মেইন ম্যেনু

আবুধাবীতে সড়ক দুর্ঘটনায় রাউজানের ২ ব্যক্তি নিহত : পরিবারে চলছে শোকের মাতম

সংযুক্ত আরব আমিরাতের রাজধানী আবুধাবীর আল আইন রোডের আল খাজনাতে সড়ক দুর্ঘটনায় ৩ বাংলাদেশী নিহত ও ২ বাংলাদেশী গুরুতর আহত হওয়ার পর থেকেই দেশে অবস্থানরত স্বজনদের মাঝে চলছে কান্নার রোল। একইভাবে বিদেশে অবস্থানরত স্বজনরা ব্যস্ত আহতদের চিকিৎসা প্রদান ও নিহদের দেশে ফিরিয়ে আনতে।

জানা যায়, বুধবার ২ সেপ্টেম্বর সকালে নিহত ও আহতরা সবাই চট্টগ্রামের রাউজান ও হাটহাজারীর। এর মধ্য একজন হচ্ছেন রাউজান উজেলার ৭নং রাউজান ইউনিয়নের মুহাম্মদ জাফরের পুত্র মুহাম্মদ ফরহাদ (২৮) ও একই উপজেলার ১৩নং নোয়াপাড়া ইউনিয়নের আবদুল হালিমের পুত্র মুহাম্মদ ইলিয়াছ (৪৫), অন্যজন চট্টগ্রামের হাটহাজারী উপজেলার কাটির হাটের এলাকার আবদুল হালিমের পুত্র মুহাম্মদ আকতার হোসেন (৪০)।

নিহত ফরহাদের মামাতো ভাই নওশাদ ও আজাদ এবং নিহত আকতারের ভাই মুহাম্মদ রহমত আলী জানিয়েছেন সকালে তারা কাজের উদ্দ্যেশে আবুধাবী থেকে আল আইন যাওয়ার পথে আনুমানিক সকাল ৭টার সময় আল খাজনাতে এসে হঠাৎ তাদের গাড়ীর এক্সসেল ভেঙ্গে যায় কিন্তু গাড়ী গতি বেশি থাকায় গাড়ী নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে রাস্তার পাশের লিন্টারের সাথে ধাক্কা মারে এই সময় ঘটনাস্থলে তিনজন মারা যায় ও বাকী ২ জন গুরুতর আহত হয়।

অন্যদিকে এই ঘটনায় আহত হন রাউজানের আধারমানিক এলাকার মুহাম্মদ বেলাল (৩২), একই উপজেলার মগদাইর মুহাম্মদ সাইফুল (৪২)। আহতরা আল আইন আল জিমি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। নিহতারা আল আইন জিমি হাসপাতালের মর্গে রয়েছেন। দূতাবাসের রাষ্ট্রদূত মুহাম্মদ ইমরান ও লেবার কাউন্সিলার মুহাম্মদ আরমান উল্লাহ চৌধুরীর বরাত দিয়ে আলআইনের একটি টিভি চ্যানেলের সাংবাদিক ও রাউজানের বাসিন্ধা মো.মোরশেদ বলেন, নিহতদের স্বজনদের সাথে কথা বলেছেন। সব ধরনের প্রসেসিং শেষ করে যতদ্রুত সম্ভব নিহতদের দেশে পাঠানোর ব্যাপারে দূতাবাস আশ্বাস প্রদান করেছেন।

এবং আহতরা যাতে ভাল চিকিৎসা পায় সেজন্য সব ধরনের ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানান লেবার কাউন্সিলার মুহাম্মদ আরমান উল্লাহ চৌধুরী। এদিকে ফরহাদের নিহত হওয়ার সংবাদের পর থেকে বাড়িতে কান্নার রোল চলছে বলে জানিয়েছেন রাউজান ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি বিএম জসীম উদ্দিন হিরু।

একই ভাবে পশ্চিম গুজরা ইউপি চেয়ারম্যান লায়ন সাহাবুদ্দিন আরিফ জানান, ইউনিয়নের আহতদের বাড়ীতে চলছে বাড়ী কান্না। অনেকে এই ঘটনায় আহতরা নিহত হয়েচেন বলেও স্বজনরা মনে করছেন।






মন্তব্য চালু নেই