মেইন ম্যেনু

“আমি সেই নায়লা নাঈম, যার ছবি না দেখলে আপনার রাতের ঘুম হয় না”

গত চার দশকে বাংলাদেশের নারীরা অনেকটাই এগিয়েছেন৷ লিঙ্গবৈষম্য, ‘ধর্মের দোহাই’ দিয়ে তাঁদের গতিরোধের চেষ্টা হলেও, নারীরা সাফল্য দেখাচ্ছেন বিভিন্ন অঙ্গনে৷ তবে মডেল নায়লা নাঈম নারীর এই অগ্রযাত্রায় যোগ করেছেন এক ভিন্ন দিক৷

বাংলাদেশের নারী বলতেই কারো কারো চোখে ভেসে উঠতে পারে হেফাজতের মিছিলে মার খাওয়া সাংবাদিকের ছবি কিংবা অ্যাসিড ঝলসানো মুখ নিয়ে আর্তনাদ করা কোনো তরুণীর কথা৷ এভারেস্টের চূড়ায় বাংলাদেশি নারীর উপস্থিতির কথাও হয়ত বলবেন অনেকে৷ আর প্রধানমন্ত্রী, বিরোধী নেত্রীর আসনে নারীর উপস্থিতি তো এ দেশ দেখেছে বহু আগে থেকেই৷

বাংলাদেশের নারীদের এই অগ্রযাত্রায় এক ভিন্ন দিক যোগ করেছেন মডেল নায়লা নাঈম৷ সচরাচর যেসব পোশাকে বাংলাদেশের মডেলদের দেখা যায় না, সেসব পোশাকে কোনো ধরনের জড়তা, পিছুটান ছাড়াই নিজেকে তুলে ধরছেন নায়লা৷ তাঁর কথায়, ‘‘প্রথম দিকে মডেলিং করাটা শখের মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকলেও আস্তে আস্তে যখন সাফল্য আসতে শুরু করলো, আমার কাজের প্রশংসা পেতে থাকলাম, নতুন নতুন সৃজনশীল, গঠনমূলক ও ভালো কাজের প্রস্তাব আসতে থাকলো, তখন থেকে আমি মডেলিংকে আরো প্রাধান্য দিয়ে সেটা পেশা হিসাবে বেছে নিয়ে কাজ করা শুরু করলাম৷”

স্বল্পবসনে নায়লার তোলা ছবির সমলোচনাও করছেন অনেকে৷ নায়লা অবশ্য এ সব সমালোচনায় পিছিয়ে যাবার পাত্রী নন৷ তিনি মনে করেন, ‘‘আমার কাজগুলো নিয়ে আলোচনা হচ্ছে এবং অনেকে হয়ত ব্যাপারটাকে সহজভাবে নিতে পারেননি, তাই তার সমালোচনা করেছেন৷ আবার অনেকে কিন্তু এই একই কাজগুলোর অনেক প্রশংসাও করেছেন৷”

লায়লা নাঈম তার ফ্যান পেজে প্রায় সময়ই বিভিন্ন বিষয়ে স্ট্যাটাস দিয়ে থাকেন। মাঝে মধ্যে তার স্ট্যাটাসে ওঠে সমালোচনার ঝড়। গতকালও তিনি তার ফ্যান পেজে দিয়েছেন নতুন একটি স্ট্যাটাস। আওয়ার নিউজ বিডি’র পাঠকদের জন্য তার স্ট্যাটাসটি তুলে ধরা হলো:

“আমি সেই নায়লা নাঈম যার ছবি এক মাসের একটি ক্যাম্পেইনে একটি টেলিকম কোম্পানির মাধ্যমে ৭ মিলিয়ন ডাউনলোড হয়েছে মোবাইলে।
আমি সেই নায়লা নাঈম যাকে নিয়ে একদিন আলোচনা সমালোচনা না করলে আপনার পেটের ভাত হজম হয় না।
আমি সেই নায়লা নাঈম যার ছবি না দেখলে আপনার রাতের ঘুম হয় না।
_NN
* feeling chill babe! keep calm n quiet!”






মন্তব্য চালু নেই