মেইন ম্যেনু

আত্রাই-নওগাঁ সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন : জনদুর্ভোগ চরমে

নওগাঁর আত্রাইয়ে এক মাসের ও বেশি সময় ধরে নওগাঁ জেলা সদরের সাথে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন থাকার কারনে জনদুর্ভোগ চরম আকার ধারণ করেছে। প্রতিনিয়ত বিভিন্ন প্রয়োজনে প্রতিদিন আত্রাই থেকে হাজার হাজার লোক নওগাঁ জেলা সদরে যাতায়াত করে থাকেন।

এ ছাড়াও নওগাঁ থেকে প্রতিদিন আত্রাই উপজেলার বিভিন্ন অফিসে কর্মরত ব্যক্তিদের আত্রাইয়ে আসতে হয়। গত আগষ্ট মাসে উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢল ও বর্ষণের ফলে উপজেলার ছোট যমুনা নদীর তীরবর্তী ফুলবাড়ী বন্যানিয়ন্ত্রণ বেড়িবাঁধ, উপজেলার মির্জাপুর নামক স্থানে গত ২৩ আগষ্ট নওগাঁ-আত্রাই আঞ্চালিক সড়কের বাঁধ ভেঙ্গে বির্স্তিীণ এলাকা পবিত হয়ে যায়। ওই বাঁধ ভাঙ্গার ফলে নওগাঁ জেলা সদরের সাথে সরাসরি সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়।

এদিকে মির্জাপুর হতে শাহাগোলা হয়ে নওগাঁর বিকল্প একটি রাস্তা দিয়ে সিএনজি ও অটোরিক্সা নওগাঁ-আত্রাই চলাচল করলেও মির্জাপুর-শাহাগোলা রাস্তাটি বন্যার পানিতে ডুবে যাওয়ায় এবং কয়েক জায়গায় ভেঙ্গে যাওয়ায় এ রাস্তাটিও বন্ধ হয়ে যায়।

ফলে জেলা সদরের সাথে সড়ক পথে যোগাযোগ একেবারেই বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে। এখন আত্রাই উপজেলাবাসীকে ৩০ কি.মি. রাস্তা অতিরিক্ত আরও ২০ কি.মি. ঘুরে রাণীনগরের আবাদপকুর হয়ে কোন রকম আসা-যাওয়া করতে হচ্ছে। এতে খরচও বেশি হচ্ছে আবার সময়ও লাগছে অনেক বেশি। তাই এখন আত্রাইয়ের জনগনকে জেলা জেলা সদরের সাথে যোগাযোগের জন্য ট্রেনের উপর অনেকটা র্নিভশীল হতে হচ্ছে। দিনের প্রথম প্রহরে সান্তাহারগামী একটি আন্তঃনগর ট্রেন থাকলেও বিকেলে ফেরার পথে আর কোন ট্রেন নেই।

তাই বিকেলের মধ্যে কাজ শেষ হলেও বাড়ি ফেরার জন্য সেই রাত পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হয় যাত্রীদের। আত্রাই-নওগাঁ রুটের সিএনজি চালক বেলাল ও শামিম হেসেন বলেন, মির্জাপুর বাঁধ ভাঙ্গার ফলে আমরা আত্রাই-নওগাঁ রুটে আর সিএনজি চালাতে পাড়ছি না। প্রায় ২০ কি.মি. ঘুরে আবাদপুকুর-মস্কিপুর হয়ে কোনমতে নওগাঁ যাতায়াত করা হচ্ছে।

এতে সময়ও অনেক বেশি লাগছে। আবার পরিবহন খরচও অনেক বেশি হচ্ছে।এ জন্য আগের মত আর ভাড়া পাচ্ছিনা। অথচ এ সিএনজির উপরই পরিবার নির্ভরশীল। ভাড়া কম পাওয়ায় পরিবার পরিজন নিয়ে আমাদের মানবেতর জীবন যাপন করতে হচ্ছে।

এদিকে আত্রাই রেলওয়ে ষ্টেশনে বিকেলে লালমনি এক্সপ্রেস ট্রেনের বিরতি কার্যকর হলে যাত্রী দুর্ভোগ অনেকাংশে লাঘব হবে এবং সরকারের রাজস্ব আয়ও বৃদ্ধি পাবে বলে মনে করছেন এলাকার সচেতন মহল। তাই বৃহত্তর স্বার্থে আত্রাইয়ে লালমনি এক্সপ্রেস ট্রেনের বিরতি দিতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনে সংশি¬ষ্ট র্কতৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষন করেছেন এলাকার সচেতন মহল।






মন্তব্য চালু নেই