মেইন ম্যেনু

ঋতুর পালাবদলে ক্রেতার আকর্ষণ জিন্সে

ঋতু বৈচিত্রের পালাবদলে ক্রেতাদের ফ্যাশন ট্রেন্ডের পরিবর্তন ঘটে। হালের ফ্যাশন সচেতন তরুণরা প্রয়োজনকে প্রাধান্য দিতে রাজি থাকলেও সৌখিনতার কমতি রাখতে রাজি নয়। এই ট্রেন্ডকে অনুসরণ করেই এগিয়ে চলে ফ্যাশন হাউজগুলো। কিন্তু কিছু পোশাক কখনোই যেন পুরনো হয় না, বরং বেড়ে চলে চাহিদা। তেমনি একটি ফ্যাশন অনুষঙ্গ জিন্স প্যান্ট। শীতের তীব্রতা ঠেকাতে এবং পর্যাপ্ত উষ্ণতা দিতে তরুণ-তরুণীদের কাছে বিশেষ আকর্ষণের বিষয় জিন্স।

মোটা কটন কাপড়কে জার্মান ভাষায় বলা হয় জিনিয়া। বর্তমানে তা জিন্স হিসেবে পরিচিত। জিন্সের প্রথম ব্যবহার শুরু হয়েছে আমেরিকার ওয়েস্টার্ন কাউবয়দের থেকে। তারা দীর্ঘস্থায়ীত্বের জন্য এটা পরতো বলে ধারনা করা হয়। তবে ১৮৭২ সালের কিছু সময় পরে জার্মান কাপড় ব্যবসায়ী লেভি স্ট্রস নামের এক ব্যক্তি জিন্স প্যান্টের বাটন, হুক এবং ব্যাকপকেটের প্রথম ডিজাইন করেন। এরপর থেকেই শুরু হয় জনপ্রিয় জিন্স প্যান্টের ব্যবহার।

জিন্সের আদি রূপ হয়তো যুগে যুগে পরিবর্তিত হয়েছে কিন্তু জনপ্রিয়তা কমেনি। বিংশ শতকে এসে দেখা গেলো বেশির ভাগ সেলিব্রিটির প্রথম পছন্দ জিন্স আর টি-শার্ট। এশিয়ার সেরা চারের একজন মডেল আসিফ আজিম এর প্রিয় পোশাক জিন্স, টি-শার্ট। তাই বলা চলে তারুণ্যের জয়গান গাইতেই যেনো আজ জিন্সের এই অগ্রযাত্রা।

ক্যাম্পাস কিংবা আড্ডায় জিন্স প্যান্টের বিকল্প নেই। তরুণ তরুণীদের কাছে জিন্স প্যান্ট প্রথম পছন্দের পোশাক, বাদ যায় না বৃদ্ধ এবং শিশুরা। অবশ্য বিভিন্ন পার্টিতে আজকাল জিন্সের আধিক্য চোখে পড়ার মতো। রুচি এবং চাহিদার প্রেক্ষিতে জিন্স প্যান্টের রয়েছে রকম ভেদ। যেমন ব্যাগি জিন্স, ন্যারো শেপ, স্ট্রেট, স্টিচ ইত্যাদি। ফুটপাথ থেকে শুরু করে বড় বড় শপিং কমপ্লেক্সগুলোতে জিন্সের চমকপ্রদ সমাহার।

আগে জিন্স প্যান্ট মানেই ছিলো নীল রঙ, কিন্তু বর্তমানে জিন্সের রয়েছে বহু রঙ এবং স্টাইল। বর্তমান সময়ে ব্লু জিন্স ছাড়াও চোখে পড়ে লাল, সবুজ, কালো, হলুদ, কমলা রঙের জিন্স, তারুণ্যের সঙ্গে মানিয়েও যাচ্ছে বেশ। দেশেই প্রস্তুত হচ্ছে উন্নতমানের জিন্স প্যান্ট। ফলে পর্যাপ্ততার কারণে দামও সাধ্যের মধ্যে। জিন্সের প্যান্টগলো ৫০০ টাকা থেকে শুরু করে ১২০০০ টাকার মধ্যে পাওয়া যায় নগরীর বিপণী বিতানগুলোয়। স্মার্টেক্স, ব্যাঙ, ইজি, মেনজক্লাব, স্বপ্ন চূড়া প্রভৃতি ফ্যাশন হাউসসহ সব হাউজেই দেখা মিলে নিত্যনতুন ডিজাইনের জিন্স প্যান্ট। শুধু নিজের সাধ্য এবং রুচি অনুযায়ী বেছে নিলেই হল।






মন্তব্য চালু নেই