউডে প্রতিষ্ঠিত সব নায়ক যেমন রাজেশ খান্না, শশী কাপুর, ধর্মেন্দ্র, রণধীর কাপুর, সঞ্জীবকুমার এবং দেব আনন্দের গলায় তিনি গান গান। এই সময়ে শচীন দেব বর্মন এবং রাহুল দেব বর্মনের সুরে তিনি প্রচুর কালজয়ী গান গেয়েছেন। রাহুল দেব বর্মনের সুরে তিনি ‘বম্বে টু গোয়া’ সিনেমাতে প্রথমবারের জন্য অমিতাভ বচ্চনের জন্য গান করেন। ১৯৭৩ সালে অমিতাভের `অভিমান` সিনেমার জন্য তার গানগুলি সুপারহিট হয়। এরফলে পরবর্তী মেগাস্টার অমিতাভের নেপথ্য গায়ক হিসাবে তিনি নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেন।

কিশোরের এই সাফল্যের পরে বলিউডের অন্য সুরকারেরাও তাঁকে নিজেদের প্রধান গায়ক হিসাবে বেছে নিতে বাধ্য করে। এদের মধ্যে প্রধান ছিলেন লক্ষ্মীকান্ত পেয়ারেলাল জুটি। গীতিকার আনন্দ বক্সী সুরকার লক্ষ্মীকান্ত পেয়ারেলাল এবং কিশোরকুমার জুটি বেশ কিছু রাজেশ খান্নার সিনেমার জন্য অনবদ্য সঙ্গীত উপহার দেন। যেমন- দাগ, রোটি, হাতি মেরে সাথি। লক্ষ্মীকান্ত পেয়ারেলালের সুরেই কিশোর ও মোহাম্মদ রফি একসাথে গান করেন এবং কিশোর ও লতা মঙ্গেশকরের বেশ কিছু ভাল ডুয়েট গান তৈরি হয়।

কিশোর কুমার এবং সুরকার কল্যাণজী-আনন্দজী জুটিও বেশ কিছু হিট গান উপহার দেন। যেমন- ধর্মাত্মা, লাওয়ারিস, কাবিলা, জনি মেরা নাম, ডন, কাগজ, সফর, মুকাদ্দর কা সিকান্দর প্রভৃতি সিনেমার গান। সত্তর এবং আশির দশক জুড়ে অব্যাহত থাকে কিশোরের জয়যাত্রা। নতুন অল্পবয়সি নায়ক যেমন ঋষি কাপুর এবং সঞ্জয় দত্তের জন্যও তিনি সফল গান উপহার দেন। রাহুলদেব বর্মনের সুরেই যে তিনি সবথেকে বেশি হিট গান করেছেন।

রাহুল এবং কিশোর জুটির কিছু অনবদ্য সিনেমার নাম হল- শোলে, ওয়ারেন্ট, হীরা পান্না, শরীফ বদমাশ, আঁধি, রকি, দ্য বার্নিং ট্রেন, আপকি কসম, আপনা দেশ, ধরম করম, টক্কর, সীতা আউর গীতা, জোশিলা, কসমে ভাদে, রামপুর কা লক্ষ্মণ, কালিয়া, গোলমাল প্রভৃতি। নতুন সুরকার যেমন রাজেশ রোশন এবং বাপী লাহিড়ী`র সুরেও তিনি বেশ কিছু হিট গান গেয়েছেন। রাজেশ রোশনের সুরে- দো অর দো পাঁচ, দুসর আদমি, মনপসন্দ, এবং বাপ্পী লাহিড়ী`র সুরে- নমক হালাল এবং শরাবী সিনেমার গান উল্লেখযোগ্য।

হিন্দির পাশাপাশি তিনি প্রচুর জনপ্রিয় বাংলা সিনেমাসহ বাংলা আধুনিক গানও গেয়েছেন। প্লেব্যাক করা বাংলা ছবির মধ্যে রয়েছে- অমরকন্টক, আশ্রিতা, অনিন্দিতা, অমর সঙ্গী, কবিতা, গুরুদক্ষিণা, জীবন মরণ, জ্যোতি, তুমি কত সুন্দর, দোলন চম্পা, পাপ পুণ্য, বান্ধবী, মিলন তিথি, মোহনার দিকে, সঙ্কল্প, সুরের আকাশে ইত্যাদি।

কিশোর কুমার চারবার বিয়ে করেছেন। রুমা গুহ ঠাকুরতা (১৯৫০-১৯৫৮), মধুবালা (১৯৬০-১৯৬৯), যোগিতা বালী (১৯৭৫-১৯৭৮) এবং লীনা চন্দাভারকর (১৯৮০-১৯৮৭)। কিশোরের প্রথম পুত্র (রুমা গুহ ঠাকুরতার গর্ভে) অমিত কুমার একজন বিখ্যাত গায়ক। যোগিতা বালি কে পরে মিঠুন চক্রবর্তী বিবাহ করেন। কিশোরের ছোট ছেলে সুমিত কুমারও (লীনা চন্দাভারকরের গর্ভে) গায়ক।

কিশোর কুমার সর্বমোট ২,৭০৩টি গান গেয়েছেন, যার মধ্যে ১১৮৮টি হিন্দি চলচ্চিত্রে, ১৫৬টি বাংলা এবং বাকি তেলেগু ও অন্যান্য ভাষায়। ১৯৮৭ সালের ১৩ অক্টোবর ৫৮ বছর বয়সে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে এই মহান শিল্পীর মৃত্যু ঘটে।






মন্তব্য চালু নেই