মেইন ম্যেনু

আওয়ামী লীগে উদ্বৃত্ত ঘাটতিতে বিএনপি

ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের আয়ের চেয়ে ব্যয় কম। তবে ঘটতি কাটেনি অন্যতম দল বিএনপির। মঙ্গলবার দুপুরে নির্বাচন কমিশনে (ইসি) জমা দেয়া ২০১৫ সালের পঞ্জিকা বছরের আয়-ব্যয়ের হিসাব থেকে এ তথ্য জানা গেছে।

ইসিতে দেয়া হিসাব অনুযায়ী আওয়ামী লীগের তহবিলে উদ্বৃত্ত আছে ৩ কোটি ৩৮ লাখ টাকা। তবে বিএনপির তহবিলে ঘাটতি ১৪ লাখ টাকা।

আওয়ামী লীগের দেওয়া হিসাব পর্যালোচনা করে দেখা গেছে, ২০১৫ সালে ক্ষমতাসীন দলটি আয় করেছে ৭ কোটি ১১ লাখ ৬১ হাজার ৩৭৫ টাকা। এ সময় ব্যয় হয়েছে ৩ কোটি ৭২ লাখ ৮১ হাজার ৪৬৯ টাকা। অর্থাৎ ব্যয়ের পর তহবিলে উদ্বৃত্ত রয়েছে প্রায় ৩ কোটি ৩৮ লাখ টাকা।

নির্বাচন কমিশন সচিব মো. সিরাজুল ইসলামের কাছে দলের কোষাধ্যক্ষ এইচ এন আশিকুর রহমান ও দফতর সম্পাদক আবদুস সোবহান গোলাপ এ হিসাব জমা দেন।

পরে দফতর সম্পাদক আবদুস সোবহান সাংবাদিকদের বলেন, এবার আয়ের চেয়ে ব্যয় কম হয়েছে। দলের সদস্য সংগ্রহ, মাসিক চাঁদা, উপনির্বাচন, অনুদান, মনোনয়নপত্র বিক্রি, প্রকাশনা খাতে আয় হয়েছে। কর্মচারীর বেতন, অনুষ্ঠান, সভা, প্রকাশনা, ত্রাণসহ নানা খাতে ব্যয় হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, বছরের শুরুতে তহবিলে ছিল ২০ কোটি ৩৯ লাখ ৩৯ হাজার ১১৭ টাকা। বছর শেষে তা ২৩ কোটি ৮৭ লাখ ১৯ হাজার ২৩ টাকায় দাঁড়িয়েছে।

গোলাপ বলেন, দলের এ আয়-ব্যয়ের হিসাব অনলাইনে প্রকাশ করা হবে।

অপরদিকে বিএনপির প্রতিবেদন জমা দেন দলের চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা এ কে এম আমিনুল হক ও যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল।

আমিনুল হক সাংবাদিকদের বলেন, ২০১৫ সালে বিএনপির ১ কোটি ৭৩ লাখ ৩ হাজার ৩৬৫ টাকা আয়ের বিপরীতে ব্যয় হয়েছে ১ কোটি ৮৭ লাখ ২৯ হাজার ৬৪৯ টাকা।

বছরের শুরুতে ফান্ড ছিল ২ কোটি ৮৪ লাখ ৮৮ হাজার ৭৪৫ টাকা। সমাপনী ব্যালেন্স ছিল ২ কোটি ৭০ লাখ ৬২ হাজার ৪৬১ টাকা।

২০১৪ সালে বিএনপি দুই কোটি ৮৭ লাখ ৪৮ হাজার ৫৭৪ টাকা আয়ের বিপরীতে ৩ কোটি ৫৩ লাখ ৩ হাজার ৫৯০ টাকা ব্যয় দেখিয়েছিল। তার আগের দুই বছরও বিএনপি তাদের আর্থিক হিসাবে ঘাটতি দেখিয়েছিল।

এবারের ১৪ লাখ ২৬ হাজার ২৮৪ টাকার ঘাটতি আগের হিসাবের সঙ্গে সামঞ্জস্য করে নেওয়া হবে বলে জানান তিনি।

উল্লেখ্য, নির্বাচনী আইন অনুযায়ী প্রত্যেক রাজনৈতিক দলের হিসাব দেয়ার বিধান রয়েছে।






মন্তব্য চালু নেই