মেইন ম্যেনু

আইভীকে উপমন্ত্রী করে অপমান করবেন না, প্রিয় প্রধানমন্ত্রী

ফজলুল বারী : ঢাকার দুই মেয়র আনিসুল হক, সাঈদ খোকনকে মন্ত্রীর, বাংলাদেশের ইতিহাসের প্রথম নির্বাচিত নারী সিটি মেয়র নারায়ণগঞ্জের মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভিকে উপমন্ত্রী করা হয়েছে। এটি কী দাঁড়ালো? এটিই কী নারীর ক্ষমতায়ন নিয়ে বাংলাদেশ রাষ্ট্রের প্রকৃত দৃষ্টিভঙ্গির প্রমান! আমরা তা বিশ্বাস করতে চাইনা। কিন্তু এটি বিশ্বাস করাতে চাইছে কারা?

কিছুদিন আগে ইতালির রোম নগরীতে প্রথম একজন নারী সিটি মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন। সে খবর পড়তে পড়তে ভাবছিলাম এদিক থেকেও বাংলাদেশ অনেক এগিয়ে আছে। কারণ বাংলাদেশের সেলিনা হায়াৎ আইভী অনেক আগে থেকেই নির্বাচিত মেয়র। এবং তার নির্বাচিত হওয়াটিও ছিল বেশ কঠিন। কারণ আইভী বাংলাদেশের শাসকদলের গুরুত্বপূর্ণ এক পরিবারের সদস্যা, আগে থেকে নারায়ণগঞ্জ পৌরসভার নির্বাচিত চেয়ারম্যান হওয়া স্বত্তেও শাসকদল তাকে মনোনয়ন দেয়নি! মনোনয়ন দেয় শামীম ওসমান নামের একজন বিতর্কিত বিশেষ চিহ্নিত ব্যক্তিকে!

খুব স্বাভাবিক এ নিয়ে নারায়ণগঞ্জের গণমানসে বিদ্রোহের সৃষ্টি হয়। কমনওয়েলথ সম্মেলন উপলক্ষে ওই সময়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অস্ট্রেলিয়া সফরে আসেন। পার্থের নারী মেয়র তার সঙ্গে দেখা করতে গিয়েছিলেন। ওই নারী মেয়রকে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরাও প্রথমবারের মতো একজন নির্বাচিত নারী মেয়র পেতে চলেছি। অথচ প্রধানমন্ত্রী তাকে মনোনয়ন দেননি! কিন্তু তার স্নেহধন্য শামীম ওসমান যাতে নির্বাচনে কোন গোলমাল করতে না পারে, সে ব্যবস্থা করেছিলেন!

ভোটের দিন RAB সদস্যরা শামীম ওসমানকে ধরে বাসায় ঢুকিয়ে দিয়ে আসে! নারায়ণগঞ্জের ভোট গণবিদ্রোহ বিপ্লবে নির্বাচিত দেশের প্রথম নারী মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভীকে পরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবনে দাওয়াত করে নিয়ে মিষ্টি খাইয়েছিলেন। কিন্তু দেশের এই প্রথম নারী সিটি মেয়রের একটা দিনও শান্তিতে কাটেনি! কাটছে না!

তাকে প্রতিটি দিনরাত্রি প্রধানমন্ত্রীর স্নেহধন্য শামীম ওসমানগং এর শয়তানি সামাল দিয়ে চলতে হয়েছে এবং হচ্ছে! দেশের এই প্রথম নির্বাচিত নারী মেয়র আইভীকে উপ-মন্ত্রী করাটা তাকে এবং দেশের নারী সমাজকে যেন আরেকটি অপমানের সামিল! কারণ বাংলাদেশে ‘উপ’ শব্দটাই আপত্তিকর! অনেকটা গালি হিসাবে ব্যবহৃত হয়! যেমন ‘উপ-পত্নী’, ‘উপজাতি’! সে জন্য উপজাতি শব্দটি কখনো লিখিনা। কাউকে লিখতে দেখলে আপত্তি করি। আদিবাসী লিখি।

ঢাকার দুই সিটি মেয়রের নির্বাচন নিয়ে প্রশ্ন আছে। নারায়ণগঞ্জের সিটি নির্বাচন নিয়ে কোন প্রশ্ন নেই। যাদের নির্বাচন প্রশ্নবিদ্ধ তারা মন্ত্রী, যার নির্বাচন নিয়ে কোন প্রশ্ন নেই, তিনি উপমন্ত্রী এটা কেমন কথা?

এ ব্যাপারে আমি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হস্তক্ষপ চাইছি। দেশের ইতিহাসের প্রথম নির্বাচিত সিটি মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভীকে মন্ত্রী না করুন অন্তত প্রতিমন্ত্রী করুন। মর্যাদা দিতে চাইলে মন থেকে দিন। উপমন্ত্রী করে অপমান করবেন না প্লিজ ।

প্রিয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, শুনছেন ?


(এ বিভাগে প্রকাশিত মতামত লেখকের একান্ত নিজস্ব। আওয়ার নিউজ বিডি’র সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে প্রকাশিত মতামত সামঞ্জস্যপূর্ণ নাও হতে পারে। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে আওয়ার নিউজ বিডি আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় গ্রহণ করে না)



« (পূর্বের সংবাদ)



মন্তব্য চালু নেই