মেইন ম্যেনু

আজ আশরাফের সঙ্গে দেখা করবেন খন্দকার মোশাররফ

স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের (এলজিআরডি) দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেন আজ রবিবার এই মন্ত্রণালয়ের আগের মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের সঙ্গে সাক্ষাৎ করে আনুষ্ঠানিকভাবে দায়িত্ব বুঝে নেবেন। বেলা ১১টার সময় সৈয়দ আশরাফের সঙ্গে নতুন দায়িত্ব পাওয়া এই মন্ত্রীর সাক্ষাতের কথা রয়েছে।

মন্ত্রীর ঘনিষ্ঠ এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

গত বৃহস্পতিবার এক প্রজ্ঞাপনে এলজিআরডি মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব থেকে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলামকে অব্যাহতি দিয়ে এই মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব দেওয়া হয় খন্দকার মোশাররফ হোসেনকে। পাশাপাশি তিনি অতিরিক্ত হিসেবে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বও পালন করবেন।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ মোশাররফ হোসাইন ভূইঞা স্বাক্ষরিত প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, ‘গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী রুলস অব বিজনেস, ১৯৯৬ এর রুল ৩(৪) এ প্রদত্ত ক্ষমতা বলে মন্ত্রীগণের মধ্যে মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পুনর্বণ্টন করেছেন।’

কর্মক্ষেত্রের সব জায়গাতেই অসামান্য কাজের দৃষ্টান্ত রেখেছেন ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেন। স্থানীয় সরকার ও প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি) প্রতিষ্ঠায় তাঁর অবদান সর্বজন স্বীকৃত। জাতিসংঘের আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা্র (আইএলও) চিফ টেকনিক্যাল কলসালট্যান্ট পদে চাকরি নিয়ে তিনি ১৯৮০ সালে সিয়েরা লিওনে যান। সেখানে কাজের মাধ্যমে এতটাই স্থানীয়দের মন জয় করেন যে, এতে দেশটির সরকার খুশি হয়ে তাঁকে সম্মানজনক নাগরিকত্ব দেয়। পরে উগান্ডাতেও সাফল্যের সঙ্গে একই দায়িত্ব পালন করেন খন্দকার মোশাররফ হোসেন।

প্রকৌশলী হিসেবে শতভাগ সাফল্য পাওয়ার আচমকাই প্রকাশ্য রাজনীতিতে আসেন তিনি। ছাত্রজীবনে ছাত্রলীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িয়ে থাকা, বঙ্গবন্ধুর আদর্শের প্রতি সব সময় নিষ্ঠাবান থাকলেও সরকারি চাকরির কারণে তখন প্রত্যক্ষ রাজনীতি করা সম্ভব ছিল না। ২০০৮ সালে ফরিদপুর-৩ (সদর) আসন থেকে বিপুল ভোটে সাংসদ নির্বাচিত হওয়ার পর প্রবাসীকল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান এবং শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রীর দায়িত্ব পান। এই মন্ত্রণালয়ে কৃতিত্বের সাক্ষর রাখায় তাঁকে এলজিআরডি মন্ত্রণালয়ের মতো গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ইতোমধ্যে তিনি দায়িত্ব দেওয়ার জন্য প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন এবং এই মন্ত্রণালয়কেও প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের মতো গতিশীল করার অঙ্গীকার করেছেন।



« (পূর্বের সংবাদ)



মন্তব্য চালু নেই