মেইন ম্যেনু

আমলটি অতি সহজ, কিন্তু সওয়াব অনেক বেশি

হজরত উমর ইবনে খাত্তাব রাজিয়াল্লাহু অানহু থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, আমি নবী করিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে বলতে শুনেছি, নিশ্চয়ই সব আমল নিয়তের ওপর নির্ভরশীল। আর প্রত্যেক ব্যক্তি তাই পাবে যা সে নিয়ত করবে। -সহিহ বোখারি ও সহিহ মুসলিম।

বর্ণিত হাদিসটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি হাদিস। এখানে নবীজি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এই শিক্ষা দিয়েছেন যে, প্রত্যেক আমলের সওয়াবের জন্য নিয়ত জরুরি। শুধু আমল নয়; বরং প্রত্যেক মানুষকে তার নিয়তের ওপরই প্রতিদান দেয়া হবে।

নবী করিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আরও বলেছেন, যে ব্যক্তি আল্লাহর কাছে একনিষ্ঠ মনে শাহাদাতের প্রার্থনা করবে আল্লাহ তাকে শহীদের মর্যাদা দান করবেন। যদিও সে স্বীয় বিছানায় মৃত্যুবরণ করে। -সহিহ মুসলিম

বর্ণিত হাদিস দ্বারা বোঝা যায় যে, শুধু নিয়তের আমলটির কারণে যে কোনো মহৎ ও ফজিলতপূর্ণ আমলের সওয়াব তাদের মতোই পাওয়া যাবে; যারা কষ্ট-সাধনার মাধ্যমে নিজেরা এই আমলগুলো সম্পাদন করেছে। অথচ সে ব্যক্তি পূর্ণ ইখলাসের সঙ্গে ওই আমলের শুধু নিয়তই করেছিল। আর কিছুই করতে পারেনি।

নবী করিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেন, কিয়ামতের দিন সর্বপ্রথম একজন শহীদকে ডাকা হবে এবং তার ওপর আল্লাহর দেয়া নেয়ামতগুলো একে একে স্মরণ করানো হবে। অতঃপর জিজ্ঞাসা করা হবে, তুমি কি এসব নেয়ামত ভোগ করেছিলে? সে স্বীকার করে নিবে। বলবে, হ্যাঁ, এসব নেয়ামত আমি ভোগ করেছি। তখন আল্লাহ বলবেন, ওই সব নেয়ামতের শোকরিয়ায় তুমি কী আমল করেছ? সে বলবে, আমি আপনার রাস্তায় লড়াই

করে শাহাদাত বরণ করেছি। আল্লাহ বলবেন, তুমি মিথ্যা বলছ; তুমি তো এজন্য লড়াই করেছ, যেন তোমাকে বীর উপাধি দেয়া হয়। তা তো দেয়া হয়েছে। অতঃপর আল্লাহতায়ালার নির্দেশে তাকে জাহান্নামে নিক্ষেপ করা হবে।

এরপর দ্বিতীয় ব্যক্তিকে আনা হবে, যে নিজে ইলম শিখেছে, কোরআন পড়েছে এবং অপরকে শিক্ষা দিয়েছে। তাকেও পূর্ববর্তী ব্যক্তির মতো আল্লাহতায়ালার নেয়ামতগুলো স্মরণ করানো হবে এবং সে তা স্বীকার করে নিবে। আল্লাহতায়ালা প্রশ্ন করবেন, এর প্রতিদানে তুমি কী আমল করেছ? সে বলবে, আমি তোমার জন্য ইলম শিখেছি, কোরআন পড়েছি এবং অপরকে শিখিয়েছি। আল্লাহ বলবেন, তুমি মিথ্যা বলেছ; বরং তুমি তো এজন্য ইলম শিখেছ, যাতে লোকে তোমাকে আলেম বলে। তা তো বলা হয়েছে। অতঃপর তাকে আল্লাহর নির্দেশে জাহান্নামে নিক্ষেপ করা হবে।

তৃতীয় আরেক ব্যক্তিকে হাজির করা হবে, যে ছিল বিত্তশালী যাকে আল্লাহতায়ালা প্রচুর সম্পদ ও ঐশ্বর্য দান করেছিলেন। পূর্বোক্ত দুই ব্যক্তির মতো তাকেও আল্লাহর নেয়ামতের কথা স্মরণ করিয়ে প্রশ্ন করা হবে যে, তুমি কী আমল করেছ? সে বলবে, মাওলা! ব্যয়ের জন্য তোমার পছন্দনীয় এমন কোনো খাত বাদ যায়নি, যে খাতে তোমারই সন্তুষ্টির জন্য আমি দান করিনি। আল্লাহতায়ালা বলবেন, তুমি মিথ্যা বলেছ। বরং তুমি তা করেছ শুধু এজন্যই যাতে লোকেরা তোমাকে দানবীর উপাধি দেয়। তা তো দেয়া হয়েছে। অতঃপর আল্লাহর নির্দেশে তাকেও জাহান্নামে নিক্ষেপ করা হবে। -সহিহ মুসলিম
অতএব আমাদের প্রত্যেক আমল করার আগে সহিহ নিয়তের আমল করা জরুরি। কেননা নিয়তই আসল।



(পরের সংবাদ) »



মন্তব্য চালু নেই