মেইন ম্যেনু

আমি আমার ছেলেকে কখনও এভাবে কাঁদতে দেখিনি : রোনালদোর মা

ইউরো কাপের ফাইনালে ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোকে আঘাত করেন দিমিত্রি পায়েত। এতে ম্যাচের ২৫ মিনিটেই মাঠ ছাড়তে হয় পর্তুগালের এ উইঙ্গারকে। কয়েকবার চেষ্টা করেও খেলা চালিয়ে যেতে ব্যর্থ হন রিয়াল মাদ্রিদের এ খেলোয়াড়। এতে অঝোরে কাঁদতে কাঁদতে মাঠ থেকে স্ট্রেচারে চড়ে বের হয়ে আসেন রোনালদো।

রোনালদোর এমন কান্না দেখে পর্তুগালের অনেক সমর্থকের চোখে তখন পানি দেখা যায়। ফ্রান্সের বিপক্ষে পর্তুগালের ফাইনাল ম্যাচ মাঠে বসে দেখছিলেন রোনালদোর মা দোলোরেস অ্যাভেইরো ও পুত্র জুনিয়র ক্রিস্টিয়ানো। রোনালদো যখন কাঁদতে কাঁদতে মাঠ ছাড়েন তখন তার মা গ্যালারিতে বসা। দুই হাত দিয়ে মুখ ঢেকে তিনি চোখের পানি লুকানোর চেষ্টা করছিলেন। ছেলের এমন অবস্থা দেখে থেমে থাকতে পারেননি রোনালদোর মা।

রোনালদোকে আঘাতকারী ফরাসি ফরোয়ার্ড পায়েতের সমালোচনা করে টুইট করেন তিনি। গ্যালারিতে বসেই লেখেন, আমি আমার ছেলেকে কখনও এভাবে কাঁদতে দেখিনি। ফুটবল খেলায় বলে লাথি মারতে হয়, প্রতিপক্ষের খেলোয়াড়কে নয়।

দৃঢ় মানসিকতার জন্য রোনালদো সব সময় প্রশংসিত। তিনি এই গুণ তার মায়েক কাছ থেকে যে পেয়েছেন সেটা বুঝা গেলো একটু পরে। রোনালদো তখন মাঠ ছেড়েছেন। পায়ে ব্যান্ডেজ নিয়ে ডাগআউটে বসে খেলোয়াড়দের প্রেরণা দিয়ে যাচ্ছেন।

একটু পর রোনালদো মা আরেকটি টুইট করেন, আমার ছেলে মাঠ ছেড়েছে, কিন্তু আমাদের দল জিততে পারে। আমি আত্মাবিশ্বাসী যে, আমাদের দল শিরোপা জিততে সক্ষম।’

রোনালদোর মায়ের আত্মবিশ্বাসই শেষ পর্যন্ত সত্যি হয়। ফ্রান্সকে ১-০ গোলে হারিয়ে প্রথমবারের মতো বড় কোনো শিরোপা জেতে পর্তুগাল।-এমজমিন






মন্তব্য চালু নেই