মেইন ম্যেনু

“আজ থেকে পুলিশ ওদের কাছে কোন আতংকের নাম নয়”

আজ থেকে পুলিশ ওদের কাছে কোন আতংকের বা ভয়ের নাম নয়। চেষ্টা করেছি মামলা তদন্তের ফাকে ফাকে যতটুকু সম্ভব আন্তরিকতা দিয়ে ওদের সাথে কথা বলার জন্য।

প্রথমে দুরে দুরে থাকলেও শেষ পর্যন্ত একেবারে কাছাকাছি চলে এসেছে। আর আমিও মনে মনে এটাই চাচ্ছিলাম।

কারণ শিশুদের সাথে সময় কাটাতে যে আমার সবচেয়ে ভালো লাগে। আর ওদের কাছে প্রিয় হতে গেলে যে ওদের সাথে অবশ্যই শিশুসুলভ আচরণ করতে হবে, যেটা ওরা পছন্দ করে !

মামলা তদন্তে গেলে দায়িত্ব বোধের কারণে সেটা পুরোপুরি সম্ভব না হলেও যতটুকু পারা যায় ততটুকুই ওদের সাথে মেশার চেষ্টা করি। ওদের কাছাকাছি যাওয়ার চেষ্টা করি!

চেষ্টা করি একটু সুন্দর করে কথা বলে ওদের মনে জায়গা করে নিতে। পুলিশ সম্পর্কে সাধারণ মানুষের মধ্যে যে ভুল ধারণা আছে তা দুর করতে।

আমি মনে করি এই দায়িত্ব বাংলাদেশ পুলিশের প্রত্যেকটি সদস্যের্।

সবচেয়ে ইন্টারেস্টিং ব্যাপার হচ্ছে , যে শিশুদের নিয়ে আমি ছবি তুলেছি এদের মধ্যেই দুই শিশুর বড়ই খাওয়া নিয়ে দুই পরিবারের মধ্যে মারামারি নিয়ে মাথা ফাটাফাটি পর্যন্ত হয়ে গেছে।

শিশুরা কিন্তুু ঠিকই সব কিছু ভুলে একসাথে মিশে গেছে। কিন্তুু ওদের পিতামাতা কিন্তুু ভুলতে পারেনি। সামান্য একটা বিষয়কে কেন্দ্র করে কত বড় ঘটনা ঘটিয়ে ফেলেছে দুইটি পরিবার্।

জানিনা এই প্রতিহিংসার রেশ আগামী কত বছর দুইটা পরিবারকে যন্ত্রণা দেয়।

সকলের প্রতি অনুরোধ আমরা একটু মাথা ঠান্ডা রেখে কাজ করলে অনেক অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা থেকেই কিন্তুু মুক্তি পেতে পারি। আর হুটহাট করে মেয়েদের বা নারীদের কথায় কান দিয়ে উত্তেজিত হওয়ার আগে মাথা ঠান্ডা রেখে বিষয়টি কমপক্ষে ১০ বার ভেবে তারপর সিদ্ধান্ত নিন।

গ্রাম গঞ্জে এমন কিছু অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা আছে যা অনেক ক্ষেত্রে নারীদের কানপড়ার কারণে ঘটে থাকে। কথাটি সকল নারীদের উদ্দ্যেশ্যে নয়।

-সালেহ ইমরান
এসআই
পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) , রংপুর






মন্তব্য চালু নেই