মেইন ম্যেনু

ঈদের আগে গরু চুরির হিড়িক

কুরবানির ঈদ সামনে রেখে কুড়িগ্রামের হঠাৎ করেই বেড়েছে গরু চোরের উপদ্রব। জেলার নাগেশ্বরীতে গত দুই সপ্তাহে ২০টি গরু চুরির খবর পাওয়া গেছে। এছাড়াও ৪টি মোটরসাইকেলসহ অনেকগুলো বাড়িতে চুরি হয়েছে। ফলে নিরুপায় হয়ে চুরি ঠেকাতে রাত জেগে পাহাড়া বসিয়েছে গ্রামবাসী।

এলাকাবাসী জানায়, পৌরসভার আশেপাশে রাতভর পথচারি যাতায়াত করে এমন পথে ভটভটি নিয়ে অপেক্ষায় থাকে চোরের সাগরেদরা। সুযোগ বুজে চুরি করা গরু নিয়ে পালিয়ে যায়।

এসব সড়কে প্রকৃত ব্যবসায়ীরাও গরু নেয়, তাই চুরির বিষয়টি এলাকাবাসী বুঝে ওঠার আগেই স্থান ত্যাগ করে চোরেরা। ফলে কোনভাবে ঠেকানো যাচ্ছে না চুরি। অনেক সময় দিনের বেলাতেও চুরি যাচ্ছে গরু। এছাড়াও প্রতিদিন কোনো না কোনো বাড়ীতে চুরি হচ্ছে। এ পর্যন্ত চুরি গেছে ৪ টি মোটর সাইকেল।

গত এক সপ্তাহে পরপর দুইবার চুরি গেছে বালাটারী এলাকার ওয়াহেদুজ্জামান আলীর বাড়ী। খোয়া গেছে ৫ ভরি সোনার অলংকার ও নগদ ৬০ হাজার টাকা।

বুধবার রাতে পৌরসভার বিদ্যুৎপাড়ায় কামরুল হাসানের বাসার গ্রিল কেটে চোরেরা নিয়ে গেছে তার ব্যবহৃত মোটরসাইকেলটি। এছাড়াও চুরি গেছে সাপখাওয়ার নুর ইসলাম মন্ডল ও বড়বাড়ী মিনাবাজারের রহিম মন্ডলের মোটরসাইকেল।

শাহজাহান আলী, সিদ্দিক মিয়া, হামিদুল হক ও মফিজুল ইসলামসহ অনেকেই জানান, চোরের উপদ্রবে অতিষ্ট হয়ে পড়েছি আমরা। চুরি ঠেকাতে রাত জেগে পাহারা বসালেও চুরি ঠেকানো যাচ্ছে না।

নাগেশ্বরী থানা ওসি আফজাল হোসেন বলেন, এ সংক্রান্ত কোন অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পাওয়ার পর যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হবে।






মন্তব্য চালু নেই