মেইন ম্যেনু

বিদেশী এনজিও কর্তৃক মাদক ও মানবপাচারের অভিযোগে

উখিয়ায় ঘণ্টাব্যাপী মানববন্ধন

কক্সবাজারের উখিয়ার কুতুপালং রোহিঙ্গা শরণার্থী অধ্যুষিত এলাকায় মানবসেবায় কর্মরত বিদেশী এনজিও এমএসএফ হল্যান্ড কর্তৃক মানব ও মাদকপাচার সহ স্থানীয়দের চিকিৎসাবঞ্চিত করার অভিযোগে সচেতন কুতুপালংবাসী কক্সবাজার-টেকনাফ সড়কের কুতুপালং এলাকায় ঘণ্টাব্যাপী মানবন্ধন কর্মসূচি পালন করেছে।

সোমবার বেলা ১২টার দিকে অনুষ্ঠিত মানববন্ধনোত্তর পথসভায় বক্তারা বলেন, কুতুপালং এমএসএফ হল্যান্ড কর্তৃক পরিচালিত হাসপাতালে কর্মরত আউটরিচ ওয়ার্কার জামাল ও বশর সহ বেশ কয়েকজন কর্মকর্তা, কর্মচারীর অব্যাহতি সহ দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী জানিয়েছেন।

এ সময় বক্তারা বলেন, মানবসেবার নামে প্রতিষ্ঠিত হাসপাতালের অ্যাম্বুলেন্স ব্যবহার করে ইয়াবা পাচার করছে। সম্প্রতি কক্সবাজার-টেকনাফ সড়কের উখিয়ার মরিচ্যা যৌথ চেকপোষ্টে এমএসএফ হল্যান্ড হাসপাতাল কর্তৃক ব্যবহৃত অ্যাম্বুলেন্সে তল্লাশি চালিয়ে বিজিবি সদস্যরা ৫০ হাজার ইয়াবা সহ হাসপাতালের একজন নার্স ও গাড়িচালককে আটক করেছে।

মানবপাচারের সাথে জড়িত হয়ে রোহিঙ্গাদের অগ্রাধিকার ভিত্তিক চিকিৎসা সেবা দিলেও স্থানীয়দের বঞ্চিত করেছে। এমএসএফ হাসপাতালের আওতায় বিভিন্ন পদে স্থানীয় চাকুরীতে নিয়োগ না দিয়ে তাদের আত্মীয় স্বজনদের চাকুরীতে নিয়োগ দিচ্ছে। কতিপয় এসব কর্মচারী কর্মকর্তার ইন্দনে রোহিঙ্গারা বেপরোয়া হয়ে সরকারবিরোধী উস্কানিমূলক কর্মকান্ডে জড়িত হচ্ছে। যে কারনে সীমান্তের বিভিন্ন পয়েন্ট দিয়ে রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ বৃদ্ধি পাচ্ছে।

বক্তারা বলেন, এমএসএফ হল্যান্ডের সরকারবিরোধী কার্যকলাপের কারণে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে নিরুৎসাহিত করা হচ্ছে। যা দেশ ও জাতির জন্য অশনি সংকেত। বক্তারা ১১ দফা দাবী সম্বলিত স্মারকলিপি প্রশাসনের বিভিন্ন দপ্তরে প্রেরণের মাধ্যমে আগামীতে বৃহত্তর কর্মসূচী ঘোষণা করে বলেন, আগামীতে এমএসএফ হল্যান্ডের অনৈতিক কর্মকান্ড, কর্মকর্তা কর্মচারীদের স্থানীয়দের প্রতি দুর্ব্যবহার সহ চাকুরীতে স্থানীয় বেকার শিক্ষিত যুবকদের অগ্রাধিকার না দিলে তাদের সমস্ত কার্যক্রম বন্ধ করে দেওয়ার হুশিয়ারি উচ্চারণ করেন।

এ সময় বক্তব্য রাখেন স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতা রিয়াজুল হক, নুরুল হক খান, সোনা আলী, নুুরুল কবির ভুট্টো প্রমুখ।






মন্তব্য চালু নেই