মেইন ম্যেনু

আফ্রিদিকে ছাড়াই পাকিস্তানের টি-টোয়েন্টি দল

শহীদ আফ্রিদির আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ার কি শেষের পথে? ৩৬ বছর বয়সে বাদ পড়ে জাতীয় দলে ফেরা যে ভীষণ কঠিন! ইংল্যান্ডের বিপক্ষে একমাত্র টি-টোয়েন্টির জন্য ঘোষিত দলে জায়গা হয়নি আফ্রিদির।

গত মার্চ-এপ্রিলে আফ্রিদির নেতৃত্বেই টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে অংশ নিয়েছিল পাকিস্তান। তবে বিশ্বকাপের গ্রুপ পর্ব থেকে বাদ পড়ার পর অধিনায়কত্ব ছেড়ে দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছিলেন এই তারকা অলরাউন্ডার। যদিও জাতীয় দল থেকে অবসরের ব্যাপারে কিছু বলেননি। কিন্তু ইংল্যান্ড সফরের দলে সুযোগ না পাওয়ায় পাকিস্তানের ক্রিকেটাঙ্গনের একাংশের ধারণা, আফ্রিদির আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ার বোধ হয় শেষ।

প্রধান নির্বাচক ইনজামাম-উল-হক অবশ্য আশার আলোই দেখাচ্ছেন ওয়ানডের সাবেক দ্রুততম সেঞ্চুরিয়ানকে। বার্তা সংস্থা এএফপিকে পাকিস্তানের সর্বকালের অন্যতম সেরা ব্যাটসম্যান বলেছেন, ‘আমি আগেই বলেছিলাম যে ইংল্যান্ডে মাত্র এক ম্যাচ খেলতে হবে বলে আফ্রিদিকে বিবেচনা করা হবে না। তবে ঘরোয়া ক্রিকেটে ভালো খেলতে পারলে তাঁকে আবার সুযোগ দেওয়া হবে।’

ইদানীং আফ্রিদির পারফরম্যান্স অবশ্য তেমন ভালো নয়। এ বছর ইংল্যান্ডের টি-টোয়েন্টি ব্ল্যাস্টে হ্যাম্পশায়ারের হয়ে ১২ ম্যাচে ১৯১ রান করার পাশাপাশি ৯ উইকেট নিয়েছেন তিনি।

আফ্রিদি ছাড়াও বাদ পড়েছেন দুই ব্যাটসম্যান আহমেদ শেহজাদ ও উমর আকমল। হাঁটুর চোটের কারণে সুযোগ হয়নি অলরাউন্ডার মোহাম্মদ হাফিজেরও। তবে গত নভেম্বরের পর টি-টোয়েন্টি দলে ফিরেছেন বাঁহাতি পেসার সোহেল তানভীর। পাকিস্তান দলে একটাই নতুন মুখ—২১ বছর বয়সী অলরাউন্ডার আমাদ বাট।

ইংল্যান্ড-পাকিস্তান একমাত্র টি-টোয়েন্টি ম্যাচটি হবে ৭ সেপ্টেম্বর, ম্যানচেস্টারের ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে।






মন্তব্য চালু নেই