মেইন ম্যেনু

আট নয়, ছয় দিন ছুটি পাচ্ছেন সরকারি কর্মীরা

ঈদুল ফিতরের আগে নির্বাহী আদেশে এক কর্মদিবসে ছুটি ঘোষণার কারণে তিন দিনের সরকারি ছুটির আগে এবং পরে সাপ্তাহিক ছুটি মিলিয়ে টানা নয় দিন ছুটি পেয়েছিল সরকারি কর্মীরা। দুই মাস পর ঈদুল আযহাতেও একই সুবিধা পেতে যাচ্ছেন তারা। শুক্র ও শনিবার সাপ্তাহিক ছুটির পর ঈদের ছুটির আগের একদিন কর্মদিবসে অফিস করতে হবে না তাদেরকে। ফলে টানা ছয় দিন ছুটি পাচ্ছেন সরকারি চাকুরেরা।

এর আগে ঈদের ছুটির আগে ও পরে একটি কর্মদিবসে ছুটি ঘোষণা করতে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় প্রস্তাব পাঠিয়েছিল। সকালে মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মকর্তা জানিয়েছিলেন, প্রধানমন্ত্রী সে প্রস্তাব অনুমোদন করেছেন। তবে পরে আনুষ্ঠানিকভাবে জানানো হয়, প্রধানমন্ত্রী কেবল ১১ সেপ্টেম্বর বরিবারের ছুটি অনুমোদন করেছেন। আর এর বদলে ২৪ সেপ্টেম্বর শনিবার অফিস খোলা থাকবে। ফলে ৯ সেপ্টেম্বর থেকে ১৪ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত টানা ছয়দিন ছুটি পাচ্ছেন সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীরা।

ঈদুল আযহার সরকারি ছুটি নির্ধারিত ছুটি ১২ সেপ্টেম্বর সোমবার থেকে ১৪ সেপ্টেম্বর বুধবার পর্যন্ত। এরপর বৃহস্পতিবার একটি কর্মদিবস শেষে শুক্র ও শনিবারের সাপ্তাহিক ছুটি। আবার ঈদের ছুটির আগেও কেবল একদিন কর্মদিবস আছে। এই ১১ সেপ্টেম্বর রবিবার ও ১৫ সেপ্টেম্বর বৃহস্পতিবার অফিস করতে না হলে ৯ সেপ্টেম্বর থেকে ১৭ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত টানা নয়দিন ছুটি ভোগ করা যেতো।এই অবস্থায় ১১ ও ১৫ সেপ্টেম্বর ছুটি ঘোষণা করার প্রস্তাব দিয়ে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় থেকে প্রধানমন্ত্রীর কাছে ফাইল যায়। এই দুই কর্মদিবসে ছুটির বদলে ২৩, ২৪ ও ৩০ সেপ্টেম্বর সাপ্তাহিক ছুটির দিন অফিস খোলা রাখার প্রস্তাব করা হয়েছিল।

বছরের শুরুতেই সরকারি ছুটির দিন নির্দিষ্ট করে প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়। তবে প্রধানমন্ত্রী তার নির্বাহী ক্ষমতাবলে অন্য যে কোনো দিনকেও ছুটি ঘোষণা করতে পারেন। ঈদুল ফিতরের আগে ৪ জুলাই কর্মদিবসে ছুটি ঘোষণা করেন তিনি। ফলে ১ ও ২ জুলাই সাপ্তাহিক ছুটির সঙ্গে ঈদের ছুটি আর শেষে ৮ ও ৯ জুলাই আবার সাপ্তাহিক ছুটি মিলিয়ে টানা নয়দিন ছুটি পায় সরকারি কর্মীরা। ওই ৪ জুলাইয়ের বদলে পরে ১৬ জুলাই শনিবার সরকারি ছুটির দিন অফিস খোলা রাখা হয়।

জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের একজন অতিরিক্ত সচিব বলেন, ১২ সেপ্টম্বর ঈদ ধরে আগামী ১১ ১২ ও ১৩ সেপ্টেম্বর এই ঈদের ছুটি নির্ধারিত ছিল। এর আগে সাপ্তাহিক ছুটির দুই দিন ছুটি থাকায় সরকারি কর্মীরা টানা পাঁচ দিন ছুটি পেতে পারতেন। কিন্তু ঈদ ১৩ সেপ্টেম্বর চলে যাওয়ায় দুই দিকে সাপ্তাহিক ছুটির আগে পরে এক দিন করে কর্মদিবস পড়ে যাওয়ায় বেকায়দায় আছেন তারা। এই দিকটি মাথায় রেখে এবারও দুই কর্মদিবসে ছুটি ঘোষণা করে সাপ্তাহিক ছুটির দিন কাজ করার প্রস্তাব পাঠানো হয়।ঈদে বাড়ি যাওয়া বা ফেরার পথে প্রতি বছর ব্যাপক ভোগান্তি হয়। কিন্তু ছুটি দীর্ঘ হলে এই ভোগান্তি কম থাকে। ঈদুল ফিতরের আগে টানা নয়দিন ছুটি থাকার সুফল পেয়েছে যাত্রীরা। যাওয়া বা আসার পথে ভোগান্তি হয়নি তেমন।






মন্তব্য চালু নেই