মেইন ম্যেনু

উড়ন চেয়ার ভোলোকপ্টার পাল্লা দেবে হেলিকপ্টারকেও!

মনে করুন বাগানের চেয়ারে বসে আছেন৷ ইচ্ছে হল একটু আকাশ ছুঁয়ে আসার৷ চেয়ারে বসেই সুইচ টিপে দিলেন৷ সোজা হুশসসসস করে উপরে উঠে গেলেন৷ এরকমই দিন আসছে৷ চমকে দেবে ভোলোকপ্টার৷

ব্যাটারি চালিত যন্ত্রের সাহায্যে একেবারে হেলিকপ্টারের মতো সোজাসুজি মাটি ছেড়ে ওঠা যাবে৷ বহু বিজ্ঞানী ও প্রতিষ্ঠান বিষয়টি নিয়ে গবেষণা করছে৷ আর জার্মান সিভিল ইঞ্জিনিয়ার আলেকজান্ডার জোজেলের ভিসি-ওয়ান যন্ত্রটি দিচ্ছে চমক৷

যন্ত্রটি দেখতে একটা খেলনার মতো৷ব্যাটারি চালিত এই যন্ত্রে চড়ে মাটি ছেড়ে সোজা আকাশে ওঠা যায়৷ আকাশ থেকে ভিডিও ছবি তোলা যায়৷ আলেকজান্ডার জোজেল সেই অসম্ভবকেই সম্ভব করেছেন৷ ভিসি ওয়ানের প্রথম উড়ানের প্রস্তুতি চলছে৷ এসব দেখে চমকে গিয়েছে হেলিকপ্টার প্রস্তুতকারী সংস্থাগুলি৷ বহু টাকা খরচ করে কোম্পানিগুলিও ভিসি-ওয়ানের মতো যন্ত্র তৈরি করতে চাইছে৷

আলেকজান্ডার জোজেল জানিয়েছেন, ইলেকট্রিক শক্তি দিয়ে খাড়া আকাশে তাঁরাই প্রথম উঠতে পেরেছেন৷ বড় বড় হেলিকপ্টার কোম্পানি চেষ্টা করলেও সফল হয়নি৷

যন্ত্রটিকে ব্যবহারের উপযোগী করতে চলছে বিভিন্ন পরীক্ষা৷ এ ব্যাপারে ডিজাইনারের সঙ্গে আলোচনা করে আলেকজান্ডার জোজেল তাঁর প্রাথমিক আইডিয়াগুলো স্কেচ করার চেষ্টা করছেন৷ তিনি জানান, গ্রাহকরা যন্ত্রটা কিনতে চাইবেন কিনা সেটাই হলো আমাদের কাছে গুরুত্বপূর্ণ৷ যন্ত্রটিকে ফ্যাশনেবল হতে হবে পরিকল্পনা মতো ভোলোকপ্টারটিতে একজন বা দু’জনের বসার জায়গা থাকবে৷ ওপরে ঘুরবে ১৮টি ব্যাটারি চালিত রোটর৷ এর ফলে একাধিক রোটর বন্ধ হলেও যন্ত্রটি দুর্ঘটনার হাত থেকে রক্ষা পেয়ে অক্ষত অবস্থায় মাটিতে নামবে৷ আপাতত এক ঘণ্টা উড়তে পারবে ভোলোকপ্টারটি৷

ভাবুন তো, ছুটির দিনে চা খাচ্ছেন৷ ইচ্ছে হল অমনি হুশসসসস করে আকাশে উড়ে গেলেন৷ এক ঘণ্টা উড়ে বেড়িয়ে পর দিব্বি নেমে এলেন ছাদে৷ এমনই মজাদার বস্তু হতে যাচ্ছে ভোলোকপ্টার৷ যা পাল্লা দেবে হেলিকপ্টারকেও৷

দেখুন ভিডিও:






মন্তব্য চালু নেই