মেইন ম্যেনু

ইঁদুরে কামড়ালে কী করবেন?

ইঁদুর কামড়ালে কেমন যন্ত্রণা হয়, তা কেবল ভুক্তভোগীরাই জানেন। ইঁদুর ৬০টির বেশি রোগের জীবাণু বহন ও বিস্তার করে। এর মধ্যে রয়েছে প্লেগ, অ্যাইরোসিস, চর্মরোগ, কৃমি রোগ, হান্টা ভাইরাস, ইঁদুরে কামড়ানো জ্বর, টাইফয়েড, জন্ডিস, ক্ষেত্রবিশেষে জলাতঙ্ক।

ইঁদুরে কীভাবে জীবাণু ছড়ায়

* ইঁদুরের কামড় বা আঁচড়ের মাধ্যমে লালা দিয়ে জীবাণু ছড়ায়।

* ইঁদুরের মলমূত্র ও লোমের মাধ্যমে জীবাণু ছড়ায়।

ইঁদুরের কামড়ে শরীরে যা ঘটে

* আক্রান্ত জায়গায় ব্যথা হয়, লাল হয়ে যায়, ফুলে যায়।

* আক্রান্ত জায়গায় চুলকানি ও মাংসপেশিতে ব্যথা হতে পারে ।

* মাথাব্যথা ও জ্বর হতে পারে।

* যদি ইনফেকশন হয়, তবে আক্রান্ত জায়গায় সমস্যা হয়ে জটিলতা হতে পারে।

* কামড়ানোর পর আর কোনো জটিলতা হয় কি না, সেটি বোঝার জন্য আক্রান্ত ব্যক্তিকে কমপক্ষে ১০ দিন নজর রাখা প্রয়োজন এবং শরীরের যত্ন নেওয়া প্রয়োজন।

ইঁদুরে কামড়ালে যা করবেন

* প্রথমে রক্তক্ষরণ বন্ধ করতে হবে।

* আক্রান্ত জায়গাটি পরিষ্কার গরম পানি ও সাবান দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

* রক্তক্ষরণ বন্ধ করার জন্য পরিষ্কার কাপড়, গজ ব্যান্ডেজ দিয়ে কয়েক মিনিট চেপে ধরুন।

* কামড়ের জায়গাটি অ্যান্টিসেপটিক বা পারঅক্সাইড দিয়ে ভালো করে পরিষ্কার করুন।

* পরিষ্কারের সময় ভালো করে খেয়াল করুন, যাতে কোনো ফরেনবডি না থাকে। ফরেনবডি থাকলে পরে জটিলতা হতে পারে।

* সেকেন্ডারি ইনফেকশন থেকে বাঁচতে অ্যান্টিবায়োটিক খেতে হবে।

* একটি টিটি টিকা নিতে হবে।

* এখন প্রশ্ন হচ্ছে, র‍্যাবিস ভ্যাকসিন নেবেন কি নেবেন না। আমেরিকানভিত্তিক গবেষণায় বলা হয়েছে, ইঁদুর সাধারণত জলাতঙ্ক ছড়ায় না। তবে ইঁদুর যদি গৃহের না হয়ে বন্য হয় এবং জলাতঙ্কের জীবাণু বহন করে, তবে অবশ্যই র‍্যাবিস ভ্যাকসিন নিতে হবে।






মন্তব্য চালু নেই