মেইন ম্যেনু

উপাচার্যের সঙ্গে অসৌজন্যমূলক আচরণ: বেরোবিতে এক শিক্ষার্থী সাময়িক বহিস্কার

বেরোবি প্রতিনিধি: রংপুরের বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে (বেরোবি) ফয়সাল আহম্মেদ ফাহিম নামে এক শিক্ষার্থীকে সাময়িক বহিস্কার করেছে কর্তৃপক্ষ। সে ইতিহাস ও প্রত্মতত্ত্ব বিভাগের ২০১০-২০১১ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী, যার আইডি নম্বর ১০০৪০৩৯। শিক্ষার্থীকে সাময়িক বহিস্কারের বিষয়টি বুধবার বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার দপ্তর থেকে নিশ্চিত করেছে।

এদিকে হলে সিট দখলকে কেন্দ্র করে বহিস্কৃত সেই শিক্ষার্থীর নেতৃত্বে গত মঙ্গলবার রাতে হামলার ঘটনায় ছাত্রলীগের তিন নেতাকর্মী আহত হয়েছে বলে জানা গেছে। বহিস্কার আদেশ ঠেকাতে বহিস্কৃত সেই শিক্ষার্থী ক্যাম্পাস অস্থিতিশীল এবং বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির চেষ্টা করছে বলেও অভিযোগ করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের একটি সূত্র ।

সূত্রে জানা যায়, গত ৯ মে রাত সাড়ে ৮টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. একে এম নূর-উন-নবী ক্যাম্পাস প্রদক্ষিণ করার সময় ক্যাফেটেরিয়ার সামনে ফয়সাল আহম্মেদ ফাহিমসহ আরো ২০-২৫ জন শিক্ষার্থীকে উচ্চস্বরে গান গাওয়া বন্ধ করতে বলে। কিন্তু উপাচার্যের এমন নির্দেশে সবাই চুপ থাকলেও ফাহিম উপাচার্যের সাথে বাকবিতন্ডায় লিপ্ত হয়ে উপাচার্যের সাথে অশালীন আচরণ করে।

এমনকি উপাচার্যকে দেখে নেয়ারও হুমকি দেয়। এই ঘটনায় পরবর্তীতে ১২ মে উপাচার্যের সাথে অসৌজন্যমূলক আচরণের অভিযোগের প্রেক্ষিতে ওই শিক্ষার্থীর বিরুদ্ধে বিভাগটির বিভাগীয় প্রধান গোলাম রব্বানীকে আহবায়ক, ভারপ্রাপ্ত প্রক্টর শাহীনুর রহমানকে সদস্য সচিব করে তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠিত করা হয় এবং সেদিন থেকেই ওই শিক্ষার্থীকে তদন্ত প্রতিবেদন জমা না দেয়া পর্যন্ত বহিস্কার আদেশ দেয়া হয়।

তবে এই ঘটনায় ১২ মে থেকে তাকে বহিস্কার করা হলেও গত রোববার ৭ আগস্ট রেজিস্ট্রার দপ্তর থেকে তাকে সাময়িক বহিস্কারের বিষয় বিভিন্ন দপ্তর ও নিজ বিভাগে লিখিত নির্দেশ পাঠানো হয়েছে।

এ ব্যাপারে ইতিহাস ও প্রত্মতত্ত্ব বিভাগের বিভাগীয় প্রধান গোলাম রব্বানীর সাথে যোগাযোগ করা হলে এ বিষয়ে তিনি কোন মন্তব্য করতে পারবেন না বলে জানানো হয়। তবে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার দপ্তর থেকে বহিস্কারের বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া গেছে। তবে কী কারণে তাকে বহিস্কার করা হয়েছে তা জানানো হয়নি বলে ঐ শিক্ষার্থী জানিয়েছে।






মন্তব্য চালু নেই