মেইন ম্যেনু

আমলকির রসের স্বাস্থ্য উপকারিতা ও গুণাগুণ!

আমলকি মানুষের সবচেয়ে উপকারি ভেষজের মধ্যে একটি৷ আমলকির রস আপনি প্রতিদিন খেতে পারেন।এর কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই৷ এর রয়েছে নানান স্বাস্থ্য উপকারিতা। চলুন পাঠক জেনে নেই আপলকির রসের নানান গুন।

১. আমলকি চুলের টনিক হিসেবে কাজ করে এবং চুলের পরিচর্যার ক্ষেত্রে এটি একটি গুরুত্বপূর্ণ উপাদান৷ এটি কেবল চুলের গোড়া মজবুত করে তা নয়, এটি চুলের বৃদ্ধিতেও সাহায্য করে৷ এটি চুলের খুশকির সমস্যা দূর করে ও পাকা চুল প্রতিরোধ করে৷

২. আমলকির রস কোষ্ঠকাঠিন্য ও পাইলসের সমস্যা দূর করতে পারে৷ এছাড়াও এটি পেটে গোলযোগ ও বদহজম রুখতে সাহায্য করে৷

৩. প্রতিদিন সকালে আমলকির রসের সঙ্গে মধু মিশে খাওয়া যেতে পারে৷ এতে ত্বকের কালো দাগ দূর হবে ও ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়বে৷

৪. আমলকির রস দৃষ্টিশক্তি বাড়াতে সাহায্য করে৷ এছড়াও চোখের বিভিন্ন সমস্যা যেমন চোখের প্রদাহ, চোখ চুলকানি বা পানি পড়ার সমস্যা থেকে রেহাই দেয়৷

৫. এছাড়াও প্রতিদিন আমলকির রস খেলে নিঃশ্বাসের দুর্গন্ধ দূর হয় এবং দাঁত মজবুত থাকে৷

৬. খালি পেটে এক চা চামচ আমলকির রস এসিডিটির জন্য খুবই ভালো।

৭. পেট খারাপ হলে আমলকি প্রতিষেধক হিসেবে ব্যবহার করা যায়।

৮. গলা ব্যাথা বা কাশির জন্য আমলকির রসের সঙ্গে কিছু আদা মিশিয়ে পান করলে অল্প সময়ের মধ্যে উপকার পাওয়া যায়।

৯. আমলকি খেলে মুখে রুচি বাড়ে, ক্ষুধা বাড়ায় এবং শরীর ঠাণ্ডা রাখে। এছাড়া সর্দি, কাশির জন্যও খুবইউপকারী।

১০. বারবার বমি হলে শুকনো আমলকি এককাপ পানিতে ভিজিয়ে ঘণ্টা দুই পর সেই পানিতে একটু শ্বেত চন্দন ও চিনি মিশিয়ে খেলে বমি বন্ধ হয়।

১১. কাঁচা আমলকির পেস্ট চুলে লাগালে গোড়া শক্ত হয়, চুল ঝরঝরে থাকে এবং চুলের রং কালো হয়।

১২. আমলকির পেস্ট নারকেল তেলের সঙ্গে মিশিয়ে ব্যবহার করলে রাতে ভালো ঘুম হয়।

১৩. আমলকি ভিটামিন ‘এ’ সমৃদ্ধ যা কোলাজেন উৎপাদনে অপরিহার্য। এটি ত্বককে তরুণ, প্রাণবন্ত এবং সুদর্শন রাখে।

১৪. নিয়মিত আমলকি খেলে ব্রণের দাগ দূর হয়।






মন্তব্য চালু নেই