মেইন ম্যেনু

ইলিশ ছাড়াই বৈশাখ উদযাপনের ঘোষণা

চট্টগ্রাম: পান্তা-ইলিশে বৈশাখ উদযাপনের সংস্কৃতির পক্ষে জোরালো উদাহরণ না থাকায় এবার চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসন ইলিশের পদ ছাড়াই বৈশাখ উদযাপনের ঘোষণা দিয়েছে।

ইলিশবিহীন বৈশাখ সম্পর্কে জেলা প্রশাসক মেজবাহ উদ্দিন বলেন, ‘এ সময় যে সব ইলিশ ধরা পড়ছে তা সবই জাটকা, এমনকি মা ইলিশও ধরা পড়ছে। তাই ইলিশ রক্ষার স্বার্থে, প্রতিবছর জেলা প্রশাসন কেন্দ্রীয়ভাবে যে বৈশাখী আয়োজন করে থাকে তাতে এবার ইলিশের কোনো আইটেম থাকবে না। তবে অন্য সব আয়োজন থাকবে।’

তিনি বলেন, জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে খবর নিয়ে জানা গেছে চট্টগ্রামের মৎসজীবীরা এখন ইলিশ ধরা বন্ধ রেখেছেন। কেননা এখন ইলিশের আকার ছোট। কয়েক মাস পরে ধরলে বড় আকারের ইলিশ পাওয়া যাবে বলে তারা মনে করেন। এমনকি ইলিশের প্রজননেও সহায়তা হবে। পহেলা বৈশাখে পান্তা-ইলিশ খাওয়া একটি সাম্প্রতিক প্রচলন।

সম্প্রতি পহেলা বৈশাখকে কেন্দ্র করে চালু হয়েছে জাটকা নিধন, নিষিদ্ধ জেনেও বেশি দামের প্রলোভনে এ অপরাধ চলছে। কিছু অসাধু ব্যবসায়ী ইলিশের দাম মাত্রাতিরিক্ত বাড়িয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছে। সাধারণ মানুষের নাগালের বাইরে চলে যাচ্ছে ইলিশের দাম।

জেলা প্রশাসন ও জেলা মৎস্য অফিস চট্টগ্রামের বিভিন্ন বাজার ও ফিসারি ঘাটে কড়া নজর রাখছে। জাটকা বিক্রি দেখা মাত্রই ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে সংশ্লিষ্টদের আইনের আওতায় আনা হবে।

মৎস্য অধিদপ্তরের জাটকা সংরক্ষণ, জেলেদের বিকল্প কর্মসংস্থান এবং গবেষণা প্রকল্পের জাটকা নিধন প্রতিরোধ কার্যক্রম ২০১৫-১৬ প্রতিবেদন অনুযায়ী, জানুয়ারি মাসে ২৩ জেলা থেকে ১৮.৬৮১৫ মেট্রিক টন জাটকা উদ্ধার করা হয়। জরিমানা করা হয়েছে সাড়ে ৪ লাখ টাকার বেশি। ফেব্রুয়ারি মাসে জাটকা আটক হয়েছে ৬৬.৩৫৩ মেট্রিক টন। জরিমানা হয়েছে ১১ লাখ ৫৫ হাজার টাকা। সর্বশেষ মার্চে জাটকা উদ্ধার হয়েছে ৮৯.৪২৪ মেট্রিক টন এবং জরিমানা হয়েছে ১০ লাখ ২৫ হাজার লাখ টাকা।

জেলা মৎস্য কর্মকর্তা প্রভাতী দেব জানান, নববর্ষের এ সময়টি হচ্ছে রুপোলি ইলিশের প্রজনন মৌসুম। এ সময় পহেলা বৈশাখ উদযাপনে ইলিশ খাওয়া মানে হচ্ছে বাংলাদেশের অর্থনীতি ধ্বংস করা।

বৃহস্পতিবার (৮ এপ্রিল) সকাল সাড়ে ছয়টায় চট্টগ্রাম জেলার ফিসারি ঘাট থেকে বিপুল পরিমাণ জাটকা আটক করা হয়। জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তাহমিলুর রহমান এ অভিযান পরিচালনা করেন। এ সময় অনেকে জাটকা নিয়ে পালিয়ে যায়। জব্দ করা হয় প্রায় পাঁচ হাজার জাটকা, যার ওজন প্রায় ১০০ কেজি।



(পরের সংবাদ) »



মন্তব্য চালু নেই