মেইন ম্যেনু

আগস্টে ঢাকা আসছেন রুশ প্রধানমন্ত্রী

বাংলাদেশের পুরানো বন্ধু রাশিয়া। মাঝে কিছুদিন সম্পর্কে একটু ধুলো জমলেও বর্তমান সরকারের প্রচেষ্টায় পুরানো বন্ধুত্ব আবার জমে উঠছে। সেই ধারাবাহিকতায় এ বছর আগস্টের মাঝামাঝি ঢাকা সফরে আসছেন রাশিয়ার প্রধানমন্ত্রী দিমিত্রি মেদভেদেভ।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নিমন্ত্রণে সাড়া দিয়ে এ বছর বাংলাদেশ-রাশিয়ার কূটনৈতিক সম্পর্কের ৪৫ বছর পূর্তি উপলক্ষে ঢাকা সফর করবেন রুশ প্রধানমন্ত্রী। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

মেদভেদেভকে লেখা চিঠিতে শেখ হাসিনা উল্লেখ করেন, বাংলাদেশ ও রাশিয়ার কূটনৈতিক সম্পর্কের ৪৫তম বার্ষিকীতে আপনার সফর আমাদের মধ্যকার সম্পর্ক আরও ত্বরান্বিত করবে এবং পরবর্তী স্তরে নিয়ে যাবে।

রুশ প্রধানমন্ত্রীর সফরের বিষয়টি নিশ্চিত করে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একজন দায়িত্বশীল কর্মকর্তা বলেন, রুশ প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর আমন্ত্রণ গ্রহণ করেছেন। আগস্টের মাঝামাঝি সময়ে তিনি ঢাকা আসতে পারেন। তবে বিষয়টি এখনও প্রাথমিক পর্যায়ে রয়েছে। দু’দেশ এখন সফরের তারিখ নির্ধারণে কাজ করছে।

তিনি আরও জানান, রাশিয়ার সঙ্গে বাংলাদেশের সহযোগিতার সম্পর্ক বাড়ছে। চলতি বছর মোট ১৮টি চুক্তি ও সমঝোতা স্মারক নিয়ে কাজ চলছে। তবে রুশ প্রধানমন্ত্রীর সফরে তা আরও বাড়তে পারে।

সূত্র জানায়, সরকারের প্রতিটি মন্ত্রণালয়ের কাছে চিঠি মারফত দু’দেশের সম্পর্ক বাড়ানোর ক্ষেত্র খতিয়ে দেখতে অনুরোধ জানাবে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। রুশ প্রধানমন্ত্রীর সফর নিয়ে একাধিক আন্তঃমন্ত্রণালয় বৈঠকও অনুষ্ঠিত হবে।

গত ১২-১৩ এপ্রিল দু’দিনের রাশিয়া সফর করেন বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী। তিনি দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই লাভরভের সঙ্গে দ্বি-পাক্ষিক বৈঠক করেন। এ সময় তিনি রাশিয়ার প্রধানমন্ত্রীকে দেয়া প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আমন্ত্রণপত্র পৌঁছে দেন।

বৈঠকে দু’দেশের সম্পর্ক আরও সুদৃঢ় করার বিষয়ে ঐকমত্য হন দুই পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

গত ৪৫ বছরে বাংলাদেশের কোনো পররাষ্ট্রমন্ত্রীর এটাই প্রথম রাশিয়া সফর। এদিকে, মাহমুদ আলীর নিমন্ত্রণে শিগগিরই ঢাকা সফরে আসার আগ্রহ দেখিয়েছেন রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই লাভরভ।

পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সফরে বাংলাদেশ-রাশিয়ার মধ্যে টেলিকম ও গণমাধ্যমখাতে সহযোগিতা নিয়ে দুটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর হয়। তথ্য মন্ত্রণালয় ও রাশিয়ার মিনিস্ট্রি অব টেলিকম অ্যান্ড মাস কমিউনিকেশনের মধ্যে সহযোগিতামূলক সমঝোতা এবং বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থা ও রাশিয়ার আইটিএআর টিএএসএস নিউজ এজেন্সির মধ্যে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর হয়।

দ্বি-পাক্ষিক বৈঠকের পর দুই পররাষ্ট্রমন্ত্রী যৌথ সংবাদ সম্মেলন করেন। দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটে ওই ব্রিফিংয়ের বিস্তারিত তুলে ধরা হয়েছে। সেখানে দুই মন্ত্রীর যৌথ সংবাদ সম্মেলনের ছবিও প্রকাশ করা হয়েছে।

দ্বি-পক্ষীয় বৈঠকের বিষয়ে মন্ত্রী সের্গেই লাভরব বলেন, বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রাম থেকে আমাদের দুই দেশের বন্ধুত্ব। আন্তর্জাতিক, স্থানীয় ও দ্বি-পক্ষীয় বিভিন্ন ইস্যুতে বিশেষত উন্নয়নের প্রশ্নে আমাদের সম্পর্ক অনেক সুদৃঢ়। এ সময় রূপপুর পাওয়ার প্লান্ট, রাজনৈতিক সংলাপ, বাণিজ্যিক ও অর্থনৈতিক সহযোগিতার মতো বিষয়গুলোর উল্লেখ করেন তিনি।

দুই দেশের মধ্যে বিদ্যমান সম্পর্ক আইনি কাঠামোর মধ্যে আনতে বিভিন্নখাতে অন্তত ১৫টি চুক্তি (এগ্রিমেন্ট) সইয়ের কাজ চলছে বলেও ওই সময় জানান রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী।






মন্তব্য চালু নেই