মেইন ম্যেনু

ঈদে দেখতে পারেন যে ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান

ঈদ আনন্দকে আরো বেশি বাড়িয়ে দিতে প্রতিটি টিভি চ্যানেলেই রয়েছে নানান ধরনের অনুষ্ঠান। নাটক, চলচ্চিত্র, টেলিছবি, সংগীতানুষ্ঠান, নৃত্যানুষ্ঠানের বাইরেও ঈদের বিশেষ আকর্ষণ হিসেবে রয়েছে ঈদ ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান।

ইত্যাদি
বিটিভির ঈদ অনুষ্ঠানমালায় ঈদের বিশেষ ‘ইত্যাদি’ প্রচারিত হবে। ‘ইত্যাদি’ রচনা, উপস্থাপনা ও পরিকল্পনা করেছেন হানিফ সংকেত। ইত্যাদি’তে প্রতিবারই চেষ্টা করা হয় গান বা নাচের পরিবেশনায় বৈচিত্র্য আনতে। এবারও সেই চেষ্টাটি রয়েছে। আর সেজন্যেই সঙ্গীত তারকা সাবিনা ইয়াসমিন এবং তার কন্যা বাঁধন এবং নৃত্য তারকা মৌ ও তার কন্যা পুষ্পিতাকে এই প্রথম এক সঙ্গে দেখা যাবে ‘ইত্যাদি’র ঈদের মঞ্চে। সাবিনা ইয়াসমিন ও তার কন্যা গাইবেন আর সেই গানের সঙ্গে মৌ আর তার কন্যা নাচবেন। আশা করি মা-কন্যাদের এই নাচ-গান আপনাদের ভালো লাগবে। দেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় অনুষ্ঠান ‘ইত্যাদি’র ঈদ পর্বের একটি গানে একসাথে আটজন তারকা শিল্পী অংশ নিয়েছেন। ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান ‘ইত্যাদি’ প্রতিটি বিষয়েই খুঁজে পাওয়া যায় সমসাময়িক প্রসঙ্গ, সমাজের অসঙ্গতির বিরুদ্ধে তীব্র ব্যঙ্গবিদ্রুপের কশাঘাত। সেটি কখনো কথায়, কখনো নাটিকায়, কখনো সুর-ছন্দে। শিল্পী নির্বাচন, কোরিওগ্রাফি ও পরিবেশনার বৈচিত্র্যে বিষয়গুলো হয়ে ওঠে অনন্য, এর ধারাবাহিকতায় এবার রয়েছে সাম্প্রতিক সময়ে আলোচিত কিছু বিষয় নিয়ে একটি গান। গানটিতে অংশ নিয়েছেন জনপ্রিয় অভিনেত্রী তারিন এবং ছোট পর্দা ও বড় পর্দার জনপ্রিয় সাতজন অভিনেতা- অপূর্ব, আগুন, জয়, ঈমন, নীরব, নাঈম ও কল্যাণ কুরাইশ। এটি ‘সাত ভাই চম্পা…’ গানটির সুরে করা হয়েছে। নন্দিত নির্মাতা হানিফ সংকেতের ব্যতিক্রমী চিত্রায়নে দর্শকদের প্রিয় এসব তারকাকে ঈদের ‘ইত্যাদি’তে ভিন্নরূপে দেখা যাবে। ঈদে শত শত অনুষ্ঠানের ভিড়ে দর্শকেরা তাদের প্রিয় তারকাদের এ গানের মাধ্যমে একসাথে দেখতে পাবেন। এর ব্যতিক্রমী পরিবেশনা দর্শকদের আনন্দ দেবে। নির্মাণ করেছে নন্দিত নির্মাতা প্রতিষ্ঠান ফাগুন অডিও ভিশন। প্রচার হবে যথারীতি কেয়া কসমেটিকস লিমিটেডের সৌজন্যে।

আনন্দমেলা
১৯৮৪, ১৯৮৬ এবং ১৯৯১ সালে মোট তিনবার বিটিভির ঈদ আনন্দ মেলার উপস্থাপনা করেছেন আবেদ খান ও ড. সানজিদা আখতার। দীর্ঘদিন পর আবারও বিটিভিতে এবরের আনন্দ মেলা উপস্থাপনা করছেন আবেদ খান। তার উপস্থাপনায় এবারের আনন্দ মেলার বিশেষ আকর্ষণ হিসেবে উপস্থিত হয়েছেন আনন্দ মেলার বেশ কয়েকজন উপস্থাপক। এদের মাঝে রয়েছেন বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রের সভাপতি অধ্যাপক আব্দুল্লাহ আবু সায়ীদ, বর্তমান ঢাকা উত্তরের মেয়র আনিসুল হক, জাদুশিল্পী জুয়েল আইচ এবং ড. সানজিদা আখতার। এবারের উপস্থাপকের সঙ্গে কথোপকথনের পাশাপাশি জাদুশিল্পী জুয়েল আইচ দেখিয়েছেন মনকাড়া একটি জাদু, মেয়র আনিসুল হক জানিয়েছেন রাজনৈতিক জীবন ও উপস্থাপনা বিষয়ক নানা অভিজ্ঞতার কথা এবং অধ্যাপক আব্দুল্লাহ আবু সায়ীদ ও ড. সানজিদা আখতার অংশ নিয়েছেন একটি ব্যতিক্রমধর্মী কথোপকথন পর্বে। এ প্রসঙ্গে আবেদ খান বলেন, ‘আনন্দ মেলার উপস্থাক হিসেবে তারা যেমনি সফল তেমনি পেশাগত জীবনেও এক একজন উজ্জ্বল নক্ষত্র। এবারের আয়োজনের বিশেষ আকর্ষণ হিসেবে শত ব্যস্ততার মাঝেও দর্শকদের সামনে হাজির হয়েছেন তারা।’ এবারের ঈদ আনন্দ মেলা পরিচালনা ও প্রযোজনা করছেন মাহফুজা আক্তার। সমন্বয় করছেন এম এস রানা। প্রচারিত হবে ঈদের দিন রাতে বিটিভিতে।






মন্তব্য চালু নেই