মেইন ম্যেনু

আমরণ অনশনে নন এমপিও শিক্ষকরা: ৩য় দিনে অসুস্থ্য হয়ে পড়ছেন অনেকেই

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের জারি কৃত ১৩-১১-২০১১খ্রিঃ প্রজ্ঞাপন ও পরবর্তিতে বিভিন্ন সময়ে আরোপিত বিভিন্ন শর্তসমূহ বাতিলের দাবিতে গত ২২ ফেব্রুয়ারী জাতীয় প্রেসক্লাব সামনে শান্তিপূর্ন আমরণ অনশন কর্মসূচির ৩য় দিন, না খেয়ে অসুস্থ্য হয়ে পড়ছেন শিক্ষকরা।

কুড়িগ্রামের রাজিবপুর উপজেলার চরনেওয়াজী দ্বিমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের সৃষ্টপদের শিক্ষক নুরুল আলম ঢাকা মেডিকেল-এ ৬০১ ওয়ার্ডের মেডিসিন পুরুষ বিভাগে মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছেন। বিল্লাল হোসাইন ও সংগঠনের সভাপতি প্রদীপ চন্দ্র রায়কে প্রাথমিক চিকিৎসা ও স্যালাইন দেওয়া হয়েছে। এছাড়া আরও কয়েকজনকে স্যালাইন দেওয়া হচ্ছে।

প্রিয় সাংবাদিক ভাই ও বোনেরা কষ্ট করে এই আমরণ অনশনে আসার জন্য সৃষ্ট পদে নিয়োগপ্রাপ্ত ১৫ হাজার শিক্ষক পরিবারের পক্ষ থেকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানাই।

আমাদের দুঃখ কষ্টের কথা গত কয়েক বছর যাবত আপনাদের লিখনীতে উঠে এসেছে। শিক্ষা সাংবাদিকতার অভিজ্ঞতায় আপনারা জানেন যে, ২০১১ খ্রিষ্টাব্দের ১৩ নভেম্বর শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের জারি করা এক পরিপত্রের জন্য আমরা বৈধভাবে নিয়োগ পেয়েও পাঁচ (০৫) বছর ধরে এমপিওভুক্ত হতে পারছি না। এই পরিপত্র বাতিলের দাবিতে আমরা ২০১৫ সালের ২৫শে আগষ্ট বাংলাদেশের সকল বিভাগীয় শহরে মানববন্ধন পালন ও জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, মাননীয় শিক্ষামন্ত্রী, মাননীয় শিক্ষাসচিব এবং মাননীয় মহাপরিচালকের নিকট স্মারকলিপি প্রেরণ করি। পরবর্তীতে শিক্ষাবান্ধব সরকারের পক্ষ থেকে কোন আশ্বাস না পেলে পুনরায় ৮ ও ৯ই সেপ্টেম্বর, ২০১৫ ঢাকা জাতীয় প্রেসক্লাব চত্বরে মানববন্ধন কর্মসূচী পালন ও পুনরায় স্মারকলিপি প্রেরণ করা হয় এবং দিনাজপুর সার্কিট হাউজে মাননীয় শিক্ষামন্ত্রী মহোদয়ের সঙ্গে সাক্ষাত করা হয়।

সাক্ষাৎকারে তিনি আশ্বাস প্রদান করেন যে ঢাকায় গিয়েই, এই বিষয়ে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। কিন্তু দুঃখের বিষয় যে, তিনি এই বিষয়ে এখন পর্যন্ত কোন ধরনের নির্দেশ প্রদান করেননি।

এমতাবস্থায় আমরা পুনরায় ১৭ জানুয়ারি ২০১৬, মাননীয় শিক্ষাসচিব, ১৮ জানুয়ারি ২০১৬ মাননীয় মহাপরিচালক এবং ১৯ জানুয়ারি ২০১৬ শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের স্থায়ী কমিটির সভাপতি বরাবর স্মারকলিপি প্রদান ও সাক্ষাৎ করি এবং ১৩/১১/২০১১ পরিপত্রটি বাতিল করে সৃষ্টপদে নিয়োগপ্রাপ্ত শিক্ষকদের এমপিওভুক্ত করার জন্য বিনীতভাবে অনুরোধ জানাই।

৩ ফেব্রুয়ারী সৃষ্ট পদে শিক্ষকদের কষ্টের কথা বিবেচনা করে সাবেক রাষ্ট্রপতি জনাব আলহাজ্ব হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ পরিপত্রটি বাতিল করে এমপিওভুক্ত করণের জন্য সুপারিশ সম্বলিত ডিও লেটার মাননীয় শিক্ষামন্ত্রীর নিকট প্রদান করে। উক্ত ডিও লেটার হস্তান্তর করার সময় আমি প্রদীপ চন্দ্র রায়সহ কয়েকজনের সামনে মাননীয় শিক্ষামন্ত্রী অর্থ মন্ত্রনালয়ের উপর দায় চাপিয়ে আমাদের এমপিও ভুক্তির বিষয়টি এড়িয়ে যান।

গত ০৬-০২-১৬খ্রিঃ জাতীয় প্রেসক্লাবের হলরুমে সংবাদ সস্মেলন করে ১৪ থেকে ২০ই ফেব্রুয়ারি ক্লাস বর্জন কর্মসূচি পালন করা হয়।
এ আমরন অনশন সৃষ্ট পদের ১৫,০০০ হাজার শিক্ষকের আর্তনাদে ভিত কেপে উঠেছে। গত ১৭-০২-১৬ খ্রিঃ রাত ১০.০০ ঘটিকায় রংপুর জেলায় সৃষ্ট পদের শিক্ষক সদস্য এ কে এম আব্দুল বাতেন সহকারী শিক্ষক সমাজবিজ্ঞান বেতন ভাতার দুঃচিন্তায় হৃদরোগ আক্রান্ত হয়ে মারা যান। আর কত বাতেন এমপিওভুক্তির দুঃচিন্তায় পরপারে যাবেন। আমরা তার রুহের মাগফেরাত কামনা করি। এই পরিপত্রটি বাতিল করে এমপিওভুক্তির নির্দেশ না করা পর্যন্ত আমরণ অনশন চলবে। এ আমরন অনশনে ১৫,০০০ হাজার শিক্ষক অংশ নিচ্ছেন।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭৩খ্রিঃ সনে সকল প্রাথমিক বিদ্যালয়কে জাতীয়করণ এবং তারই সুযোগ্য কন্যা মাননীয় জননেত্রী শেখ হাসিনা একই সঙ্গে ২৬ হাজারেরও বেশী রেজিঃ প্রাথমিক বিদ্যালয়কে জাতীয়করণ করে শিক্ষাক্ষেত্রে উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন। আমাদের বিশ্বাস তিনিই পারেন স্ষ্টৃপদে শিক্ষকদের কষ্টের দিন লাঘব করতে।

আমরন অনশনে উপস্থিত ছিলেন সভাপতি প্রদীপ চন্দ্র রায়, প্রচার সম্পাদক এনামুল হক, সাংগাঠনিক সম্পাদক বিল্লাল হোসেন, রেজাউল করিম, আমিনুর রহমান, ইলা মন্ডল, মানছুরা জামান, কামরুন নাহার বেবী, আনোয়ার হোসেন, তপন কুমার সেন, হাশেম আলী, জহুরুল হক, শাহিনুর, আবু হানিফ প্রমুখ ।






মন্তব্য চালু নেই