মেইন ম্যেনু

উন্মুক্ত ছবি তুলে চাকরি গেল পুলিশের

পুলিশের চাকরি। হাতে বন্দুক, গায়ে উর্দি। কিন্তু তার মানেই কি যা ইচ্ছে তা-ই করার ছাড়পত্র হাতে চলে আসা? সম্ভবত নিদিয়া গার্সিয়া সেটা টের পেয়ে গিয়েছেন। কিন্তু আসল গল্প শুরু এখানেই।

সোশ্যাল মিডিয়ায় ভক্তের সংখ্যা বাড়ানো এমন এক নেশা, যা পুলিশের গা থেকে উর্দি পর্যন্ত খুলে নিতে পারে। মেক্সিকোর নিদিয়া গার্সিয়ার অবস্থা এখন সেই রকম। ইউনিফর্ম পরে পুলিশের গাড়িতে বসে নিজের উন্মুক্ত স্তনের ছবি তুলেছিলেন। হাতে সেমি-অটোম্যাটিক রাইফেল। তবে এই ছবি সেল্‌ফি নয়, অন্য কেউ তুলে দিয়েছিলেন। ছবিটি ফেসবুক-এ আলোড়ন ফেলে দেয়।

দোষ কবুল করে নিয়েছেন নিদিয়া। বলেছেন, ‘‘এই ছবি প্রকাশিত হওয়ার পরে আমার পরিবারের অপূরণীয় ক্ষতি হয়েছে। আমার স্বামী, দুই মেয়ে, বাবা-মা, বন্ধু, ভাই-বোন, সকলের ক্ষতি করেছি।’’

কিন্তু গল্পের শুরু এখানেই। বলা বাহুল্য, পুলিশের চাকরি গিয়েছে। কিন্তু নিদিয়ার বিভিন্ন ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়ে পড়ার পরে তাঁর কাছে একের পরে এক অফার আসছে। মডেলিং-এর। অফার বলতে মোটা টাকার প্রস্তাব। বেশিরভাগই পুরুষদের ম্যাগাজিন। কেউই তাঁকে সম্পূর্ণ নগ্ন হতে বলেনি। যে ভুল করে নিদিয়া পুলিশের চাকরি খুইয়েছেন, বেশিরভাগ অফারেই তাঁকে সেই ধরনের ‘ভুল’-ই করতে বলা হয়েছে। নিদিয়া এখন সেলিব্রিটি।






মন্তব্য চালু নেই