মেইন ম্যেনু

আ.লীগের সংবাদ সম্মেলন বুধবার

ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের সংবাদ সম্মেলন বুধবার বেলা ১১টায়। এ সংবাদ সম্মেলন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ধানমণ্ডির রাজনৈতিক কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হবে।

মঙ্গলবার বিকেলে আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক ড. আবদুস সোবহান গোলাপ স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিঞ্জপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

এ সংবাদ সম্মেলনে আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ বক্তব্য রাখবেন।

খালেদার মুখে আইনের শাসনের কথা মানায় না

নাসিমজাতীয় চার নেতা হত্যাকারীদের আশ্রয় দিয়ে এবং বিচারে বাধাগ্রস্ত করে খালেদা জিয়ার মুখে আইনের শাসনের কথা মানায় না বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম।

সোমবার সকালে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে জাতীয় চার নেতার স্মৃতি নিদর্শন পরিদর্শন শেষে জেলখানার ভেতরে সাংবাদিকদের তিনি এ মন্তব্য করেন।

তিনি বলেন, ‘বিদেশে বসে খালেদা জিয়া মানবতার কথা বলছেন, দেশের আইনের শাসনের কথা বলছেন। জেলে চার নেতা হত্যাকারীদের আশ্রয়-প্রশ্রয় দিয়ে এবং পরে বিচারে বাধাগ্রস্ত করে খালেদার মুখে আইনের শাসনের কথা মানায় না। এটা তামাসা ছাড়া আর কিছুই না।’

নাসিম বলেন, ‘জাতীয় এই চার নেতার হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জিয়াউর রহমান, মোস্তাক সরাসরি জড়িত ছিল। হত্যার পরে জিয়াউর রহমানই তাদেরকে আশ্রয়-প্রশ্রয় দিয়েছেন। কালো আইন করে বিচার বন্ধ করেছেন। মানবতাবিরোধী গর্হিত কাজ করেছে তারা। তখন মানবতা কোথায় ছিল।’

শহীদ চার নেতার এক নেতা এম মনসুর আলীর সন্তান মোহাম্মদ নাসিম বলেন, ‘দুনিয়ার কোথাও জেলে হত্যার এরকম নজির নেই। জেলে মানুষ নিরাপদ থাকে আর সেই নিরাপদ জায়গাটিতেই চার নেতাকে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়েছে। এর চেয়ে নিকৃষ্ট আর কী হতে পারে।’

এর আগে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম, মোহাম্মদ নাসিম, মতিয়া চৌধুরী, সাহারা খাতুন, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান কামাল, মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন, হাজী সেলিমসহ দলের অন্য নেতা-কর্মীরা কামরুজ্জামানের নিদর্শন কক্ষে মিলাদ ও দোয়া করেন।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হত্যার পর ১৯৭৫ সালের ৩ নভেম্বর তার ঘনিষ্ঠ রাজনৈতিক সহচর সৈয়দ নজরুল ইসলাম, তাজউদ্দিন আহমেদ, এম মনসুর আলী ও এএইচএম কামরুজ্জামানকে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে নৃসংশভাবে হত্যা করা হয়।

দিবসটি উপলক্ষে সকালে রাজধানীর বনানী কবরস্থানে এবং পরে রাজধানীর ধানমণ্ডি ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা জানান শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলামের ছেলে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম, তাজউদ্দিন আহমেদের ছোট ভাই, এম মনসুর আলীর ছেলে স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম। এছাড়া দলীয় আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকেও শ্রদ্ধা জানানো হয়। এরপর একে একে শ্রদ্ধা জানান আওয়ামী লীগ ও এর সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা।






মন্তব্য চালু নেই