মেইন ম্যেনু

উত্তর কোরিয়ার প্রেসিডেন্টের বিছানাসঙ্গী স্কুলছাত্রীরা

উত্তর কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট কিম জং উন ও তার ঘনিষ্ঠরা স্কুলছাত্রীদের তুলে নিয়ে তাদের সঙ্গে যৌনকর্ম করেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

ব্রিটেনের ডেইলি এক্সপ্রেসের খবরে বলা হয়, যৌনকর্মের জন্য বিভিন্ন স্কুলের ছাত্রীদের স্কুলকক্ষ থেকে তুলে নেওয়া হয়। এ কাজটি করে থাকেন কিমের অনুগত সেনা সদস্যরা। তাদের পরিবারের কাছে বিষয়টি জানানোর ক্ষেত্রেও ভয়ভীতি দেখানো হয়। ওই স্কুলছাত্রীদের নিয়ে গঠন করা হয় ‘প্রমোদ স্কোয়াড’।

‘প্রমোদ স্কোয়াড’ থেকে পালানো একজন জানান, শুধু মেডিকেল টেস্টে যারা কুমারি প্রমাণিত হয় তাদের নেওয়া হয় এ স্কোয়াডে। সামরিক কর্মকর্তাদের আনন্দ দেওয়ার উদ্দেশ্যে ‘প্রাপ্তবয়স্ক চিত্তবিনোদনকারী’ হিসেবে তাদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়।

দক্ষিণ কোরিয়ার সংবাদ মাধ্যমগুলো জানায়, ২০১১ সালে কিমের বাবা মারা যাওয়ার পর এ দলটি বন্ধ করে দেওয়া হয়। তবে কিম ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত হওয়ার পর নতুন করে ‘প্রমোদ স্কোয়াড’ তৈরি করেন।

‘প্রমোদ স্কোয়াড’ নিয়োগের জন্য লম্বা ও সুন্দরী মেয়েদের খুঁজে বের করা হয়। তাদের পিয়ংইয়ং’র হোটেলগুলোতে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়।

গত বছর কিম বলেছিলেন, ‘সবচেয়ে সুন্দরী নারীদের সেকশন ফাইভ নামে ডাকা হয়।’

এ সেকশন ফাইভে থাকে শুধু কিমের একান্তে থাকা নারীরাই। তাদের বেশির ভাগকেই অবশ্য ব্যক্তিগত নিরাপত্তাকর্মী ও বিশ্বস্তদের সঙ্গে বিয়ে দেওয়া হয়। কিম জং উনের রাষ্ট্রীয় বাসভবনে এদের সঙ্গে প্রমোদ পার্টিসহ মদের ব্যবস্থা থাকে।






মন্তব্য চালু নেই