মেইন ম্যেনু

ইমরুলের ব্যাটে লড়ছে বাংলাদেশ

সফরকারী ইংল্যান্ডের বিপক্ষে প্রথম ওয়ানডেতে ৩১০ রানের জয়ের লক্ষ্যে ব্যাট করছে বাংলাদেশ।

শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত টাইগারদের সংগ্রহ ২৩ ওভারে ৩ উইকেটে ১৩৫ রান। ইমরুল কায়েস ৬৬ এবং মুশফিকুর রহিম ১ রান নিয়ে ব্যাট করছেন।

শুক্রবার হোম অব ক্রিকেট মিরপুরে টস জিতে প্রথমে ব্যাট করে বেন স্টোকসের শতরান এবং জস বাটলারের ঝড়ো ফিফটিতে নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৮ উইকেট হারিয়ে ৩০৯ রান করে ইংলিশরা।

ব্যাটিংয়ে নেমে ইংল্যান্ডের উদ্বোধনী জুটি ৪১ রান সংগ্রহ করে। ইংলিশ শিবিরে প্রথম আঘাত হানেন টাইগার বোলার শফিউল। উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান ভিঞ্চকে ব্যক্তিগত ১৬ রানে সাজঘরে ফেরান তিনি।

এরপর ইংলিশদের নির্ভরযোগ্য ব্যাটসম্যান জেসন রয়কে ফিরিয়ে দিয়ে নিজের প্রথম উইকেট শিকার করেন বিশ্বখ্যাত অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। দলীয় ৬১ রানের মাথায় সাব্বিরের হাতে ধরা পড়েন ইংল্যান্ডের এ মারকুটে ব্যাটসম্যান। রয় ৪১ রান করেন।

এরপরের ওভারেই সাব্বিরের সরাসরি থ্রুতে ব্যক্তিগত ৫ রান করে রান আউটের শিকার হয়ে সাজঘরে ফেরেন জনি বেইস্টরো। তবে চতুর্থ উইকেট জুটিতে ১৫৩ রান সংগ্রহ করে ডাকেট ও স্টোকস। ডাকেটকে ৬০ রানে বোল্ড করে জুটি ভাঙেন শফিউল।

ডাকেট ফিরে গেলেও দুইবার জীবন পাওয়া স্টোকস জীবনের প্রথম শতক হাঁকান। তবে শতরান করেই মাশরাফির বলে সাব্বিরের হাতে ধরা পড়েন তিনি। স্টোকসের ১০১ রানের ইনিংসটি ৪টি ছয় ও ৮টি চারে সাজানো ছিল।

এরপর মঈন আলীও উইকেটে টিকতে পারেননি। মাশরাফির বলে মাত্র ৬ রানে তামিমের তালুবন্দী হন তিনি।

তবে মাঠে নেমেই ঝড় তোলেন বাটলার। মাত্র ৩৩ বলে ফিফটি পূর্ণ করেন তিনি। ৩৮ বলে ৬৩ রান করে সাকিবের বলে আউট হন বাটলার। ৪টি ছয় ও ৩টি চারে সাজানো ছিল তার ইনিংস।

শেষ পর্যন্ত ৩০৯ রানে শেষ হয় ইংলিশদের ইনিংস। সফরকারীদের এই রান সংগ্রহে অবশ্য টাইগার ফিল্ডারদেরও বেশ অবদান রয়েছে! খুবই বাজে ফিল্ডিং দেখল টাইগার ভক্তরা।

বেন স্টোকস ও বাকেটের ৪টি ক্যাচ ফেলে দেন মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ ও মোশাররফ হোসেন রুবেল। তাছাড়া বাটলারেরও ক্যাচ ধরতে পারেনি তাসকিন আহমেদ।

৩১০ রানের লক্ষ্যে খেলতে নেমে শুরুটা ভালোই করে বাংলাদেশ। ওপেনিং জুটিতে ৪৬ রান সংগ্রহ করে তামিম ও ইমরুল। তবে ব্যক্তিগত ১৭ রানে অভিষেক হওয়া জ্যাক বলের শিকার হন তামিম।

এরপর ব্যাটিংয়ে নেমে ঝড় তোলেন সাব্বির রহমান। কিন্তু ভাগ্য যেন তার সাথে ছিল না। জ্যাকের বলে ওভার বাউন্ডারি মারতে গিয়ে উইলির হাতে ধরা পড়েন তিনি। উইলি দ্বিতীয়বারের চেষ্টায় বলটি তালুবন্দী করেন। সাব্বির মাত্র ১১ বলে ১৮ রান করেন।

সাব্বির ফিরে গেলেও ইমরুল কায়েস নিজের ১৩তম অর্ধশতক তুলে নেন। মাহুমুদুল্লাহ রিয়াদকে নিয়ে ৫০ রানের জুটি গড়েন তিনি। পরে রিয়াদ ২৫ রানে আদিল রশিদের বলে আউট হন।






মন্তব্য চালু নেই