মেইন ম্যেনু

আপনি প্রতিনিয়ত স্পর্শ করছেন ভীষণ নোংরা এই জিনিসগুলো!

আপনি তাদেরকে দেখতে পান না কিন্তু সে আপনার সাথে সারাক্ষণ আছে, আর সেটি হল জীবাণু। আপনি নিজের অজান্তে প্রতিনিয়ত এসব জীবাণু দ্বারা আক্রান্ত হচ্ছেন। আপনার প্রতিদিনের ব্যবহৃত জিনিসপত্রে রয়েছে শত শত জীবাণু, তা আপনি জানেন কি? অদৃশ্য এই ব্যাকটেরিয়াগুলো স্বাস্থ্যের জন্য বেশ ক্ষতিকর। এই জিনিসগুলো আমাদের প্রাত্যহিক জীবনেরই অংশ।

১। টাকা

আমরা প্রতিনিয়ত সবচেয়ে নোংরা যে বস্তুটি স্পর্শ করি তা হল টাকা। এক পরীক্ষায় দেখা গেছে একটি কয়েনে বাথরুমে থাকা কিটের তুলনায় বেশি জীবাণু রয়েছে। একটি নোটে ১,৩৫,০০০ ব্যাকটেরিয়া পাওয়া যায়!

২। কিবোর্ড

নাম শুনে চমকে উঠছেন? অথচ এই কিবোর্ডে রয়েছে হাজার খানেক জীবাণু। গবেষণায় দেখা গেছে স্ট্যাফ এবং ই কোলাই নামক জীবাণু কীবোর্ডের উপরিভাগে পাওয়া যায়। তাই নিয়মিত কোন অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল ক্লিনার দিয়ে মুছে ফেলুন আপনার কিবোর্ডটিকে।

৩। ড্রিংকিং ক্যান

পেপসি, কোক, ফাণ্টার ক্যানও রয়েছে এই তালিকায়। ক্যান প্রস্তুত থেকে শুরু করে বিক্রি পর্যন্ত অনেকগুলো হাত বদল হয়ে থাকে। এমনকি এই ক্যানই আপনি আপনার ঠোঁটে ছোঁয়াছেন। যার মাধ্যমে জীবাণু আপনার মুখে প্রবেশ করে আপনাকে অসুস্থ করে তোলে। তাই সাথে একটি স্ট্র রাখুন স্ট্র দিয়ে ড্রিঙ্ক পান করুন।

৪। টুথব্রাশ

আপনি কি আপনার টুথব্রাশটি বাথরুমে রাখেন? তবে আপনার টুথব্রাশটিও জীবাণুমুক্ত নয়। আপনি যখন বাথরুম ফ্ল্যাশ করেন তখন ব্যাকটেরিয়া ছড়িয়ে আপনার টুথব্রাশ আক্রান্ত হয়ে থাকে।

৫। ডোর নব

অনেক মানুষ আছেন যারা বাথরুম থেকে ঠিকমত হাত ধুয়ে বের হয় না। কমন টয়লেটের দরজার ডোর নব তারাও স্পর্শ করে থাকে। আপনার বাড়ির ডোর নবও জীবাণুমুক্ত নয়।

৬। মোবাইল ফোন

আপনি শেষ কবে আপনার মোবাইল ফোনটি পরিস্কার করেছিলেন? মনে পরছে না তো? আপনি জানেন কি আপনার ফোনে ৫০০ গুণেরও বেশি জীবাণু আছে আপনার বাথরুমের তুলনায়। মাঝে মাঝে মোবাইল স্ক্রিন এবং মোবাইল ফোনটি অ্যান্টিবায়োটিক ক্লিনার দিয়ে মুছুন।

৭। শপিং কার্ট

বিভিন্ন শপিং মল বা ডিপার্টমেন্টাল স্টোরের শপিং কার্ট অনেক মানুষ ব্যবহার করে। আর তাদের হাত থেকে জীবাণু কার্টে লেগে যায়। এর মাধ্যমে জীবাণু আপনার হাতে চলে আসে।

টাকা বা এই তালিকার কিছু ধরার পর অব্যশই হাত ভাল করে ধুয়ে নিবেন। নয়তো কী করে সুস্থ হয়ে পড়বেন তা ঘুণাক্ষরেও টের পাওয়া যাবে না।






মন্তব্য চালু নেই