মেইন ম্যেনু

‘আয়নাবাজি’ দিয়েই পর্দা উঠবে সিয়াটল দক্ষিণ এশীয় চলচ্চিত্র উৎসবের

আগামী ১৪-২৩ অক্টোবর ১১ তম ‘সিয়াটল দক্ষিণ এশীয় চলচ্চিত্র উৎসব’ যুক্তরাষ্ট্রের সিয়াটল শহরে শুরু হতে যাচ্ছে। এ উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে স্থান পেয়েছে অমিতাভ রেজা পরিচালিত ‘আয়নাবাজি’ চলচ্চিত্রটি। ১৪ অক্টোবর সন্ধ্যায় প্রথম প্রদর্শিত হবে ‘আয়নাবাজি’ ছবিটি।

এর মধ্য দিয়েই পর্দা উঠবে দক্ষিণ এশিয়ার বৃহত্তম এ চলচ্চিত্র উৎসবের। বেলভিউ আর্ট মিউজিয়ামে চলচ্চিত্রটি প্রদর্শিত হবে। এবারের উৎসবে বাংলাদেশকে নিয়ে রয়েছে বিশেষ আয়োজন রয়েছে বলে ২২ সেপ্টেম্বর দুপুরে জানালেন ‘আয়নাবাজি’ চলচ্চিত্রের মূল অভিনেতা চঞ্চল চৌধুরী। এ কারণে দারুণ উচ্ছ্বসিত তিনিও।

এ উৎসবে বাংলাদেশ ছাড়াও ভারত, পাকিস্তান, নেপাল, ভুটান, শ্রীলংঙ্কা, আফগানিস্তান ও মালদ্বীপের বাছাইকৃত বিভিন্ন চলচ্চিত্রগুলো প্রদর্শিত হবে। চঞ্চল চৌধুরী ছাড়াও ছবিটির পরিচালক অমিতাভ রেজা এ আয়োজনে আমন্ত্রণ পেয়েছেন।

দক্ষিণ এশীয় চলচ্চিত্র উৎসবে অংশগ্রহণ করার আগে নিউইয়র্কে চঞ্চল চৌধুরী ও শাহনাজ খুশি তিনটি সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করবেন। এরপর অক্টোবরের প্রথম সপ্তাহে উৎসবে যোগ দিবেন চঞ্চল।

এ বিষয়ে চঞ্চল চৌধুরী বৃহস্পতিবার দুপুরে জানান, ‘এটা অবশ্যই ভালো লাগার একটি খবর। আমাদের ফিল্মে তো এখন সংকটকাল চলছে। সিনেমাহলগুলো বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। সিনেমা দেখার পরিবেশ নাই। দর্শক হল বিমুখ, ভালো ছবি তৈরি হচ্ছে না। শুধুমাত্র ভারতীয় ছবির নকল গল্পে চলচ্চিত্র নির্মিত হচ্ছে। সেগুলো আবার প্রেক্ষাগৃহে চলাও নির্ভর করছে এক ধরনের সিন্ডিকেটের ওপর। একটা ছবি যখন ভালো হয় কিংবা আন্তর্জাতিকমানের হয়; সেই ছবিটি নিয়ে দেশ-বিদেশ ফেস্টিভালে যাওয়া হয়, সেটি সত্যিই আমাদের জন্য অনেক বেশি ভাল লাগার। আমি যে এ ছবিতে অভিনয় করেছি, এজন্য নয়; সার্বিক দৃষ্টিকোণ থেকেই বলেছি।’

গত ৯ সেপ্টেম্বর এ সিনেমার ট্রেলারটি ইউটিউবে প্রকাশিত হয়। এরপর থেকেই অসাধারণ নির্মাণের জন্যে নির্মাতা অমিতাভ রেজা প্রশংসায় ভাসছেন। আয়নাকে ঘিরে আশপাশের চরিত্রগুলোর ক্ষোভ, সন্দেহ, অনুসন্ধিৎসু মনের বেশ জটিলতা টের পাওয়া গেছে ট্রেলারে।

‘এ কেমন আয়নাবাজি’, ‘লাগ ভেলকি লাগ ভেলকি আয়নাবাজির ভেলকি লাগ’ দুটি গানের সুর আরও রহস্যময় করে তুলেছে।

‘আয়নাবাজি’ সেই শহরের গল্প শুনাবে, যে শহরে এখনও সকালে দুধওয়ালা আসে, ফেরিওয়ালারা হাঁকডাক দেয়, বাচ্চারা দল বেঁধে নাটক শিখতে যায়। মহল্লার চা-পুরির দোকানে ঠাট্টা-মশকরা করে বেকার-বখাটেরা। ‘আয়না’ সেই শহরের একজন বাসিন্দা। যার সঙ্গে সহজাত প্রেম হয়ে যায় ‘হৃদি’ নামক নাবিলার। একটা সময় আয়না আটকে পড়ে নষ্ট শহরের বেড়াজালে।

‘আয়নাবাজি’তে চঞ্চল চৌধুরী ও নাবিলার সঙ্গে অভিনয় করছেন লুৎফর রহমান জর্জ, গাউসুল আলম শাওন, হীরা চৌধুরী প্রমুখ।

কনটেন্ট ম্যাটার লিমিটেড প্রযোজিত এবং হাফ স্টপ ডাউন লিমিটেড নিবেদিত ‘আয়নাবাজি’র নির্বাহী প্রযোজক এশা ইউসুফ। কাহিনী লিখেছেন সৈয়দ গাউসুল আলম শাওন, চিত্রনাট্য তৈরি করেছেন অনম বিশ্বাস। সংলাপ লিখেছেন অনম বিশ্বাস ও আদনান আদীব খান। সংগীত আয়োজন করেছেন ফুয়াদ, অর্ণব, হাবিব ও চিরকুট ব্যান্ডের সদস্যরা।






মন্তব্য চালু নেই