মেইন ম্যেনু

ঈদগাহে ছবি তোলতে আসিনি, নামাযের জন্য এসেছি : আমলা

চট্টগ্রাম পুলিশ লাইন মসজিদে ঈদের জামাতে দক্ষিণ আফ্রিকা টেস্ট ক্রিকেট দলের অধিনায়ক হাশিম আমলা সফররত দক্ষিণ আফ্রিকা টেস্ট ক্রিকেট দলের অধিনায়ক হাশিম আমলা মুখ ঢেকে চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশের (সিএমপি) পুলিশ লাইন মসজিদে ঈদের নামাজ আদায় করেছেন।

শনিবার সকাল সাড়ে আটটায় এই মসজিদে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়।

আমলা ছাড়াও বাংলাদেশ টেস্ট ক্রিকেট দলের অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম ও খেলোয়াড় মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ একই মসজিদে ঈদুল ফিতরের নামাজ আদায় করেছেন। পাশাপাশি সিএমপি কমিশনার আবদুল জলিল মণ্ডলসহ ঊর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তারা এখানে নামাজ পড়েন।

নামাজ শুরুর পাচ মিনিট পূর্বে হাশিম আমলা, বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের দুই সদস্য মুশফিক ও মাহমুদুল্লাহ পুলিশ লাইন মসজিদে হাজির হন।

এরমধ্যে হাশিম আমলা ছিলেন লম্বা আলখাল্লা পরিহিত, মাথা ছিল পাগড়ী দিয়ে ঢাকা। গাড়ী থেকে নামার সময় পাগড়ী টেনে মুখও সম্পূর্ণ ঢেকে দেন। এসময় সেখানে উপস্থিত সাংবাদিকদের ছবি তুলতে বাধা দেন দক্ষিণ অফ্রিকান ক্রিকেট দলের কয়েকজন কর্মকর্তা।

এরপরও সাংবাদিকরা ছবি তুলতে গেলে এক কর্মকর্তা ইংরেজিতে বলেন, এটাতো ঈদের নামাজ, এখানে ছবি তুলতে হবে কেন? এখানে আল্লাহ রাজি-খুশির উদ্দেশে আশা।

দক্ষিণ অফ্রিকান ক্রিকেট দলের কর্মকর্তাদের তৎপরতা দেখে সেখানে উপস্থিত পুলিশ কর্মকর্তারাও সাংবাদিকদের ছবি তুলতে নিষেধ করেন।

নামাজ শেষে সিএমপি কমিশনার আবদুল জলিল মণ্ডল আপাদমস্তক ঢাকা হাশিম আমলাকে সাথে নিয়ে মসজিদ থেকে বের হয়ে আসেন। এসময়ও সাংবাদিকরা ছবি তুলতে চাইলে সিএমপি কমিশনার আবদুল জলিল মণ্ডল এক সাংবাদিককে উদ্দেশ্য করে বলেন, এই ছবি তুলেন কেন? ওনারাতো বললেন ধর্মীয় কাজে ছবি না তোলার জন্য। এটা ঠিক নয়।

এর পরপরই মুশফিক ও মাহমুদুল্লাহ মসজিদ থেকে বের হয়ে আসেন। সাংবাদিকরা তাদের সাথে কথা বলতে চাইলে নিরাপত্তা রক্ষীরা বাধা দেয়।

তবে পুলিশ লাইনে গাড়িতে উঠার আগে মাহমুদুল্লাহ সাংবাদিকদের বলেন, চট্টগ্রাম সব সময় আনন্দের জায়গা, এখানে ঈদ করাও আনন্দের, তবে পরিবারকে ভীষণ মিস করছি।






মন্তব্য চালু নেই