মেইন ম্যেনু

আবার নাকচ এমপি রানার জামিন আবেদন

মুক্তিযোদ্ধা ও আওয়ামী লীগ নেতা ফারুক আহমদ হত্যা মামলায় টাঙ্গাইল-৩ (ঘাটাইল) আসনের সংসদ সদস্য (এমপি) আমানুর রহমান খান রানার জামিন আবার নামঞ্জুর করেছেন আদালত।

আজ রোববার দুপুরে টাঙ্গাইলের অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালত ১-এ আসামিপক্ষের আইনজীবীরা জামিন আবেদন করেন। শুনানি শেষে বিচারক আবুল মনসুর মিয়া আবেদন নামঞ্জুর করেন।

গত ২৬ সেপ্টেম্বর সোমবার দুপুরে অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ-১ আদালতে আসামিপক্ষের আইনজীবীরা রানার জামিনের আবেদন করেন। আবেদনের শুনানি শেষে বিচারক আবুল মনসুর মিয়া জামিনের আবেদন নাকচ করেন।

এর আগে ১৮ সেপ্টেম্বর এ মামলায় আমানুর রহমান খান রানা টাঙ্গাইলের অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ-১ আদালতে হাজির হয়ে জামিন আবেদন করেন। উভয় পক্ষের শুনানি শেষে আদালতের বিচারক আবুল মনসুর মিয়া জামিন নাকচ করে তাঁকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন। এর পর থেকে রানা কাশিমপুর কারাগারে রয়েছেন।

মুক্তিযোদ্ধা ফারুক আহমদ হত্যার অভিযোগে গত ৩ ফেব্রুয়ারি টাঙ্গাইলের গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) এমপি রানা ও তাঁর তিন ভাই টাঙ্গাইল পৌরসভার সাবেক মেয়র ও টাঙ্গাইল শহর আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক শহিদুর রহমান খান মুক্তি, ছাত্রলীগের সাবেক সহসভাপতি সানিয়াত খান বাপ্পা ও ব্যবসায়ী নেতা জাহিদুর রহমান খান কাঁকনসহ ১৪ জনকে আসামি করে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করে। এরপর ৬ এপ্রিল টাঙ্গাইলের জ্যেষ্ঠ মুখ্য বিচারিক হাকিম আমিনুল ইসলাম গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারির আদেশ দেন।

২০১৩ সালের ১৮ জানুয়ারি রাতে শহরের কলেজপাড়ায় নিজ বাসভবনের সামনে থেকে টাঙ্গাইল জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ও মুক্তিযোদ্ধা ফারুক আহমদের গুলিবিদ্ধ লাশ উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনার পর নিহত ফারুক আহমেদর স্ত্রী নাহার আহমদ বাদী হয়ে টাঙ্গাইল মডেল থানায় একটি মামলা করেন।






মন্তব্য চালু নেই