মেইন ম্যেনু

আ’লীগকে ক্ষমতা থেকে উৎখাতের পরিকল্পনা করেছিল সিঙ্গাপুরে আটক জঙ্গিরা

ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ সরকার উৎখাতের পরিকল্পনা করেছিল সিঙ্গাপুরে আটক সন্দেহভাজন বাংলাদেশি আট জঙ্গি। মঙ্গলবার জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক স্টেটের সদস্য সন্দেহে ৮ বাংলাদেশিকে আটকের পর সিঙ্গাপুরের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয় এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানিয়েছে। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, আটক জঙ্গিরা দেশে ফিরে গুপ্তহত্যা ও সন্ত্রাসী হামলার পরিকল্পনা করেছিল।

অস্ট্রেলিয়ার প্রভাবশালী সংবাদমাধ্যম নাইননিউজ বার্তাসংস্থা এএফপির বরাত দিয়ে মঙ্গলবার এক প্রতিবেদনে বলছে, গত মাসে সন্দেহভাজন ওই আইএস সদস্যদের আটক করা হয়। জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক স্টেটে যোগ দিতে সিরিয়ায় যাওয়ার পরিকল্পনা করেছিল তারা।

আটক আটজনের মধ্যে রহমান মিজানুর নামে একজন সিঙ্গাপুরের পাস ধারী। এছাড়া বাকিদের সিঙ্গাপুরে ওয়ার্ক পারমিটের অনুমতি রয়েছে। সিঙ্গাপুর স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে বলছে, স্থানীয় একটি নির্মাণ প্রতিষ্ঠানে কর্মরত ছিলেন। আটককৃতরা অন্যরা হলেন, মামুন লিয়াকত আলী (২৯), সোহাগ ইব্রাহীম (২৭), মিয়াহ রুবেল (২৬), জেজামান দৌলত (৩৪), ইসলাম শরিফুল (২৭), মো. জাবাথ কায়সার হাজি নুরুল ইসলাম সওদাগর (৩০) ও সোহেল হাওলাদার (২৯)।

রহমান মিজানুরের নেতৃত্বে চলতি বছরের মার্চে সিঙ্গাপুরে ইসলামিক স্টেট বাংলাদেশ নামে একটি গোপন গ্রুপ গঠন করে ওই জঙ্গিরা। সিরিয়ায় বিদেশি যোদ্ধা হিসেবে আইএসে যোগ দেওয়ার পরিকল্পনা করেছিল তারা। তবে সিঙ্গাপুর থেকে সিরিয়ায় গন্তব্যস্থলে যাওয়া কঠিন হয়ে পড়েছিল বলে তাদের পরিকল্পনায় পরিবর্তন নিয়ে আসে। এর পরিবর্তে বাংলাদেশে ফিরে তাদের পুরো শক্তি ব্যবহার করে ক্ষমতা থেকে সরকার উৎখাতের পরিকল্পনা করে আটক জঙ্গিরা।

সিঙ্গাপুর স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয় বলছে, আটক জঙ্গিদের উদ্দেশ্য ছিল বাংলাদেশে ইসলামি রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করা এবং বাংলাদেশকে আইএসের ঘোষিত ইসলামি খেলাফতের আওতায় আনা। তদন্তে দেখা গেছে, ওই জঙ্গিরা বাংলাদেশে হামলা চালাতে কয়েকটি লক্ষবস্তু চিহ্নিত করেছিল। জঙ্গিদের কাছে থেকে বেশ কিছু নথি উদ্ধার করা হয়েছে। রহমান মিজানুরের কাছে থেকে ‌‘উই নিড ফর জিহাদ ফাইট’ শিরোনামের একটি নথিসহ বোমা ও অস্ত্র তৈরির কাগজপত্র পাওয়া গেছে। নথিতে বাংলাদেশের সরকারি কর্মকর্তাদের একটি তালিকা রয়েছে। এই কর্মকর্তাদেরকে হামলার সম্ভাব্য লক্ষ্য করেছিল আইএসবি।

আইএসবির সদস্যরা তাদের গ্রুপের সদস্য বৃদ্ধির জন্য সিঙ্গাপুরে বাংলাদেশি শ্রমিক নিয়োগের পরিকল্পনা করে। একই সঙ্গে বাংলাদেশে হামলা চালানোর জন্য আগ্নেয়াস্ত্র কিনতে শ্রমিক নিয়োগ করে তহবিল গঠন করেছিল। তবে সন্দেহভাজন এই জঙ্গিদের ওই তহবিলও উদ্ধার করেছে সিঙ্গাপুর।

সিঙ্গাপুর স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয় বলছে, আটক জঙ্গিদের কার্যকলাপের বিরুদ্ধে সিঙ্গাপুরে তদন্ত করা হচ্ছে। এছাড়া আটক ওই আট বাংলাদেশি ছাড়া আরো পাঁচ বাংলাদেশি শ্রমিকের বিরুদ্ধে তদন্ত করছে দেশটির নিরাপত্তা সংস্থা আইএসএ। তবে এই পাঁচ বাংলাদেশিকে এর আগে দেশে ফেরত পাঠানো হয়। এর আগে গত বছরের জানুয়ারিতে সিঙ্গাপুরে একই অভিযোগে আরো ২৭ বাংলাদেশিকে আটক করা হয়। এদের অনেকেই দেশটিতে ২ থেকে ৭ বছর ধরে শ্রমিক হিসেবে কাজ করছে।






মন্তব্য চালু নেই