মেইন ম্যেনু

ইসরাইলের হাতে আকাশগাড়ি!

রোড়ে চলে গাড়ি, কিন্তু আকাশে চলবে আকাশগাড়ি- এমন কথা বেমানান মনে হলেও ঘটনা সত্যি। অনেকদিনের পরিকল্পনার ফসল ইসরাইলের। বিশ্ব তাক লাগিয়ে দিল ইসরাইল। টাইমস অব ইন্ডিয়ার প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, শহরের হাইরাইজ বাঁচিয়ে সবার চোখে ধুলো দিয়ে সুন্দর উড়ে বেড়ায়।

অনেকটা তেমনই, কিন্তু অত আওয়াজ নেই। বিশেষ ডিজাইনের কারণে রাডারেও খুব একটা ধরা পড়ে না। ইসরাইলের এই অদ্ভুত আকাশগাড়ি ভবিষ্যতের যাতায়াতের প্রধান মাধ্যম হতে চলেছে। অন্তত তেমনটাই মনে করছেন বিজ্ঞানীরা। এতে বলা হয়, প্রজেক্টটি শুরু হয়েছিল প্রায় এক দশক আগে।

এই যানটির নাম রাখা হয়েছে ‘এয়ার মিউল’। ২০০৬-এ লেবাননের যুদ্ধের সময় আহত সেনাদের উদ্ধার করতে নাজেহাল হতে হয়েছিল ইসরাইলকে। সেই সময় এই আকাশযানের কথা মাথায় আসে দেশটির বিজ্ঞানীদের। তার পর থেকে নিরন্তর গবেষণা।

বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর আকাশযানটি তৈরি করা হয়। আকাশযানটির বড় সুবিধা হলো- যেখানে হেলিকপ্টার বা অন্য কোনো আকাশযান ওঠানামা করতে পারবে না, সেখানে এয়ার মিউল অনায়াসে নেমে কাজ সেরে ফিরে আসতে পারবে। চালানোর জন্য মানুষের প্রয়োজন নেই। তবে চাইলে চালকের আসনে বসা যেতেই পারে।

এ বিষয়ে জানা গেছে, এয়ার মিউল এমন মিশনের জন্য তৈরি করা হয়েছে, যেখানে সাধারণের পক্ষে যাওয়া সম্ভব হয় না। শুধু যুদ্ধক্ষেত্রে বা সেনাবাহিনীর কাজেই আসবে না, ভবিষ্যতের যাতায়াত ব্যবস্থায় বিপ্লব এনে দিতে পারে এয়ার মিউল। যানটির ওজন প্রায় ৮০০ কেজি। প্রায় ৬৫০ কেজি ওজন নিয়ে ১০০ নট প্রতি ঘণ্টায় ১৮ হাজার ফুট ওপর থেকে নিঃশব্দে উড়ে যেতে পারে যানটি।






মন্তব্য চালু নেই