মেইন ম্যেনু

আত্মহত্যা ঠেকাতে কফিন চিকিৎসা

চাকরিজীবী ও শ্রমিকদের আত্মহত্যা ঠেকাতে দক্ষিণ কোরিয়ায় কফিন চিকিৎসার ব্যবহার শুরু হয়েছে। পৃথিবীতে সবচেয়ে বেশি আত্মহত্যার হার যে দেশগুলোতে তার একটি দক্ষিণ কোরিয়া। এই আত্মহত্যার একটি কারণ হিসেবে বলা হয় কর্মক্ষেত্রে অতিরিক্ত চাপ।

আত্মহত্যা প্রতিকারে দেশটির কিছু কিছু প্রতিষ্ঠান তাদের কর্মীদের নানাভাবে জীবনের মূল্য উপলব্ধি করানোর চেষ্টা করছে। এরমধ্যে কফিনে শুয়ে থাকার মতো চর্চাও রয়েছে।

সিউলের একটি আধুনিক অফিস ব্লকে ১৮ জন মানুষ তাদের কফিনের পাশে বসে আছেন। এটি একটি সাজানো গণ শেষকৃত্য অনুষ্ঠান। এই কার্যক্রমে যারা অংশ নিচ্ছেন, তাদেরকে তাদের চাকরি দাতারা নিয়ে এসেছেন।

কারণ তারা মনে করছেন, তাদের এই কর্মচারীদের জীবনের মূল্য বোঝা উচিত। এবং তাদের সাজানো শেষকৃত্যের মধ্য দিয়ে তারা উপলব্ধি করতে পারবেন তাদের জীবনের ভালো দিকগুলো।

খোলা কফিনে প্রবেশ করার পর কফিনের পাল্লা বন্ধ করে দেয়া হয় এবং ১০ মিনিট ঘোর অন্ধকারে কাটানোর পর কফিনের পাল্লা খুলে আবার তাদের আলোর মাঝে আনা হয়।

কফিন থেকে বেরুনোর পর নিজের অভিজ্ঞতার বর্ণনা দিচ্ছিলেন একজন অংশগ্রহণকারী। তিনি বলছিলেন “আমি বুঝতে পারছি যে আমি জীবনে অনেক ভুল করেছি। আমি ভবিষ্যতে যাই করি না কেন, তাতে আরো বেশি মনোযোগ দিতে চাই।”

কফিন চিকিৎসা কার্যক্রমের প্রধান, পার্ক চুন উং বলছিলেন, তাদের কাজের প্রধান উদ্দেশ্যই হচ্ছে মানুষের মধ্যে একটি ঐক্যের মনোভাব তৈরি করা।






মন্তব্য চালু নেই