মেইন ম্যেনু

আই ড্রপ ব্যবহারের ক্ষেত্রে যা করা উচিৎ ও উচিৎ নয়

চোখের বিভিন্ন রকমের সমস্যা যেমন- শুষ্কতা, অ্যালার্জি, ইনফেকশন ইত্যাদির সমাধানে আই ড্রপ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। চোখের ড্রপ ব্যবহারের ক্ষেত্রে অনেকেই ভুল করে থাকেন। চোখের স্বাস্থ্য ঠিক রাখার জন্য এবং রোগ নিরাময়ের জন্য আই ড্রপ ব্যবহারের সঠিক পদ্ধতি জানা উচিৎ। আই ড্রপ ব্যবহারের ক্ষেত্রে যা করা উচিৎ ও যা করা উচিৎ নয় সে সম্পর্কে জেনে নিই চলুন।

১। সময় নিন

আমেরিকান একাডেমী অফ অপথ্যালমোলজি এর ক্লিনিক্যাল মুখপাত্র ও এমডি স্টেফানি ম্যারিওনিয়াক্স এর মতে, চোখের ড্রপ ব্যবহারের ক্ষেত্রে মানুষ যে সাধারণ ভুলটি করে থাকে তা হল তাড়াহুড়ো করা। তিনি বলেন, “চোখের শুধুমাত্র একটি ড্রপ নেয়ার ধারণক্ষমতা আছে, এর চেয়ে বেশি দিলে সেটা চোখ থেকে বের হয়ে মুখ বেয়ে গড়িয়ে পড়ে, তাই একবারে কয়েক ফোটা দেয়ার অর্থ আপনি অপচয় করছেন”। যেমন ধরুন আপনার ডাক্তার যদি আপনাকে ৬ ঘন্টা পর পর ৪ ফোটা করে ড্রপ দিতে বলেন তার অর্থ এই নয় যে আপনি একবারেই ৪ ফোটা ব্যবহার করবেন। তাই আই ড্রপ একেক চোখে কয়েক ফোটা দেয়ার নির্দেশনা থাকলে সময় নিয়ে আস্তে আস্তে দিন।

২। কয়েক ধরণেরড্রপ ব্যবহারেরক্ষেত্রে সতর্ক হোন

আপনাকে যদি পর্যায়ক্রমে ভিন্ন ভিন্ন আই ড্রপ ব্যবহার করতে হয় তাহলে এদের প্রতিটা ব্যবহারের পর বিরতি দিন। একটা আই ড্রপ ব্যবহার করার পর অন্তত ৩০ মিনিট বিরতি দিয়ে অন্য ড্রপটি ব্যবহার করুন। দুটি ভিন্ন ধরণের ড্রপ কাছাকাছি সময়ে ব্যবহার করলে এদের পারস্পরিক ক্রিয়ায় চোখে জ্বালাপোড়া হতে পারে ও চোখ দিয়ে পানি পড়া শুরু হতে পারে। এর ফলে ঔষধের কার্যকারিতাও কমে যায়। সবচেয়ে ভালো উপায় হচ্ছে ডাক্তারের পরামর্শ নিয়ে নিন কয়েক ধরণের ড্রপ ব্যবহারের ক্ষেত্রে।

৩। ড্রপের মাত্রা ঠিক রাখুন

অন্যান্য ঔষধের মত আই ড্রপ ও ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী নির্দিষ্ট মাত্রায় ব্যবহার করতে হয়। কোন কারণে আই ড্রপ দেয়ার কথা মনে না থাকলে বা বেশি ব্যবহার করলে তা চিকিৎসায় প্রভাব ফেলে। আপানার মোবাইলে অ্যালার্ম দিয়ে রাখুন যেনো ড্রপ দেয়ার কথা ভুলে না যান।

৪। নিজে নিজে ড্রপ দেয়া বন্ধ করে দেবেন না

আপনার চোখের ডাক্তারের সাথে সাক্ষাতের সময় হয়েছে বলেই চোখের ড্রপ ব্যবহার করা বন্ধ করে দেবেন না। ডাক্তারের পরামর্শ নিয়ে তার পরেই বন্ধ করতে পারেন এর আগে নয়।

৫। মেয়াদ শেষের তারিখ জেনে নিন

আপনার আই ড্রপের মেয়াদ শেষের তারিখ দেখে নিন। ডাক্তার কতদিন ব্যবহার করতে বলেছেন তা প্রেসক্রিপশন দেখে জেনে নিন। ডাক্তারের নির্দেশিত তারিখের পরেও যদি আই ড্রপ বেঁচে যায় তাহলে তা ব্যবহার না করে রেখে দিন। যদি আপনার চোখে সমস্যা থেকেও যায় তাও ডাক্তারের নির্দেশনা ছাড়া পুনরায় ব্যবহার শুরু করবেন না।

এছাড়াও চোখের ড্রপ ব্যবহারের ক্ষেত্রে আরো যে সতর্কতা অবলম্বন করা প্রয়োজন তা হচ্ছে :

– চোখে ড্রপ ব্যবহারের পূর্বে হাত ভালো করে ধুয়ে নিন।

– আই ড্রপের বোতলে এর ব্যবহার শুরুর তারিখটি লিখে রাখুন। কারণ আই ড্রপের বোতলের মুখ খোলার পর এক মাসের বেশি আই ড্রপ ব্যবহার করা উচিৎ নয়।

– যদি ড্রপটি সাসপেনশনের মত হয় তাহলে ব্যবহারের পূর্বে ঝাঁকিয়ে নিন।

– মাথা পেছনের দিকে নিয়ে চোখের উপরের পাতা হালকা করে টেনে ধরে চোখের কোণায় ড্রপ দিন।

– ড্রপ দেয়ার পড়ে চোখের কোনার নাকের পাশটা চেপে ধরুন যাতে গলায় ড্রপ না চলে যায়।

– ড্রপ ব্যবহারের পর ১০ সেকেন্ড চোখ বন্ধ রাখুন। তারপর কিছুক্ষণ চোখ মিটমিট করুন। কিছুক্ষণ পড়ে স্বাভাবিক কাজে ফিরে যান।

– যদি আপনার আই ড্রপ ও আই অয়েন্টমেন্ট উভয়টিই ব্যবহার করতে হয়। সেক্ষেত্রে আগে আই ড্রপ ব্যবহার করুন এবং তারপর আই অয়েন্টমেন্ট ব্যবহার করুন। অয়েন্টমেন্ট ব্যবহারের পড়ে অন্তত ২ ঘন্টা গ্যাপ দিয়ে অন্য ড্রপ ব্যবহার করবেন যদি প্রয়োজন হয়। তবে চিকিৎসকের পরামর্শ জেনে নেয়াটা সবচেয়ে নিরাপদ।

আই ড্রপ ব্যবহারের ক্ষেত্রে এড়িয়ে চলুন :

– চোখ লাল হলে নিজে নিজে আই ড্রপ ব্যবহার করবেন না।

– আই ড্রপের বোতলটি যেন চোখে লেগে না যায় সেদিকে খেয়াল রাখুন।

– কখনোই চোখের কালো অংশে অর্থাৎ কর্নিয়ায় সরাসরি ড্রপ ফেলবেন না।

– কন্টাক্ট লেন্স পড়া অবস্থায় আই ড্রপ ব্যবহার করবেন না।






মন্তব্য চালু নেই