মেইন ম্যেনু

ই-রিকশায় ভারতের প্রধানমন্ত্রী, দিলেন ভাড়াও

উত্তরপ্রদেশের নয়ডায় মঙ্গলবার ই-রিকশায় চড়লেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। ই-রিকশা মানে ইলেক্ট্রনিক রিকশা।নয়ডায় গিয়েছিলেন সেখানকার তফসিলি জাতির জন্য ঋণ দান প্রতিষ্ঠান ‘স্ট্যান্ড আপ ইন্ডিয়া’র আনুষ্ঠানিক সূচনা করতে।

নয়ডায় অনুষ্ঠানকে ঘিরে মোদির কর্মকান্ড ছিল রীতিমত চমকে দেওয়ার মতোই। দলিত বিরোধী ও ‘স্যুট-বুট কি সরকার’-এর তকমা ছেড়ে মোদি প্রথমেই অনুষ্ঠান মঞ্চের পাশে সাজানো বাবু ভাইয়ের চায়ের দোকানে স্থানীয় রিকশওয়ালা, শ্রমিক, মজুরদের সঙ্গে আড্ডায় বসলেন।মোদির কারণে সে আড্ডায় যোগ দিতে হল অরুণ জেটলি, রাজ্যপাল রাম নাইককেও।

এই অনুষ্ঠানেই ৫১০০ জনকে ই-রিকশা দেওয়া হয়।

এই সব ‘ই-রিকশা’ মোবাইলের ওলা-অ্যাপস থেকেই ডেকে নেওয়া যায়। ভাড়া মিটিয়ে দেওয়া যায় মোবাইলের ফ্রিচার্জ অ্যাপস থেকে। মোদিও তাই করলেন। মোবাইল থেকে ‘রিকশা’ ডেকে মন্ত্রী-সান্ত্রী সমেত তাতে চড়েই মঞ্চে পৌঁছলেন। তারপর ভাড়াও মেটালেন অ্যাপস থেকে। রিকশার সঙ্গে রেডিও-ও দেওয়া হলো বিনামূল্যে, যাতে সকলে প্রধানমন্ত্রীর ‘মন কি বাত’ শুনতে পারেন।

অবশ্য সাজানো চায়ের দোকানে রিকশাওয়ালাদের সঙ্গে মোদির আড্ডা দেখে টিপ্পনি কেটে কংগ্রেস বলছে, ‘সবটাই আসলে সাজানো। মানুষ বারবার ধোঁকা খাবে না।’ কিন্তু বিজেপি নেতারা বলছেন, লোকসভায় উত্তরপ্রদেশে ৮০টির মধ্যে ৭১টিই জিতেছিল বিজেপি। লখনউয়ের মসনদ দখলে দলিত ভোট সঙ্গে থাকাটা জরুরি। মোদি সেই চেষ্টাটাই শুরু করে দিয়েছেন।

তথ্যসূত্র: আনন্দবাজার পত্রিকা






মন্তব্য চালু নেই