মেইন ম্যেনু

ইতিহাস থেকে এক পা দূরে বাংলাদেশ

আর মাত্র একটি ম্যাচ। এশিয়া কাপের ফাইনালে রোববার ভারতকে হারাতে পারলেই নতুন ইতিহাস গড়বে বাংলাদেশ। প্রথমবারের মতো এশিয়া কাপের শিরোপা উঠবে বাংলাদেশের ঘরে।

২০১২ এশিয়া কাপে শিরোপার খুব কাছে গিয়েও স্বপ্নভঙ্গের বেদনায় পুড়েছিল বাংলাদেশ। ফাইনালে পাকিস্তানের বিপক্ষে ২ রানের সেই হারের পর সাকিব-মুশফিকদের কান্না কাঁদিয়েছিল গোটা দেশকেও।

চার বছর পর সেই পাকিস্তানকে হারিয়েই বাংলাদেশ দ্বিতীয়বারের মতো এশিয়া কাপের ফাইনালে উঠেছে। সেই সঙ্গে ২০১২ সালের ফাইনালে হারের ক্ষতে দিয়েছে সান্ত্বনার প্রলেপ। এখন স্বপ্নের শিরোপা থেকে মাত্র এক কদম দূরে মাশরাফি বিন মুর্তজার দল।

টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটে অনুষ্ঠানরত এবারের এশিয়া কাপে ভারতের কাছে হেরে টুর্নামেন্ট শুরু করেছিল বাংলাদেশ। এরপর ঘুরে দাঁড়ানোর গল্পটাও তো সবার জানা। সংযুক্ত আরব আমিরাত, শ্রীলঙ্কা ও পাকিস্তানকে হারিয়ে স্বপ্নের ফাইনালে।

ভারতের বিপক্ষে ওয়ানডে ক্রিকেটে বাংলাদেশের পাঁচটি জয় থাকলেও তিনটি টি-টোয়েন্টি খেলে হার সব কটিতেই। রোববার ফাইনালের আগে বাংলাদেশ অনুপ্রেরণা নিতে পারে তাই ওয়ানডে থেকেই।

গত বছর তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজে ভারতকে ২-১-এ হারানোর স্মৃতিটা এখনো টাটকাই। ২০১২ সালে তো এই এশিয়া কাপেই ভারতকে উড়িয়ে দিয়েছিল বাংলাদেশ।

মিরপুরে সেদিন শচীন টেন্ডুলকারের শততম আন্তর্জাতিক সেঞ্চুরি ম্লান হয়ে গিয়েছিল তামিম, সাকিব, নাসির, মুশফিকদের দারুণ ব্যাটিংয়ের কাছে। ২০১২ এশিয়া কাপের সেই সুখস্মৃতি রোববার ফাইনালেও ফিরবে?






মন্তব্য চালু নেই