মেইন ম্যেনু

আইনস্টাইনের অজানা ৫ তথ্য!

বিজ্ঞানী আলবার্ট আইনস্টাইনকে কে না চেনে? কিন্তু আরো অনেক মানুষের মতন এই বিখ্যাত মানুষটির জীবনেও রয়েছে এমন অনেক ব্যাপার যেগুলো জানেনা বেশিরভাগ মানুষই। নিজের নানারকম তত্ত্ব আর আবিষ্কারের মাধ্যমে প্রতিনিয়ত চমকে দিয়েছেন আইনস্টাইন পৃথিবীর মানুষকে। কিন্তু তার জীবনের গভীরে গেলে খুঁজে পাওয়া যায় এরকম আরো চমক যেগুলো সবসময় রয়ে গিয়েছে আমাদের অচেনাই। আসুন জেনে নিই এই বিখ্যাত মানুষটির জীবনের এমনই কিছু অজানা কথা।

১. আপেক্ষিকতার তত্ত্ব চুরি!
আইনস্টাইনের নাম উচ্চারণ করলেই যে ব্যাপারটি মাথায় আসে সেটি হল আপেক্ষিকতার তত্ত্ব। কিন্তু আপনি কি জানেন এ তত্ত্বের মালিকানা নিয়ে বেশ কাদা ছোড়াছুড়ি হয়েছিল আইনস্টাইন আর ডেভিড হিলবার্টের ভেতরে? সত্যি বলতে গেলে ডেভিড হিলবার্ট আইনস্টাইনের পাঁচদিন আগে এই তত্ত্বটি জমা দেন। কিন্তু সেখানে কিছু ত্রুটি থাকায় সেটা ঠিকঠাক করতে করতে সময় লেগে যায় তার আর কৃতিত্ব চলে যায় আইনস্টাইনের কাছে। যদিও অনেকে মনে করেন দুই বিজ্ঞানীই নিজেদের মতন করে একই সময়ে কাজ শুরু করেছিলেন তত্ত্বটি নিয়ে। চুরি করেননি কেউই।

২. ফেল করেননি আইনস্টাইন!
পরীক্ষায় ভালো না করলে যে কয়েকজন মানুষের নাম আমরা সামনে নিয়ে আসি তাদের ভেতরে অন্যতম হচ্ছেন আইনস্টাইন। কিন্তু বাস্তবে কিন্তু কখনোই স্কুলে ফেল করেননি এই বিজ্ঞানী। বলতে গেলে অত্যন্ত ভালো ছাত্র ছিলেন তিনি স্কুলে। আইনস্টাইনের জীবনে এই ফেল করবার গল্পটি মূলত চালু হয় সুইস আর জার্মান বিদ্যালয়ের ভেতরকার নম্বরের পার্থক্যের জন্যে। ১-৬ মার্কসের ভেতরে ১ কে জার্মান স্কুলে সর্বোচ্চ নম্বর ধরা হত। কিন্তু সুইস বিদ্যালয়ে সেটা হয়ে দাড়ায় ৬। আর ১ কে ধরা হয় সর্বনিন্ম নাম্বার।

৩. রাশিয়ার গুপ্তচর!
শুনলে অবাক হবেন যে আইনস্টাইনকে এফবিআই রাশিয়ার গুপ্তচর বলে মনে করত। ১৯৩৩ সালে আমেরিকায় ঢোকার পর মৃত্যুর আগ অব্দি এফবিআইএর নজরে ছিলেন আইনস্টাইন। তার যাতায়াত, কথা-বার্তা- সবকিছুই লক্ষ্য করা হত কড়াভাবে। প্রায়ই ফোন ঘাঁটা হত এই বিজ্ঞানীর। প্রবেশের পর থেকে এমনটা ব্যবহার পেয়ে একটা সময় রেগে যান আইনস্টাইন আর জানিয়ে দেন যে এমনটা তিনি মোটেই সহ্য করবেননা। এরপর তিনি আমেরিকার নাগরিকত্বও পান। তবে এরপর সামনা সামনি কিছু না হলেও জানতেন আইনস্টাইন তার ওপর এফবিআইএর কড়া নজরের কথা।

৪. নারী ও সিগারেট আসক্তি!
নারী এবং সিগারেট- এ দুটির প্রতিই যথেষ্টরকম টান ছিল আইনস্টাইনের। গভীরভাবে ভাবার ও নিরপেক্ষ থাকার জন্যে সিগারেট দরকার বলে মনে করতেন এই বিজ্ঞানী। একবার তাকে সিগারেট ছাড়তে বললে তিনি সিগারেটের পাইপ মুখে নিয়ে চিবোতে শুরু করে দেন। এছাড়াও বহু নারীসঙ্গে অভ্যস্ত ছিলেন এই বিজ্ঞানী। স্ত্রী থাকাবস্থাতেই মোট ছয়টি বান্ধবী ছিল তার।

৫. আইনস্টাইনের মস্তিষ্ক!
আইনস্টাইন মারা যাওয়ার পর প্রিন্সটন হাসপাতালের প্যাথলজিস্ট থমাস হার্ভে তার মস্তিষ্ক বের করে নেন আর নিজের কাছেই রেখে দেন। তাকে এই কাজের জন্যে হাসপাতাল থেকে বের করে দেওয়া হলেও তিনি মস্তিষ্ক হাতছাড়া করেননি এবং সেটিকে নিয়েই তিনি দেশের নানা জায়গায় ঘুরে বেড়ান। প্রায় ২০০ টি খন্ড করেছিলেন তিনি আইনস্টাইনের মস্তিষ্কের। যার এক টুকরো দান করেছিলেন। অন্যগুলো পরে ফেরত দিয়ে দিয়েছিলেন প্রিন্সটন হাসপাতালে।

তথ্যসূত্র-10 Things You Probably Didn’t Know About Albert Einstein, listverse.com
10 Things You Don’t Know About Albert Einstein, history1900s.about.com
10 strange facts about einstein, neat






মন্তব্য চালু নেই