মেইন ম্যেনু

আইএস জিহাদিরা ‘পালাচ্ছে’

মধ্যপ্রাচ্যে ইসলামিক স্টেট (আইএস) জঙ্গিগোষ্ঠীর ঘাঁটি লক্ষ্য করে বিমান থেকে বোমা হামলা চালাচ্ছে রাশিয়া। এই হামলার তোড়ে আইএসের যোদ্ধারা পালাচ্ছে। আর যুক্তরাজ্য থেকে এসে আইএসে যোগ দেওয়া কয়েকশ যোদ্ধা এখন দেশে ফেরার চেষ্টা করছে। যুক্তরাজ্যের সংবাদমাধ্যম ডেইলি স্টার এ তথ্য জানানো হয়েছে।

ডেইলি স্টারের প্রতিবেদনে বলা হয়, তুরস্ক হয়ে যুক্তরাজ্যে ফেরার চেষ্টা করছে এমন আইএস যোদ্ধাদের চিহ্নিত ও গ্রেপ্তার করতে দেশটির সীমান্ত বাহিনীর সদস্যদের সতর্ক করা হয়েছে। রাশিয়ার গোয়েন্দা তথ্য অনুযায়ী, আইএস যোদ্ধাদের মধ্যে ‘আতঙ্ক ও পলায়ন’ এই দুটি বিষয় দেখা গেছে।

রাশিয়ায় ক্ষমতাসীন পুতিন সরকারের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের দাবি, দেশটির বোমা হামলা থেকে বাঁচতে ৬০০-এর বেশি আইএস যোদ্ধা ইউরোপে ফেরার চেষ্টা করছে। আরেকটি সূত্রে জানিয়েছে, এখন তারা আর সাহসী নয়—নিজেদের বাঁচানো তৎপর।

ডেইলি স্টারের প্রতিবেদনে বলা হয়, রাশিয়ার বোমাবর্ষণ থেকে বাঁচতে আইএসের নেতারা মানুষকে দাসের মতো খাটিয়ে মাটির নিচে বাংকার তৈরি করেছে। তবে সর্বশেষ সুখোই এসইউ-৩৪, এসইউ-২৪এম ও এসইউ-২৫ বিমান প্রায় দুই সপ্তাহ ধরে হামলা চালিয়ে দুই কোটি ৪০ লাখ মার্কিন ডলার ক্ষতি করেছে।

যুক্তরাজ্যের ডেইলি স্টারের প্রতিবেদন অনুযায়ী, রাশিয়ার সুখোই এসইউ ৩৪-এর হামলায় সিরিয়ার আলেপ্পো শহরে অবস্থিত আইএসের প্রধান ঘাঁটি ও নিয়ন্ত্রণ কেন্দ্র ধ্বংস হয়েছে। আর সুখোই এসইউ-২৫ এম ও এসইউ ২৪-এর হামলায় সিরিয়ার হোমস শহরের কাছে থাকা আইএসের ট্যাংক ও সমরাস্ত্র ধ্বংস হয়েছে। সিরিয়ার বাহিনীর কাছ থেকে ছিনিয়ে নেওয়া আইএসের ২০টি টি-৫৫ ট্যাংকও ওই হামলায় ধ্বংস হয়। রাশিয়ার বোমা হামলায় তাদমোরের কাছে আইএসের তিনটি রকেট নিক্ষেপ ব্যবস্থা ও অস্ত্রাগার ধ্বংস হয়েছে। আর রাশিয়ার ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় আইএসের আরো দুটি অস্ত্রাগার ও বিস্ফোরক তৈরির কারখানা ধ্বংস হয়েছে। অপরদিকে দুটি সুখোই এসইউ ২৫-এর হামলায় সিরিয়ার জাবেল-বার্তায় অবস্থিত আইএসের কেন্দ্রীয় ঘাঁটি ধ্বংস হয়েছে।






মন্তব্য চালু নেই