মেইন ম্যেনু

আ.লীগের জন্য বসে থাকবে না বিএনপি

বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার জাতীয় ঐক্যের ডাকে আওয়ামী লীগ এল কি এল না তার জন্য বিএনপি বসে থাকবে না বলে জানিয়েছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন। তিনি বলেছেন, জঙ্গিবাদবিরোধী জাতীয় ঐক্যের কৌশল নির্ধারণে কাজ করছে বিএনপি।

খালেদা জিয়ার জঙ্গিবাদবিরোধী জাতীয় ঐক্যের ডাকে সাড়া দেয়ার বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এক রকম নাকচ করে দেয়ার প্রতিক্রিয়ায় এসব কথা বলেন খন্দকার মোশাররফ।

গুলশানের আর্টিজানে ও কিশোরগঞ্জের শোলাকিয়ায় জঙ্গি হামলার পর খালেদা জিয়া জঙ্গি মোকাবিলায় জাতীয় ঐক্যের ডাক দেন। এর পরিপ্রেক্ষিতে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের নেতাদের কেউ কেউ তাদের প্রতিক্রিয়ায় বিএনপিকে জামাত ছাড়ার পরামর্শ দিয়ে বলেন, তাহলে আলোচনা কিংবা ঐক্যের পথ তৈরি হতে পারে। সুশীল সমাজের পক্ষ থেকেও অনুরূপ বক্তব্য আসে।

এরপর বিএনপির অনেক নেতা ও দলটির অনুসারী কোনো কোনো বিশিষ্ট ব্যক্তি ইঙ্গিত দেন জামায়াতের সঙ্গে বিএনপির গাঁটছড়া শিগগিরই শিথিল হচ্ছে।

এ যখন অবস্থা, তখন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিএনপির জাতীয় ঐক্যের ডাক নিাকচ করে দিলেন।

মঙ্গোলিয়ার রাজধানী উলানবাতোরে অনুষ্ঠিত দুই দিনের এশিয়া-ইউরোপ সম্মেলনে (আসেম) তার যোগদান নিয়ে রবিবার বিকাল চারটায় গণভবনে এক সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সেখানে একজন সাংবাদিক জানতে চান জঙ্গিবাদ নিয়ে রাজনৈতিক দল ও সুশীল সমাজ জাতীয় ঐক্যের ডাক দিয়েছেন। বিষয়টি তিনি কীভাবে দেখছেন। জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, যাদের সঙ্গে ঐক্য হওয়ার তাদের সঙ্গে ঐক্য হয়েই আছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, “যারা সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ নিয়ে খেলে কিংবা আগুন দিয়ে মানুষ পুড়িয়ে হত্যার পথ বেছে নেয়, সেই ঘাতকদের সঙ্গে যারা জড়িত তাদের কথা আলাদা। যাদের ঐক্য সৃষ্টি হলে সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ মোকাবেলা সম্ভব, তাদের ঐক্য সৃষ্টি হয় গেছে। এই ঐক্য কিন্তু থাকবে।

প্রধানমন্ত্রীর এ বক্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মোশাররফ হোসেন বলেন, “আমাদের নেত্রী সন্ত্রাসী ও জঙ্গি মোকাবেলায় জাতীয় ঐক্যের ডাক দিয়েছেন। সরকার ও আওয়ামী লীগ জাতীয় ঐক্য চায় না বলে এ ধরনের কথা বলছে। সরকার না এলে তখন আমাদের কৌশল পরির্বতন হবে। এ জন্য আমাদের নেত্রী তা্র কৌশল নির্ধারণ করছে।”

কৌশল কী হতে পারে জানতে চাইলে খন্দকার মোশাররফ বলেন, “সেটা আন্দোলন হতে পারে, অন্যান্য রাজনৈতিক দল নিয়ে জাতীয় ঐক্য হতে পারে। এখানে কে এল আর কে এল না তা দেখার বিষয় নয়। দেশ ও জনগণের নিরাপত্তার স্বার্থে আমাদের নেত্রী তা্র কৌশল ঘোষণা দেবেন।”

জামায়াত প্রসঙ্গে বিএনপির এই জ্যেষ্ঠ নেতা বলেন, “বিএনপির রাজনীতি বিএনপি করে, জামায়াত তাদের রাজনীতি করে। জাতীয় ঐক্যের প্রশ্নে জামায়াতের বিষয়টি কেন আসে! আসলে সরকার সন্ত্রাস ও জঙ্গি নির্মূলে জাতীয় ঐক্য চায় না। সরকার এটা দিয়ে ক্ষমতা ধরে রাখতে চায়।”






মন্তব্য চালু নেই