মেইন ম্যেনু

আইএস থেকে ফিরতে চায় যুবক

এবার ইসলামিক স্টেটের (আইএস) হয়ে সিরিয়া থেকে দেশে ফিরতে চান এক ভারতের উত্তর প্রদেশের ২৮ বছর বয়সী এক যুবক। এ জন্য আজমগরের এই যুবক গেল এক সপ্তাহে অন্তত চারবার ফোন করে পরিবারের কাছে আকুতি জানিয়েছেন। আর পরিবার পক্ষ থেকেও তাকে দেশে ফিরে আনতে জোরালো চেষ্টা করা হচ্ছে। কলকাতাভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আনন্দবাজার খবরটি নিশ্চিত করেছে।

ওই যুবক ছয়মাস আগে প্রচুর অর্থ আর ‘বিলাসবহুল জীবনে’র জন্য ইসলামিক স্টেটের (আইএস) জঙ্গি হতে গিয়েছিল তুরস্কে। পরে সেখান থেকে সে চলে যায় সিরিয়ায়।

লোভের আশায় আজমগড় থেকে তুরস্কে পাড়ি দিয়েছিল ওই যুবক। দিল্লি থেকে ইস্তানবুল আর ইস্তানবুল থেকে রাক্কায় যাওয়ার বিমান-ভাড়ার টাকাটা বন্ধু-বান্ধব আর প্রতিবেশিদের কাছ থেকে ধার করে জোগাড় করেছিল সে। গিয়েছিল আইএস ‘যোদ্ধা’ হতে। ইরাক, সিরিয়া ও তুরস্কের বিভিন্ন রণাঙ্গনে যুদ্ধ করতে।

কিন্তু ছয় মাস না হতেই বাড়িতে ফেরার আকুতি তার। পরিবারকে ফোনে বলেছেন, ‘আর পারছি না! আমাকে যে ভাবেই হোক, যত তাড়াতাড়ি হোক, দেশে ফিরিয়ে নিয়ে যাও। হাঁফিয়ে উঠেছি। খুব বোমা পড়ছে। এ দিক ও দিক থেকে ছুটে আসছে ক্ষেপণাস্ত্র। আর কিছু দিন এখানে থাকলে, হয়তো মরেই যাব!’

কিন্তু, পালিয়ে আসতে পারছে না। তাকে নজরে নজরে রেখেছে আইএসের মেজর, কর্নেল, কমান্ডাররা।

তবে ছেলেকে দেশে ফি্রিয়ে আনতে এখন তার বাড়ির লোকজন পুলিশের দ্বারস্থ হয়েছেন। গোয়েন্দা এজেন্সিগুলির কাছে দৌড়চ্ছেন। সরকারি কর্তাব্যক্তিদের ধরাধরি করার চেষ্টা চালাচ্ছেন।

যেভাবে আইএস-এ যুবক

লখনউয়ের এডিজি (আইন-শৃঙ্খলা) দলজিত সিং চৌধুরী বলেছেন, ‘‘প্রাথমিক তদন্তে জানা গেছে, প্রায় বছরখানেক আগে ওই যুবককে আইএসের ওয়েবসাইট সার্ফ করতে দেখে, তার সঙ্গে ফেসবুক ও ফোনে যোগাযোগ করে আইএসের রিক্রুট ম্যানেজাররা। উত্তরপ্রদেশ থেকে ওই যুবকই আইএসের ‘প্রথম রিক্রুট’। মূলত, তার জন্যই উচ্চমাধ্যমিকের পর আর লেখাপড়া করতে না পারা ওই যুবক তুরস্কে যেতে রাজি হয়ে যায়। এর আগে তার কোনও ‘ক্রিমিনাল রেকর্ড’ ছিল না।’

সূত্র: আনন্দবাজার



(পরের সংবাদ) »



মন্তব্য চালু নেই